অনুভূতি ! পর্ব_৯

অনুভূতি
পর্ব -০৯
মিশু মনি

অনুভূতি সকল পর্ব 

অনুভূতি ! পর্ব_১

অনুভূতি ! পর্ব_২

২৮.
মিশু জানালায় মাথা রেখে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে। ওর ঠিক সামনা সামনি বসে ওর দিকে চেয়ে আছে মেঘালয়। কি বলা উচিৎ বা কি করা উচিৎ বুঝতে পারছে না।
একটু পর বললো, “আমি কি শার্ট গায়ে দিবো নাকি কেউ তাকাবে?”
মিশু তবুও ঠায় জানালা দিয়ে বাইরে চেয়ে রইলো। মেঘালয় আবারো জিজ্ঞেস করলো, “আমি কি শার্ট পড়বো?”
এবারেও মিশুর কোনো উত্তর নেই। মেঘালয় আবারো একই প্রশ্ন করতেই মিশু ভয়ানক রেগে জবাব দিলো, “সেটা আমাকে জিজ্ঞেস করছেন কেন? আপনার যা খুশি করুন। আমি কেন তাকাবো আপনার দিকে? আমি আপনার কে? আমার কোনো কথাই আপনাকে রাখতে হবেনা। শার্ট গায়ে দিন পারলে ট্রেনের সিটের গদি খুলে গায়ে দিন।”
এমন রাগত কথাবার্তা শুনে মেঘালয়ের প্রচণ্ড হাসি পেলো। অনেক চেষ্টা করেও হাসি চেপে রাখতে পারলো না। মিশুর দিকে একটু ঝুঁকে এসে বললো, “তারমানে চাইছো আমি এভাবেই থাকি তাই তো?”
মিশু আবারো চেঁচাল, “বললাম না আপনার যা খুশি করুন। গায়ে দিবেন না খুলবেন সেটা আপনার ব্যাপার। পারলে কারো কাছে বস্তা চেয়ে নিয়ে গায়ে দিন।”
– “সিস্টেমে আমাকে খালি গায়ে থাকতে বলছো? যাতে বারবার তাকাতে পারো? আমি কি বুঝিনা তুমি আড়চোখে কতবার তাকাও।”
– “আমার বয়েই গেছে তাকাতে। গায়ে দিন, খুলুন আপনার ইচ্ছা। আমিতো কেউনা। আমার কথা কেন শুনবেন? শুনবেন ই না তো। পারলে গায়ে যেগুলা আছে সেগুলাও খুলে ফেলুন।”
মেঘালয় জিহ্বায় কামড় দিয়ে বললো, “সিরিয়াসলি?”
মিশু থতমত খেয়ে গেলো। মেঘালয় দুষ্টুমি ভরা চোখে চেয়ে আছে। একবার ওর দিকে তাকিয়েই হাসি পেয়ে গেলো মিশুর। ফিক করে হেসে ফেললো। মেঘালয় ওর হাত দুটো নিজের হাতের মুঠোয় চেপে ধরে বললো, “এত পিচ্চি কেন তুমি?”
– “আমি পিচ্চি? পিচ্চিকে বিয়ে করছেন কেন তাহলে?”
– “বিয়ে? ওহ হ্যা, দারুণ কথা মনে করিয়ে দিয়েছো তো। বিয়ে তো করতে হবে।”
কথাটা বলেই মিশুর হাত ছেড়ে দিয়ে পূর্বকে কল দিলো মেঘালয়। দুবার রিং হওয়ার পর পূর্ব রিসিভ করে বললো, “কোন শালা বে এত রাতে?”
– “তুই আমার কোন বোনকে বিয়ে করছিস যে শালা বলছিস?”
পূর্ব ঘুম জড়ানো গলায় বলল, “উম মেঘু শালা, তুই ব্যাটা। এত রাতে ঘুমাস না ক্রে? আমার মতন মিষ্টি কণ্ঠি পোলাদের ডিস্টার্ব করতাছোস হ্রামি।”
– “পূর্ব, একটু উঠে বস। দরকার ছাড়া এত রাতে কল দিইনি।”
– “মাত্র ঘুমালাম ব্যাটা। বল কি হইছে?”
– “আমি বিকেলে বিয়ে করবো।”
পূর্ব একলাফে বিছানার উপর উঠে বসলো। চোখ কচলাতে কচলাতে বললো, “কি বলছিস এসব?”
