অপ্রাপ্তবয়স্ক প্রেম _ Romantic sad love story

আমি সবে ভার্সিটি থেকে বের হলাম। বের হতেই দেখলাম নিশিতা দাঁড়িয়ে আছে৷ একদম গেটের কাছেই। তার চেহারা মলিন। রোদের আলো পড়ে ফর্সা চেহারাটা লাল হয়ে আছে৷ আমাকে দেখতেই তার লাল মুখটা কেমন জানি স্বাভাবিক হয়ে এলো৷ চোখমুখময় হঠাৎই একটা প্রশান্তি ভেসে উঠল তার৷ আমি দেখেও না দেখার ভান করলাম। কিছুদূর হেঁটে চলে এলাম। আমার সাথে বেরিয়ে এলো ইরা। সে নিশিতাকে দেখতেই তার দিকে তাকিয়ে থাকল কিছুক্ষণ। আমি দূর থেকে ইরাকে বললাম,
-কী হলো? দাঁড়িয়ে পড়লি যে?
ইরা আমার কাছে এসে বলল,
-ইনি ওই আপুটা না?
ঠিক তখনই নিশিতা এগিয়ে এলো। বলল,
-তানভীর?
ইরা তখন আমার দিকে তাকিয়ে আছে৷ আমি কিছুসময় চুপ থাকলাম। নিশিতার দিকে এগিয়ে গেলাম। বললাম,
-সমস্যা কী আপনার?
নিশিতা মলিন মুখে বলল,
-তানভীর? প্লীজ! আমার সাথে এভাবে বিহেভ করো না৷ আমার সহ্য হয় না মোটেও৷
আমি খানিকটা কড়া স্বরেই বললাম,
-তো কেমন বিহেভ করবো আমি? আপনি আমার থেকে কেমন বিহেভ আশা করছেন?
নিশিতার চোখে জল জমে গেল৷ বলল,
-প্লীজ, তুমি একটু শান্ত হও। আমার কথাটা একটু শুনো। আমার এক জায়গায় বসে কথা বলি। আমার অনেক কথা বলার আছে তোমাকে।
-আমার আপনার কোনো কথাই শুনতে ইচ্ছে হচ্ছে না নিশিতা৷ বরং বিরক্তি বাড়ছে। এক বছর আগে যা আপনি নিজেই শেষ করে দিয়েছেন আজ হঠাৎ কী এমন হলো যে আবার ফিরে আসতে চাইছেন? কী ভাবছেন আপনি? আমি কী খেলার পুতুল? যেভাবে ইচ্ছে সেভাবেই আমাকে নিয়ে খেলবেন? আমি পুরুষ বলে কি আমার কষ্ট হয় না? আমি কি কষ্ট পাইনি?
নিশিতা কেঁদে দিল ওখানে৷ বলল,
-আমিও তো কম কষ্ট পাইনি তানভীর। কষ্টে যে আমারো রাত কেটেছে তা তোমাকে কী করে বুঝাই আমি?
নিশিতা কাঁদতে থাকল সেখানে। আমি তাচ্ছিল্যের হাসি দিলাম। নিশিতাকে আরো কিছু কঠিন কথা বলার ইচ্ছে ছিল। কিন্তু ওর দিকে তাকিয়ে আর কিছু বলতে ইচ্ছে হলো না৷ উপরে উপরে এমন কঠোর অভিনয়টা করা যে কী ভীষণ কষ্টের তা কেবল আমিই জানি। আমি ইরার দিকে তাকিয়ে বললাম,
-বাসায় যাবি তুই?
ইরার মুখ শক্ত হয়ে আছে। বলল,
-যাবো তো। তবে…
-আমার সাথে গেলে আয়। না গেলে এখানে থাক।
আমি চলে আসতে চাইলাম। নিশিতা আমার হাত চেপে ধরল। বলল,
-তানভীর! তানভীর প্লীজ! শোনো একটু! একটু বুঝার চেষ্টা করো না প্লীজ৷
আমি তার হাত ছাড়িয়ে নিলাম। রাস্তার কাছে আসতেই নিশিতা চিৎকার দিয়ে ডাক দিল।
-তানভীর? এই তানভীর? তাকাও না এদিকে? একটু দেখো না আমায়?