– “হুম, এমন ভাবে বিয়ের এরেঞ্জমেন্ট করবি যাতে কোনো পাবলিক টের না পায়। কাজীকে কারো বাসায় নিয়ে এসে বিয়ে পড়ানো যায়?”
পূর্ব একদম হতভম্ব। মেঘালয় এসব বলছে সেটা বিশ্বাস ই হচ্ছেনা ওর। রীতিমত অবাক হওয়ার পালা। মেঘালয় বললো, “পুরো দায়িত্বটা তোকে দিলাম, তুই সায়ান আর আরাফ মিলে যা ব্যবস্থা করার করবি। তোদের তিনজনের বাইরে কোনো কাকপক্ষীও যেন টের না পায়।”
-“সেটা নাহয় করলাম, কিন্তু দুম করেই বিয়ে করছিস কি জন্য? কোনো ঝামেলায় ফেঁসেছিস?”
– “না ভাই, প্রেমে পড়ছি। বিয়ে করে তারপর প্রেম করবো।”
– “আন্টি আংকেল?”
– “আমার বউটা নিতান্তই বাচ্চামেয়ে, বউটা আরেকটু বড় হলে আবার বিয়ে করবো।”
– “বাচ্চা হোক আর কাচ্চাই হোক, বিয়ের এক সপ্তাহের মধ্যে বড় হয়ে যাবে।”
বলেই পূর্ব হেসে উঠলো। মেঘালয় বলল, “ফাজলামি পরে করিস। আমি সিরিয়াস হয়ে যা বলি শোন।”
– “তুই কি আসলেই সিরিয়াস দোস্ত?”
– “হ্যা, মিশুর আর কেউ নাই এই দুনিয়ায়। ওর অসুস্থ মা গ্রামে থাকে, সেই মায়ের ভরণ পোষণের দায়িত্বও মেয়েটার কাঁধে। ওর কাঁধসহ পুরো শরীরের দায়িত্ব এখন আমি নিতে চাচ্ছি। বুঝাতে পারলাম?”
পূর্ব অবাক হয়ে বললো,”মিশু মানে? সুপার শপের মেয়েটা? ওরে একদিন রাত্রে তোর বাইকে দেখছিলাম না?”
– “হ্যা সেই পিচ্চিটা।”
– “সেদিন ই ডাউট হইছিলো, তলে তলে এতদূর? ওই ৩৮ কেজি ওজনের বাচ্চাটার দায়িত্ব নিতে কি লাগে?”
– “আমার বউকে বাচ্চা বলবি না, একমাত্র আমি বলার অধিকার রাখি। তোকে যা বলি, তাই কর।”
– “টেনশন নিস না, ট্রিট হিসেবে সীতাকুণ্ড ট্যুরের সমস্ত খরচ তোর।”
– “সীতাকুণ্ড যাবো না, নতুন বউ নিয়ে সাজেক যাবো। মেঘের দেশে ঘুরিয়ে নিয়ে আসি।”
– “তোর মত হাই লেভেলের মেঘ সাজেকে আছে? তোর পুরো শরীর ঘুরিয়ে আন,তাহলেই হয়ে যাবে।”
মেঘালয় হেসে বললো, “দহন আর বাড়াস না দোস্ত। আমি একা কেবিনে মিশুকে নিয়ে আছি, সে সামনে বসে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে।”
– “বাহ! আমার হিংসে হচ্ছে মেঘু শালা। দিলি আমার ঘুম হারাম করে।”
– “সকালে বাসায় গিয়ে আম্মুর কাছে টাকা নিবি,আইডি কার্ড নিবি। আমাদের গাড়িটা নিয়ে সোজা কমলাপুর স্টেশনে চলে আসবি। আম্মুকে যা বলার আমি বলে রাখবো।”
– “বাসরের ব্যবস্থা করবো না?”
– “কোথায় নিবি? যেই হোটেলেই যাবো, পাবলিক চিনবে। রিস্কি হয়ে যায় না?”
– “সায়ানদের বাসায় ম্যানেজ করি। আংকেল ইংল্যান্ড গেছে,আন্টি ট্রেনিং এ গেছে। বাসা একদম ফাঁকা। সারারাত আমরা গান বাজিয়ে পার্টি করবো, ড্রিংকস করে স্বর্গে চলে যাবো, আর তোরা বিছানাকে স্বর্গ বানিয়ে ফেলবি।”
মেঘালয় শব্দ করে হেসে উঠলো। হাসি থামিয়ে বললো, “সায়ানদের বাসাতেই বিয়ের ব্যবস্থা কর। রেজিস্ট্রি, কবুল দুটোই একসাথে।”
মেঘালয় আরো অনেক খুঁটিনাটি বিষয় পূর্বকে বুঝিয়ে বললো। খাবারের ব্যবস্থা করতে বললো, আর কিসব যেন বলে দিলো। মিশু সেসব মন দিয়ে শুনতেও পেলোনা। ও অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে মেঘালয়ের উন্মুক্ত বুকের দিকে। ঘন লোমে আবৃত বুকটা যেন পৃথিবীর সমস্ত সুখ নিয়ে বসে আছে, লোমগুলো নাভি পর্যন্ত বিস্তৃত হয়ে গেছে, ট্রেনের ভিতরে হলুদ আলোয় মেঘালয়ের শরীরটা অদ্ভুত সুন্দর লাগছে। মুখটায় রাজ্যের মায়া ভর করেছে,গলাটা দেখলেই বুকটা চিনচিন করে উঠে। মেঘালয়ের কপালের উপরে চুলের নিচের অংশটা, এই জায়গাটা এতবেশি সুন্দর লাগে যার তুলনা বোধহয় হয়ই না। একটা ছেলে কিভাবে এত সুন্দর হতে পারে! ভ্রু দুটো ঘন কালো, তার নিচে একজোড়া মায়াবী চোখ। ছেলেদের চোখ ও এত সুন্দর হয়! কত শত মেয়ে মেঘালয়ের এই সৌন্দর্য আর আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব দেখে ওর পিছনে লাইন লেগে থাকে। সেই ছেলেটা ওকে আজকেই বিয়ে করে তারপর প্রেম করতে চাইছে! এটা তো স্বপ্নের চেয়েও বেশি কিছু। সুখে মিশুর মরে যেতে ইচ্ছে করছে।
মেঘালয় কল কেটে দিয়ে খেয়াল করলো মিশু ওর গলার দিকে তাকিয়ে আছে। ও হেসে বললো, “কি দেখো মায়াবতী?”
মিশু চমকে উঠে বললো, “আপনার ফিগার টা অনেক আকর্ষণীয়।”
– “হা হা হা, হিংসে হয়?”
– “নাহ, সুখ হয়। আপনার কোমর আর হাতের মাসল ও অনেক সুন্দর, বিপজ্জনক রকমের সুন্দর।”
– “সুন্দর আবার বিপজ্জনক ও হয়?”
– “হুম হয়। ভয়ংকর সুন্দর।”
মেঘালয় এসে মিশুর পাশে বসে ওর হাতটা ধরে বললো, “আকর্ষণীয় ফিগার তোমার ও হবে। কয়েকটা ইয়োগা শিখিয়ে দিবো, রেগুলার প্রাক্টিস করবা। খাবারে একটু বৈচিত্রতা আনতে হবে,আর একটু যত্ন। তাহলেই দেখবা মিশুকে দেখলেই ছেলেরা কেমন ফিট খেয়ে পড়ে।”
– “উহু,আমি কাউকে ফিট খাওয়াতে চাইনা। আমার নায়িকা হওয়ার কোনো ইচ্ছে নেই। শুধু আপনার পাশে দাঁড়াতে পারলেই হলো। আচ্ছা, আপনার আশেপাশে এত সুন্দর সুন্দর মেয়ে, আমার চেয়েও সুন্দর অনেক মেয়ে আছে। আপনি কেন আমাকেই ভালোবাসলেন?”
– “সবাই তো আর মিশু না।”
– “মিশুর বুঝি আলাদা বৈশিষ্ট্য আছে?”
– “কোনো মেয়ে কি ফাজলামো করে হলেও বলবে, শার্ট খুলুন। আগে বুকটা দেখবো তারপর বিয়েতে রাজি হবো?”
বলেই হেসে উঠলো। মিশু লজ্জা পেয়ে মুচকি হাসলো। মেঘালয় আবারো বললো, “অবশ্য কোনো মেয়ে ঘাড়ে একটা চুম্বন প্রাপ্তির জন্য এত কান্নাকাটি ও করবে না।”
আবারো হেসে উঠলো মেঘালয়। মিশু লজ্জায় কুকড়ে যাওয়ার মত অবস্থা হলো। মাথা নিচু করে চেয়ে রইল মেঘালয়ের পায়ের পাতার দিকে। ছেলেটার পায়ের আঙুল গুলোও নজরকাড়া, বিয়ের পর রাতে যখন মেঘালয় ঘুমাবে, মিশু সারারাত জেগে বসে বসে ওর দিকে তাকিয়ে থাকবে। কাউকে হা করে দেখার মাঝেও যে এত সুখ বিরাজ করে এটা ওর জানা ছিলো না। যত দেখে, তত দেখতে ইচ্ছে করে।
মিশু জিজ্ঞেস করলো, “আচ্ছা আপনি বারবার বলছিলেন যেন পাবলিক টের না পায়, কেন বলছিলেন?”