চারপাশের লোকজন তাকিয়ে আছে ওরদিকে। ওকে দেখছে৷ আমি রিক্সা ডেকে রিক্সায় উঠে বসলাম। ইরা পাশে বসল। আমরা সেখান থেকে চলে এলাম। অথচ আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আমার হৃদয়টা আমার ভার্সিটির গেটের কাছে রেখে এসেছি৷ সেখানে একটা মেয়ে কান্না করছে৷ আমার হৃদয় তা দেখছে৷ মেয়েটার কান্না সহ্য হয় না একদম৷ কান্নার সময় এতো নিষ্পাপ লাগে! হঠাৎই ইরা বলে উঠল,
-তানভীর? এটা কি বেশি হয়ে যাচ্ছে না?
আমার মন তখন ভীষণ ভার৷ বললাম,
-কোনটা?
-তুই ভালো করেই জানিস আমি কোনটার কথা বলছি।
আমি কিছু বললাম না। চুপ করে থাকলাম। ইরা আবার বলল,
-কাল মেয়েটার সাথে শপিং মলে দেখা হলো। তুই কী করলি? তাকে যা নয় তা বলে চলে এলি। আজ সেই মেয়েটা সেই অপমানটুকু গিলে আবার তোর সামনে আসলো, তোকে চাইলো। তুই কী করলি? তাকে এভাবে এড়িয়ে গেলি? এসব করে কী প্রমাণ করতে চাস তুই? তুই জানিস একটা মেয়ে এভাবে জনবহুল জায়গায় কান্না করা, নিজের ভালোবাসার মানুষটাকে নিজের করে চাওয়া, চিৎকার চেঁচামেচি করা, এসব কতটা অপমানজনক তার জন্যে? কেন মেয়েটাকে এভাবে কষ্ট দিচ্ছিস? ভোগাচ্ছিস?
আমি আবারো তাচ্ছিল্যের স্বরে হাসলাম। বললাম,
-ইরা, পাক্কা দু’বছর প্রেম করেছি মেয়েটার সাথে। তাও এমন একটা সময়ে যে সময়টা ছিল আমার নিজেকে গড়ে তোলার সময়। তুই তো জানি ইন্টারের দু’বছর একজন ছাত্রের জন্যে কতোটা গুরুত্বপূর্ণ। এই এতো গুরুত্বপূর্ণ সময়ে আমরা দু’জন জমিয়ে প্রেম করেছি৷ স্বপ্ন দেখেছি নতুন দিনের৷ গল্প করেছি স্বপ্ন নিয়ে৷ অথচ ভার্সিটিতে চান্স পেতেই তার দাম বেড়ে গেল৷ অহংকারে ছোঁয়া যায় না তাকে। কথা তো দূরের কথা৷ এদিকে ভার্সিটিতে চান্স না পেয়ে এক প্রকার হতাশ আমি৷ ঠিক সে সময়টায় আমাকে ছেড়ে চলে যায় মেয়েটা৷ কষ্ট কী জিনিস সেই সময়টা তিল তিল করে বুঝিয়েছে। লুকিয়ে লুকিয়ে কান্না করতে শিখে গিয়েছে। ভেতরটা নরম রেখে উপরের চেহারাটা কঠিন করে রাখতে শিখে গিয়েছি আমি৷ কষ্ট আমাকে পাথর বানিয়ে দিয়েছিল এক সময়৷ আর আজ তুই এই মেয়েকে সামান্যতম কাঁদতে দেখে তুই এই কথা বলছিস? তাহলে আমার বুক ফাটা কান্না দেখলে কী বলবি তুই? আর অপমানের কথা বললি? আচ্ছা আজ যদি তার জায়গায় আমি থাকতাম কোনো মেয়ে কি আমাকে খুব সহজে ক্ষমা করে দিতো? বল দিতো?
আমার চোখে কোনা বেয়ে ক’ফোটা পানি গড়িয়ে পড়ল তখন৷ ইরা বলল,
-তানভীর, বাইরে নিজেকে যত শক্ত দেখাস তুই ভেতরে কিন্তু ততটা শক্ত নয়৷ এসব করে তো তুই নিজেকে আরো কষ্ট দিচ্ছিস! মেয়েটাকে এভাবে ফিরিয়ে দিতে ভালো লাগে তোর?