মেঘালয় বললো, “পাগলী, আমার ক্যারিয়ার মাত্র শুরু হচ্ছে। এখনই যে পরিমাণ লোক আমাকে চেনে, আমি কাজি অফিসে বিয়ে করছি এটা একজন পাবলিক জানলেই হয়েছে। যদি কোনোভাবে প্রকাশ হয়, ক্যারিয়ারের বারোটা বেজে যাবে। কিন্তু আমি এটা এখন আমার ফ্যামিলিকেও জানাতে চাইছি না।”
মিশু জিজ্ঞেস করলো,”আমি শ্বশুরবাড়ি যাবো না?”
মেঘালয় বললো, “যাবা। কিন্তু বিয়ের কথাটা এখনি জানাবো না বাসায়। আগে ক্যারিয়ারটা দাঁড়িয়ে যাক, তোমার ক্যারিয়ার গুছিয়ে দেই,বাবার বিজনেসে হাত লাগাই, তারপর ধুমধাম করে সবাইকে জানিয়ে আমাদের বিয়ে হবে। প্রেস আসবে, টিভিতে দেখাবে, সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখাবে।”
মিশু মেঘালয়ের দিকে করুণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো, “আমার ভয় করছে। আপনি খুব বড় হয়ে গেলে আমাকে ছেড়ে চলে যান যদি?”
– “ছেড়ে কোথায় চলে যাবো? এই ভয়টা দূর করার জন্যই তো আইনের বাঁধনে বেঁধে ফেলছি। যাতে তোমার হারানোর ভয়টা কক্ষনো না হয়। ঘুড়ির নাটাইটা তোমার হাতে ধরা থাকবে, যখনি চলে যেতে চাইবো, সুতো ধরে টান দিবা।”
– “যদি সুতো ছিঁড়ে চলে যান?”
– “আমি শুধু তোমার আকাশেই উড়বো, সুতো ছিড়ে গেলেও তোমার আকাশের ই কোথাও না কোথাও থাকবো ঠিকই। জমিনে পড়লে তোমার বুকের জমিনেই পড়বো।”
মিশু মেঘালয়কে জাপটে ধরে বললো, “আমার ভয় করছে। খুব ভয় করছে।”
মেঘালয় হাতের বন্ধনে শক্ত করে বেঁধে ফেলে বললো, “সব ভয় দূর করে দিবো, তোমার শরীর থেকে সমস্ত বিষ শুষে নিবো।”
– “কিভাবে?”
মেঘালয় আবেগ মিশ্রিত কণ্ঠে ফিসফিস করে বললো, “যেটা আরেকবার করার জন্য তখন কান্নাকাটি করলে, ওরচেয়ে আরো গভীরভাবে।”
মিশু শিউড়ে উঠে ওর বুকে দুটো কিল বসিয়ে বললো, “খুব খারাপ একটা, আপনি খুব খুব খারাপ।”
– “সব ছেলেই বউয়ের কাছে খারাপ।”
মিশু আবেশে চোখ বুজে রইলো মেঘালয়ের উন্মুক্ত বুকে। ওর রোমশ বুকের ঘ্রাণ নিতে নিতে সুখে ভেসে যাচ্ছিলো একদম।

২৯.
বিয়ের আয়োজন দেখে মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে রইলো মিশু -মেঘালয়!
বসার ঘরে কিছু ফুল আর বেলুন দিয়ে সাজানো হয়েছে আর বাসর ঘরের সাজসজ্জা একদম অবাক হওয়ার মত! আরাফ ডেকোরেশনের কাজটা খুব ভালোই পারে। কিন্তু তাই বলে মাত্র এইটুকু সময়ের মধ্যে এত সুন্দর আয়োজন সত্যিই বিস্ময়কর।।
ভোর সাড়ে তিনটায় ফোন দিয়ে বলেছে,অথচ সকাল দশটার মধ্যেই একেবারে সকল আয়োজন করে ফেলেছে! ওর বন্ধুরা যে এতবেশি কাজের সেটা এতদিন জানা ছিলোনা মেঘালয়ের। কাজীকেও খবর দেয়া হয়েছে, খাবার দাবার, কয়েক প্রকার মিষ্টি, সবই আনা হয়ে গেছে। মেঘালয় বন্ধুদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জাপটে ধরলো ওদের।
মিশুর কাছে সবকিছু স্বপ্নের মত লাগছে। একজন সম্পূর্ণ অচেনা মানুষ অদ্ভুত ভাবে আপন হয়ে গেলো। রুমে বসে বসে এসব ভাবছিলো ও। সায়ান ও মিশুকে বাসায় রেখে মেঘালয় পূর্বকে নিয়ে বাইরে গেছে। একটা বিশেষ কাজে যাচ্ছি বলে বেড়িয়েছে মেঘালয়। বাইরে যাওয়ার আধ ঘন্টার মধ্যে দুইবার ফোন করে খোজ নিয়েছে মিশুর খারাপ লাগছে কিনা,টেনশন হচ্ছে কিনা? মিশু এখনো বিশ্বাস করতে পারছে না এটা কি করতে চলেছে ও? মেঘালয়ের সম্পর্কে যতটুকু জানে, একজন মানুষকে চেনার জন্য সেটাই যথেষ্ট। কিন্তু বিয়ে করার জন্য এতটুকু জানাই কি যথেষ্ট?
হঠাৎ ই চিন্তা হচ্ছে মিশুর। যে মানুষটা রাস্তায় পড়ে থাকা বস্তির ময়লা কাপড় পড়া একটা বাচ্চাকে কোলে নিয়ে বুকে জড়িয়ে ধরতে পারে, তার প্রতি ভরসা করা যায়। আর যেকোনো মেয়ের ভালোবাসা পাওয়ার মত যোগ্যতা মেঘালয়ের আছে। তবুও কেন যে এমন লাগছে বুঝতে পারছে না মিশু।
বাইরে এসে সায়ানের পাশে বসে পড়লো ও। সায়ান জিজ্ঞেস করলো, “ভাবি কিছু হইছে? আপসেট কেন?”
মিশু করুণ মুখে বললো, “সায়ান ভাইয়া, আমার না ভয় হচ্ছে খুব। এরকম পরিস্থিতিতে জীবনে প্রথমবার পড়লাম।”
– “বিয়ে তো জীবনে একবার ই করত হয়। এত টেনশনের কিছু নাই।”
– “আমার ব্যাপার টা আমি কাউকে বুঝাতে পারবো না ভাইয়া।”
মিশু মাথা নিচু করে ফেললো। সায়ান উঠে এসে মিশুর পাশে বসে বললো, “মেঘালয়ের মত ছেলে তুমি আজকাল খুঁজে পাবে না। ওর মত ফ্রেন্ড পেয়ে আমরা নিজেদের ভাগ্যবান মনে করি। সেজন্যই তো রাতে পূর্ব আমাকে কল দেয়ার পর ঘুম থেকে উঠে এতকিছুর ব্যবস্থা করে ফেলেছি। ভাবতে পারো তুমি? কেন ওর জন্য এতকিছু করলাম?”
মিশু মাথা ঝাঁকিয়ে বললো, “হুম। সবাই ওকে অনেক ভালোবাসেন আমি জানি।”
সায়ান বললো, “তার গুনেই ভালোবাসি। আমার ফ্রেন্ড বলে বলছি না, ওর একটা আদর্শ আছে।”
– “ও যদি বিয়ের পরে আমাকে ছেড়ে দেয়? আমি কই যাবো? আপনার কি মনেহয় সে আমাকে ছেড়ে দেবে?”
যাকে বিয়ে করতে চলেছে তার বন্ধুকে এরকম প্রশ্ন করছে সেটা আবার সায়ানের বাসাতেই বসে। সায়ানকে ও চেনেও না আগে থেকে। কতটা সরল মনের হলে এভাবে নিজের উদ্বিগ্নতা নিয়ে অন্যকে প্রশ্ন করা যায়?