-ফিরিয়ে দিবো না কেন ইরা? কেন দিবো না? যে সময়টায় আমি দিনরাত তাকে ভেবে কষ্টে ভুগেছি সেই সময়টা সে তো অন্য কারো হাত ধরে মহানন্দে দিন পার করছিল।
-কীহ? নিশিতা আপু প্রেম করছিলেন?
আমার ভেতরটা যেন জ্বলে উঠল। বহু কষ্টে বললাম,
-হ্যাঁ৷
-তুই জানলি কীভাবে?
আমি খানিকটা চুপ থেকে বললাম,
-খবর যেভাবেই হোক পেয়েছি আমি। ওকে আমি এমনি এমনি ছেড়ে দেইনি। প্রতিটা দিন ওর ফিরে আসার অপেক্ষা করেছি। একটা ফোন কলের অপেক্ষায় ভোর হয়েছে বহুবার। কিন্তু যখন ওই খবরটা শুনলাম তখন সব আশা ছেড়ে দিলাম। ঠিক সেই ক্ষণ থেকে আজ পর্যন্ত তাকে ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করছি।
-চেষ্টা করছিস! পারছিস ভুলতে?
আমি খানিকটা চুপ থেকে বললাম,
-আমার অবুঝ অসময়ের নিষ্পাপ প্রেম, যেখানে বিন্দুমাত্র ছলনা ছিল না, তা কি চাইলেই ভুলে যাওয়া যায়?
-এখন কী? এভাবেই দিন কাটাবি? তোকে এমন মন মরা মানায় না তানভীর! তুই বড় প্রানবন্ত ছেলে৷ তোকে হাসিখুশিতেই বেশ লাগে। অথচ মাঝে মাঝে তোর এমন মন মরা চেহারা দেখতে হয় যে আমার মনটা ভীষণ খারাপ হয়ে যায়৷ নিশিতা আপুর জন্যেই তোর এতো মন খারাপ হয় তাই না?
আমি কিছু বললাম না। চুপ করে থাকলাম। ইরার বাসা চলে এলো৷ ও নেমে গেল। আমি তখন একা একা পুরনো দিন গুলো ভাবতে ভাবতে চলছিলাম নিজের গন্তব্যে। এ ফাঁকে চোখ যে ভিজে এলো টেরই পেলাম ন৷
.
রাত তখন সাড়ে দশটা বাজে৷ আমি বিছানায় শুয়েছিলাম। হঠাৎই ফোনটা বেজে উঠল৷ স্ক্রিনে অচেনা নাম্বার। ধরেই সালাম দিলাম। বললাম,
-কে বলছেন?
ওপাশ থেকে কোনো শব্দ এলো না প্রথমবারে৷ আমি আবার বললাম,
-কে বলছেন?
এরপরেও জবাব আসেনি৷ আমি খানিকটা বিরক্ত হই৷ ফোন কেটে দিবো ঠিক সে সময়ে একটা কাঁপা কাঁপা স্বর ভেসে আসে ও পাশ থেকে।
-আমি। নিশিতা!
আমি ফোনটাকে কানের কাছে ধরে রাখি তখন৷ বুকের ভেতরটা হঠাৎই কেমন জানি করে উঠে। চোখ দুটো হঠাৎ করেই ছলছল করে উঠে। বেদনারা প্রতিযোগিতা করে বাড়ে যেন৷ অভিমানের পাহাড় ভারী হয় আরো। আমি নিজেকে সামলিয়ে বললাম,
-কোন নিশিতা?
ও পাশ থেকে ভারী দীর্ঘশ্বাসের শব্দ ভেসে আসে৷ কেউ একজন খুব ধরে আসা গলায় বলে,
-তানভীর? আমি নিশিতা। তুমি আমাকে চিনতে পারছো না?
আমি স্তব্ধ হয়ে থাকি কিছুক্ষন। মেয়েটার ভেজা স্বরে অভ্যস্ত নই আমি। গলা কাঁপে আমার। বুকের ভেতরের এক বছরের পুরনো চিনচিনে ব্যাথাটা জেগে উঠে নতুন করে। কিছু অনুভূতি যেন পুরনো হয় না৷ আজীবন তরুনের মতো জাগ্রত থাকে৷ আমার ভেতরটা তখন কাঁদছে৷ অথচ উপরে আমি কড়া স্বরে বলি,
-আমার নাম্বার পেলেন কোথায় আপনি?