মিশুর ব্যাপার টা বুঝতে পেরে সায়ান ওর একদম কাছাকাছি এসে সুন্দর ভাবে বললো, “শুনলাম ট্রেনে তুমি নিজেই ওকে কাছে টানছিলে, দেখো ওর জায়গায় অন্য কেউ থাকলে কিন্তু তোমাকে আর এভাবে দেখতে পারতাম না। আর সবচেয়ে বড় কথা, সে যদি তোমাকে ছাড়ার জন্যই বিয়ে করার চিন্তা ভাবনা করে থাকে, তাহলে তো বিয়েটাই করতো না। ট্রেনেই যা দরকার সেরে ফেলতো, তার জন্য অযথা এত টাকা নষ্ট করে বিয়ে করার প্রয়োজন পড়েনা। তোমার সাথে তো ওর রিলেশন ও নাই। তুমি চাপ দিচ্ছো জন্য ও বিয়ে করতেছে এমনটাও তো না। মেঘালয় আমাকে বললো, ও বিয়ে করে প্রেম করবে। আর তোমার ফুল্লি দায়িত্ব নিতে চাচ্ছে সেজন্যই বিয়ে করবে। আরো নাকি অনেক কারণ আছে।”
মিশু চোখ তুলে সায়ানের দিকে তাকিয়ে বললো, “আপনারা সবাই অনেক ভালো।”
– “থ্যাংকস মহারাণী, শুনে কৃতার্থ হলাম। আপনার টেনশন কমেছে?”
– “হ্যা কমেছে।”
এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো। সায়ান দরজা খোলার জন্য উঠে দাঁড়িয়ে আবার মিশুর দিকে ঝুঁকে বললো, “ভয় হওয়াটাই স্বাভাবিক। একজন সেলিব্রেটি দুম করেই বিয়ের প্রপোজাল দিলে আরো বেশি ভয় হওয়ার কথা। তুমি একটু সবকিছু কম বুঝো জন্য ভয়টা কম পাচ্ছো।”
– “আমার কি আরো বেশি ভয় পাওয়া উচিৎ? আপনি তো বললেন আপনার বন্ধু সবার চেয়ে আলাদা?”
– “হুম, তবে ও একদিন অনেক উপড়ে উঠে যাবে এটা বিশ্বাস করি। তখন কি হয় বলা যায় না। সো, সবচেয়ে বুদ্ধিমানের কাজ হবে নিজের ও একটা জায়গা পাকাপোক্ত করে নেয়া। সেলিব্রেটিদের জন্য ডিভোর্স দেয়া আর বিয়ে করা একটা কমন ব্যাপার।”
– “ও তো এরকম না। ও অনেক ভালো।”
সায়ান ফিসফিস করে বললো, “একটা সময় ওরকম হতেও পারে, কাজেই আমি বলবো তুমি যত দ্রুত পারো নিজের ক্যারিয়ার গুছাও। তুমি এখন ওকে যা বলবা, ও কিন্তু তাই শুনবে। তুমি যা হতে চাও, কিংবা যা করতে চাও ওর হাত ধরে দ্রুত সেখানে ওঠার চেষ্টা করো। দুজনেই সমানতালে ক্যারিয়ারে এগোতে থাকবা, সেটা হবে পৃথিবীর সবচেয়ে হ্যাপিয়েস্ট রিলেশনশিপ গুলার একটা। শুধুমাত্র রান্নাবান্না,প্রেম ভালোবাসা আর আদর সোহাগ নিয়ে পড়ে থেকো না।”
মিশু অবাক হয়ে বললো, “তাহলে? কি করবো?”
– “এখনো বুঝো নি আমার কথা? আচ্ছা আমি পরে সময় নিয়ে বিস্তারিত বুঝাবো তোমাকে। শুধু একটা কথা মাথায় রাখবা, কখনো কোনোসময়েই পুতুপুতু টাইপের হয়ে পড়বা না। যেমন আছো, সবসময় এরকম থাকবা। পুতুপুতু হলেই সমস্যা।”
– “পুতুপুতু আবার কি?”
– “এইযে সারাক্ষণ স্বামীর জন্য বসে থাকা, কান্নাকাটি করা, এটা করবা না। অধিকার খাটাবা, সবসময় আত্মমর্যাদা বোধ জাগ্রত রাখবা। সে যদি কখনো একবার অপমান করে, ক্ষমা না চাওয়া পর্যন্ত তাকে দ্বিতীয় অপমান করার সুযোগ দিবা না।”
মিশু অবাক হয়ে চেয়ে রইলো সায়ানের দিকে। কিছু কথা বুঝতে পেরেছে আর কিছু কথার আগাগোড়া কিছুই বুঝতে পারেনি। অনেক জ্ঞান দিলো ছেলেটা। নিজের বন্ধুর ব্যাপারে ভরসাও দিলো, আবার ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক ও করে দিলো। এইসব কথাবার্তা মিশুকে বলার কোনো দরকারই ওর ছিলোনা, মিশুকে অনেক সরল মনে হয়েছ তাই একটু ব্যাপার গুলো বলে দিলো ওকে। মেয়েটি এমনিতেই অসহায়, যদি দূর্ভাগ্যবশত কখনো মেঘালয় চলে যায়, তখন খুবই খারাপ অবস্থা হবে মেয়েটার। এটা ভেবেই কথাগুলো বললো সায়ান।
অনেক্ষণ থেকেই কলিং বেল বাজছে। সায়ান একটু এগিয়ে গিয়ে দরজার কাছ থেকে ফিরে এসে আবারো বললো, “আর ডক্টরের সাথে কথা হলে ভালো একটা প্লান করে ফেলবা। শ্বশুরবাড়িতে ওঠার আগে কোনোভাবেই কনসিভ করে ফেলো না যেন।”
সায়ান গিয়ে দরজা খুলে দিলো। মিশু অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে। আশেপাশের মানুষজন,পরিবেশ সবই অদ্ভুত লাগছে ওর কাছে। এত বেশি অদ্ভুত যে, বাস্তবে ঘটছে নাকি স্বপ্নে ঘটছে বুঝতে পারছে না।
মেঘালয়, পূর্ব ও আরাফ এসেছে। ওরা রুমে ঢুকেই সায়ানকে গালি দিতে লাগলো দেরিতে দরজা খোলার জন্য। পূর্ব ফাজলামো করে বললো, “দোস্ত তুমি মেঘালয়ের কচি বউটার সাথে কিছু করতেছিলা না তো?”
এসব নিয়ে ওদের কয়েকজনে মধ্যে বেশ হাসাহাসি হলো। মেঘালয় এসে মিশুর পাশে বসে বললো, “খারাপ লাগছিলো তাইনা?”
– “না, ভালো লাগছিলো।”
– “তাহলে আবার বাইরে যাই?”
মিশু মুখ বাঁকা করে বললো, “আপনার ইচ্ছে। সায়ান ভাইয়াকে রেখে যাবেন তাহলেই হবে।”
মেঘালয় সায়ানের দিকে তাকিয়ে বললো, “বন্ধুরে আমার বউ তোকে একা রেখে আবার বাইরে যেতে বলছে কেন? এবার তো মনেহচ্ছে পূর্ব’র কথাই ঠিক।”
সবাই আবারো হাসাহাসি শুরু করে দিলো। ছেলেরা যে কেন এত দুষ্টু হয় বুঝতে পারেনা মিশু। কয়েকজন ভালো বন্ধু একত্রিত হলেই শুধু অদ্ভুত রকমের ইয়ার্কি আর হাসাহাসি।
আরাফ এগিয়ে এসে একটা ছোট্ট লাগেজ মিশুর দিকে এগিয়ে দিলো। মিশু অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো, “কি এটা?”
মেঘালয় বললো, “বিয়ে করছি আর টুনিবউটা কনে সাজবে না তা কি করে হয়? দেখো তো পছন্দ হয় কিনা। সামান্য একটু কেনাকাটা করে আনলাম তোমার জন্য। দুটো দিন গেলে শপিং করিয়ে দিবো। মন খারাপ করোনা।”
মিশু একদম অবাক। ও বিস্ময় ভরা চোখে বললো, “আমিতো এইগুলাই আশা করিনি। শপিং করতে যাবেন আমাকে বলেন নি তো।”
– “সারপ্রাইজ”
– “আর কত সারপ্রাইজ দেবেন আমাকে?”
মেঘালয় হাসলো। পূর্ব ও আরাফ হা করে মিশুর দিকে চেয়ে আছে। ওরা এখন অপেক্ষা করছে মিশুর মুগ্ধ মুখটা দেখার জন্য। লাগেজ খুললেই শাড়ি দেখেই মেয়েটা খুশিতে কান্না করে ফেলবে এটা নিশ্চিত। ওর কল্পনার চেয়েও সুন্দর একটা শাড়ি কিনেছে মেঘালয়। আর টুকটাক কনে সাজের অনেক কিছুই কেনা হয়েছে। কিন্তু মিশুর আনন্দের কান্না আর কেউ না দেখুক, সেটাই চায় মেঘালয়। ও লাগেজটা রুমে দিয়ে এসে বললো, “ওখানে সবকিছু আছে। তুমি এখন গিয়ে একটু একা একাই সাজুগুজু করে নাও। আমরা এখানেই আছি। কিছু দরকার হলে ডেকো।”
মিশু মাথাটা নেড়ে রুমের দিকে পা বাড়ালো। রুমে গিয়ে দরজা বন্ধ করে লাগেজ খুলতে বসলো।
৩০.