-তানভীর? তুমি কি এখনও এমন অচেনা মানুষের মতো কথা বলবে? এতো অচেনা আমি? এই নিশিতা?
-নিশিতা নামের একজনকে চিনতাম আগে। কিন্তু সে তো একসময় অচেনা বলে দূরদূর করে তাড়িয়ে দিল৷ এখন তাকে ভুলে যাওয়াটাই কি স্বাভাবিক নয়?
নিশিতা ফুপিয়ে উঠে ওপাশ থেকে৷ তার কান্নার শব্দ ভেসে আসে আমার কানে। বুকে লাগে একদম৷ সে ভেজা স্বরে বলে,
-দুইটা বছর একসাথে ছিলাম আমরা। আমাদের সেই সময় গুলোকে তুমি কি এতো সহজে ভুলে যাবে তানভীর?
আমি তাচ্ছিল্যের স্বরে হাসি। বলি,
-সেই দু’বছর আজ আমাকে নতুন করে প্রেম করতে দেয় না৷ খুব বাধা দেয়৷ ভয় হয়৷ যদি কেউ আবার ধোকা দেয়? তবে তো আমি মরেই যাবো। সেখানে তুমি তো বেশ ভালো আছো। ভালোই থেকেছো৷
-তানভীর? আমি জানি আমি ভুল করেছি। অন্যায় করেছি। আমাকে ক্ষমা করে দাও প্লীজ৷
আমি আবার সেই তাচ্ছিল্যের হাসি দেই৷ বলি,
-আজ এক বছর পর কীভাবে আপনার স্মরণ হলো, আপনি ভুল করেছেন? ওখানে কী আপনার প্রেমিকা আপনাকে ছেড়ে দিয়েছে?
নিশিতা কান্না করে ভীষণ। বলে,
-প্লীজ তানভীর। প্লীজ। এভাবে বলো না৷ আমি নিতে পারি না এসব৷
-আমি তো নিয়ে এসেছি৷ খুব সহজেই এসব সয়ে নিয়েছি আমি। এখনই সয়ে যাচ্ছি৷
-তানভীর! প্লীজ তানভীর। আমাকে আরেকটা সুযোগ দাও। আজকাল আমার একদমই ভালো লাগে না৷ দম বন্ধ লাগে আমার৷
আমি মৃদু হেসে বলি,
-আপনার সাথে এসব বিষয়ে কথা বলার কোনো ইচ্ছেই আমার নেই নিশিতা৷ আমি চাই, আপনি যেখানেই থাকুন, ভালো থাকুন৷ ভীষণ ভালো থাকুন। ফোন রাখলাম৷
এই বলে আমি কল কেটে দেই। ফোনের ফ্লাইট মুড অন করে বসে থাকি বিছানায়৷ মন তখন নানা রকম চিন্তায় ব্যস্ত৷ কে জানে, আজোও হয়তো ভোর হবে ঘুমহীনতায়৷ রাত ফুরাবে এক বুক দীর্ঘশ্বাস নিয়ে।
.
পরের দিন ভার্সিটিতে আসতেই দেখলাম নিশিতা গেটের কাছে দাঁড়িয়ে আছে৷ আমাকে দেখতেই সে পথ আগলে।দাঁড়ালো। বলল,
-তোমাকে আজ আমার কথা শুনতেই হবে৷ না শুনে কোথায় যেতে পারবে না৷
আমি বললাম,
-আমার ক্লাস আছে। অযথা সময় নষ্ট করবেন না প্লীজ৷
মেয়েটার মুখ মলিন হয়ে গেল৷ বলল,
-ক্লাস করে এসো। আমি এখানে অপেক্ষা করছি৷
-আমার জন্যে কারো অপেক্ষা করতে হবে না।
-আমি অপেক্ষা করবো৷
-কথা বাড়াবেন না প্লীজ৷ চলে যান এখান থেকে।
-যাবো না৷ আমি এখানেই দাঁড়িয়ে আছি। এখানেই দাঁড়িয়ে থাকবো৷
আমি আর কিছুই বললাম না। চলে এলাম সেখান থেকে। আসতেই দেখা হলো ইরার সাথে। যেন আমার অপেক্ষাই করছিল সে। আমাকে দেখতেই বলল,
-উনাকে দেখেছিস? আজও এসেছে।
আমি কিছু বললাম না৷ চুপ করে থাকলাম৷ ইরা আমাকে নিয়ে ঘাসের উপর বসল। বললাম,
-ক্লাস করবি না?
-ওসব ক্লাস ফ্লাস বাদ দে। শোন, তোকে একটা কথা বলার আছে আমার।
আমি বললাম,
-কী কথা বল৷
ইরা খানিকটা চুপ থাকল৷ তারপর বলল,
-নিশিতা আপুকে আমিই ডেকেছিলাম এখানে।
আমার প্রথমে মনে হলো আমি ভুল শুনছি। একদমই ভুল৷ আমি বললাম,
-কী বললি? আবার বল?
-প্লীজ রাগিস না। প্লীজ। তোর ভালোর জন্যেই উনাকে ডেকেছি উনাকে।
আমি কিছু বলতে পারলাম না। চুপ করে থাকলাম কিছুক্ষন। তারপর বললাম,
-ইরা তুই এটা কেন করলি? তোকে তো আমার ভালো বন্ধু ভেবেছিলাম।
ইরা কঠিন গলায় বলল,
-চুপ। একদম চুপ৷ চুপ করে থাকবি তুই৷ কোনো কথা বলবি না৷ আমি তোর ভালো বন্ধু বলেই এমন করেছি৷
আমি কিছু বলতে পারলাম না। চুপ করে থাকলাম কেবল৷ ইরা বলল,
-তুই কি জানিস তুই কতবড় ভুলে মধ্যে আছিস?
-ভুল? কিসের ভুল?
-নিশিতা আপু এখনো তুই ছাড়া অন্য কারো সাথে প্রেম করেনি। তোকে যে তথ্যটা দিয়েছে ভুল তথ্য দিয়েছে।
-মানে? কী বলছিস এসব?
-হ্যাঁ৷ সত্যই বলেছি। বরং বেচারি সেই সময়টায় তোর ভালোর জন্যেই তোর সাথে ঠিকভাবে কন্টাক্ট করেনি৷ যাতে তুই ভালো করে পড়ে দ্বিতীয়বার আবার কোনো ভালো ভার্সিটিতে চান্স পাস৷ কারণ নিশিতা আপু জানে, তার সাথে যদি তুই ঠিকভাবে কন্টাক্টে থাকতি তাহলে তোর পড়াশোনাটা ঠিক ভাবে হতো না৷ তাইই উনি তোর সাথে যোগাযোগ কমিয়ে দেন৷ আর প্রেমের ব্যাপারটা বলতে উনার পেছনে এক সিনিয়র ভাই পড়েছিলেন কিছুদিন৷ জাস্ট এটাই৷ আপু ওই বড় ভাইকেও বুঝিয়ে বললেও তিনি মানতে নারাজ ছিলেন৷ এই ব্যাপারে উনাকে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। ছেলেটা নাকি রাত বিরাতে ফোন দিয়ে বিরক্ত করতো৷ দেখা হলেই কফির অর্ডার করতো৷ সারাটা দিন আপুর পেছনে লেগে থাকতো৷ বাধ্য হয়ে আপু দুদিন কফি খেয়েছে উনার সাথে। জাস্ট এতটুকুই। উনাদের মাঝে কোনো প্রেম হয়নি৷ তুই যা জানিস তা সম্পূর্ণ ভুল৷ কিংবা বলতে পারিস যে তোকে তথ্য দিল ভুল তথ্য দিয়েছে৷
আমি যেন বোকা বনে গেলাম৷ কথা গুলো একদম মাথার উপর দিয়ে গেল। বিশ্বাস হচ্ছিল না। আমি বললাম,
-ইরা, তুই এতো সব কোত্থেকে জানলি? কে বলল? আর তুই কীভাবে বলছিস ও আর প্রেম করেনি। আমি এই কথা কীভাবে বিশ্বাস করবো?
-আমার উপর তোর বিশ্বাস নেই?
-ছিল আগে। এখন আর নেই।
কথাটা বলেই মনে হলো এটা আমি ঠিক করিনি। ইরাকে এই কথাটা বলা ঠিক হয়নি৷ আমিও বা কী করব। মাথাটা কেমন জানি আউলিয়ে গিয়েছে। ইরা আমার দিকে তাকিয়ে থাকল কিছু সময়। কী বলবে যেন ভেবে পাচ্ছিল না৷ তার মুখটা শক্ত হয়ে এলো৷ আমি বললাম,
-সরি সরি, রাগ করিস না প্লীজ৷ কী না কি বলছি মাথাটা একদমই ঠিক নেই।
-সত্যি, অন্য কেউ হলে এই মূহুর্তে আমি তাকে খুন করে ফেলতাম। তুই বলে ক্ষমা পাচ্ছিস।
আমি হাসলাম খানিক৷ বললাম,
-বল না তুই ওর খোঁজ কোত্থেকে পেলি?
ইরা মুচকি হাসি দিল। বলল,
-খোঁজটা আমিই লাগিয়েছি আসলে৷ তোর এমন মন মরা ভাব আমার ভালো লাগে নাই। তাই খোঁজ লাগালাম এবং জানতে পারলাম যে উনার সাথেই আমার এক পরিচিত আপু পড়েন৷ ভাগ্যের ব্যাপার কি জানিস, নিশিতা আপু আর আমার ওই আপু দু’জনেই দুজনের খুব ভালো বন্ধু৷ আমার ওই আপুটাই বলল যে, নিশিতা আপু নাকি ফার্স্ট সেমিস্টারে রেজাল্ট খারাপ করেছে। উনি নাকি খাওয়া দাওয়াও ঠিক ভাবে করতেন না৷ মন মরা করে থাকতেন৷ খুব উদাসী হয়ে গিয়েছিলেন৷ বড় ভাই যে ঘুরল নিশিতা আপুর পেছনে এই খবরটাও আমাকে আমার আপুটা দিলো। আপু এও বললেন যে, নিশিতা আপু নাকি প্রায় রাতেই একা একা ফুঁপিয়ে কান্না করে৷
আমি বললাম,
-তখন সে আমাকে বলেনি কেন? একটা ফোন দিলেই তো পারতো!
-লজ্জায় বলেনি৷ সেকেন্ড টাইমে তুই খুব ভালো একটা সাব্জেক্ট পেয়ে গেলি৷ উনি লজ্জায় আর ফোন করেন নি, যদি তুই এই ভাবিস যে এখন ভালো সাব্জেক্ট পাওয়ায় ফিরে আসতে চাইছেন উনি। প্রধানত এই ভয়েই তিনি তোকে ফোন দেয়নি। পরবর্তীতে নিজেকে আর ধরে না রাখতে পেরে ফোন দিয়েছিল কয়েকবার৷ তোর নাম্বার বন্ধ তখন৷ সীম পাল্টেছিস৷
আমি মলিন মুখে বললাম,
-ইশ! যদি আমি তখন সীমটা না পাল্টাতাম তাহলে আজ এতোটা দিন দু’প্রান্তে দুজনকে এতো কষ্ট পেতে হতো না৷ কিন্তু ওর কাছে আমার বন্ধুদের নাম্বার ছিল তো!
ইরা দীর্ঘশ্বাস ফেলল। বলল,
-কামরুল নামে তোর কোনো বন্ধু আছে?
-হ্যাঁ আছে একজন৷ খুব কাছের বন্ধু আমার।
-তাকে ফোন দিয়েছিল নিশিতা আপু৷ বাট…
-বাট? বাট কী?
-তোর ওই বন্ধু নাকি খুব বাজে বিহেভ করে উনার সাথে। বলে নাকি ভালো সাবজেক্ট শুনেই ফিরে আসতে চাইছেন উনি৷ এরপরেও যা নয় তা বলেন উনাকে। এই কথায় আপু আরো ভীষণ হার্ট হয়ে যায়৷ পরে আর এ ব্যাপারে ট্রাই করেনি৷ সেদিন আমি গিয়ে উনাকে অনেক বুঝালাম৷ বললাম, তানভীরও ভালো নেই। আপনি প্লীজ এসে একবার কথা বলে যান৷ বেচারি সে সুদূর থেকে এলো বটে, অপমান ছাড়া আর কিছুই পেল না৷
ইরার মুখ মলিন হলো। আমি তখন দ্রুত ফোন বের করে কামরুলকে দেই। কামরুল ফোন ধরতেই বলি,
-দোস্ত,তোকে নিশিতা ফোন করেছিল?
ও খানিকটা অবাক হয়ে বলল,
-আজ হঠাৎ ওই ফালতু মেয়ের কথা জিজ্ঞেস করছিস…
-বেশি কথা বলিস না৷ দিয়েছে কি না বল।
-হ্যাঁ দিয়েছে।
আমি চট করেই ফোনটা কেটে দিলাম৷ ঠিক তখনই আকাশ ডেকে উঠল। বিজলি চমকালো৷ নীল আকাশ কতোক্ষনে কালো হয়ে গেল টেরই পেলাম না৷ ইরাকে বললাম,
-ইরা? আমার এখন কী করা উচিৎ?
-কী করা উচিৎ মানে? আরে গাধা, দৌড়ে যা। মানুষটা অপেক্ষা করছে তোর জন্যে৷
-আমার লজ্জা লাগছে৷ এই দুদিন যা নয় তা বিহেভ করলাম তার সাথে৷
তখন কয়েক ফোটা বৃষ্টি যেন পড়তে শুরু করেছিল৷ ইরা আমার দিকে তাকিয়ে হাসল। বলল,
-তানভীর? তোর মুখটা আজ অন্য রকম সুন্দর লাগছে৷ কী একটা প্রশান্তি যেন লেপ্টে আছে তোর মুখ জুড়ে।
-এর জন্যে তুই দায়ি ইরা। একমাত্র তুই’ই দায়ি৷ তুই জানিস না তুই আমাকে কী দিয়েছিস৷ আমাকে নতুন করে বাঁচার পথ করে দিয়েছিস তুই৷
ইরা হাসল। বলল,
-যা এখন৷ ট্রিটটা পরে নিমু।
আমি হাসলাম৷ উঠে দাঁড়ালাম সেখান থেকে। ব্যাগটা ওরদিকে ছুড়ে মেরে বললাম,
-ক্লাসে চলে যা বৃষ্টি আসছে।
ইরা ক্লাসে চলে গেল না। চুপচাপ বসে থাকল। আমি ধীর পাঁয়ে এগোলাম গেটের দিকে। ঠিক গেটের সামনে একটা মেয়ে দাঁড়িয়ে আছে৷ আমার জন্যে দাঁড়িয়ে আছে৷ আমার জন্যে কান্না করছে সে। চিৎকার চেঁচামেচি করেছে। আমি অনেকটা পৌঁছে গেলাম। ঠিক তখনই ঝুম বৃষ্টি শুরু হলো। আমি গেট দিয়ে বের হতেই দেখলাম নিশিতা গেটের সাথে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে৷ চোখ দুটো বন্ধ তার। মুখটা আকাশের দিকে করা। তার ফর্সা চেহারায় বৃষ্টির ফোঁটা পড়ছে। চোখের গাঢ় কাজল ধীরে ধীরে লেপ্টে গেল। মুখটা কেমন লালছে হয়ে এলো। তাকে তখন অনিন্দ্য সুন্দরী লাগছিল। কাজল লেপ্টে গেলে কোনো মেয়েকে এতোটা সুন্দরী লাগে তা আমার জানা ছিল না৷ আমি তার সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম খুব চুপিচুপি। কেবল দাঁড়িয়েই থাকলাম আমি। মেয়েটা তখন প্রায় ভিজে গিয়েছে। আমি তাকিয়ে থাকলাম তার বন্ধ চোখ জোড়ার দিকে। চোখ খুলতেই মেয়েটার জাদু শুরু হবে৷ শুরু হবে মুগ্ধতার গল্প। আমি তাকিয়ে থাকলাম। হঠাৎই নিশিতা যেন আমার উপস্থিতি টের পেল। দু’চোখ মেলে আমাকে দেখতেই স্তব্ধ হয়ে গেল সে। চোখ তার ভীষণ নীরবতা। কী ভীষণ মায়া লেপ্টে আছে সেখানে। নিশিতার চোখে জল জমল। দ্রুত গড়িয়ে পড়