ঘুম ভাংতেই বেশ অবাক হলো রৌদ্রময়ী। এখানে সে কিভাবে এলো! রাতে রাস্তায় হাটছিলো তারপর তো আর কিছুই মনে নেই। চোখ কচলে বিছানার উপর উঠে বসলো ও। রুমের দরজা লাগানো। রুমটা দেখে তো ছেলের রুম মনেহচ্ছে, কাপড়ের তাকে ছেলেদের কাপড় চোপড় রাখা। কিন্তু কে এখানে নিয়ে এলো সেটা বুঝতে পারছে না ও।
বিছানার উপরেই ঠায় বসে রইল। প্রচণ্ড খিদে পেয়েছে। রাতের কথা বারবার মনে পড়ে যাচ্ছে ওর। বাবা বোধহয় অনেক কষ্ট পেয়েছেন। একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো রোদ। একটু বাদেই দরজা খুলে নিখিল প্রবেশ করলো। ও রুমে এসে বিছানায় রোদকে বসে থাকতে দেখে একটুও অবাক হলোনা। ওর চেহারায় বিরক্তির ছাপ। সারারাত জেগে থাকার দরুন আর কান্না করায় চেহারা খারাপ হয়ে গেছে অনেক।
রোদ অবাক হয় বললো, “নিখিল, তুই!”
– “হুম আমি।”
বলেই দরজা টা লাগিয়ে দিলো।
রোদ একটু চমকালো। দরজা বন্ধ করছে কেন ও! নিখিল আর রোদ একই কলেজ থেকে এইচ.এস.সি পাশ করেছিলো। কলেজে মোটামুটি ভালো বন্ধুত্বই ছিলো, কিন্তু ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার পর থেকে আর তেমন দেখা হয়নি। আজকে নিখিল কোথ থেকে এলো? আর যশোরে সে কি করছে! এরকম অনেক প্রশ্ন মাথাচাড়া দিয়ে উঠলো রোদের মনে।
নিখিল এসে প্রচণ্ড রকম রাগ দেখিয়ে রোদকে বললো, “আমার লাইফটা এরকম করে দিলি ক্যান তুই? তোর বাপ মা তোকে এই শিক্ষা দিছে?”
ওর ভয়ংকর গলা শুনে অবাক হয়ে চেয়ে আছে রোদ। কিছুই বুঝতে পারছে না। নিখিলের লাইফ কি করে দিয়েছে সে সেটা তো বললো না,আর তার সাথে রোদের ই বা কি সম্পর্ক! কেমন অদ্ভুত লাগছে সবকিছু। নিখিল একদম রোদের মুখের কাছে এসে বললো, “ইচ্ছে করছে তোকে খুন করে বাইরে ফেলে দিয়ে আসি”
ওর রাগ দেখে ভয় পেয়ে গেলো রোদ। ভয়ে ভয়ে বললো, “আমি কি করেছি?”
– “দুপুরকে আমি আমার নিজের চেয়েও বেশি ভালোবাসছি। তুই ওরে কেড়ে নিলি ক্যান আমার কাছ থেকে?”
রোদ মাথা নিচু করে ফেললো। দুপুরের যে কারো সাথে সম্পর্ক ছিলো সেটা ও জানতো না। আর নিখিলের সাথেই ওর সম্পর্ক সেটা জানলে তো কখনোই ওকে এই অবস্থায় ফেলে আসতো না।
রোদ জিজ্ঞেস করলো, “দুপুরে সাথে অরণ্য’র বিয়ে হয়ে গেছে? ”
– “হ্যা। এখন আমি কি নিয়ে বাঁচি বলতো? কেন এরকম করলি তুই?”
উ আমি তোকে সব বলবো কথা দিচ্ছি।”
চলবে..রোদ বললো, “তোকে আমি সব বলবো। আর কাউকে বলতে পারবো না,তাই তোকেই বলবো। একটু সময় দে আমাকে প্লিজ। আমি তোকে সব বলবো কথা দিচ্ছি।”

চলবে,,,,

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *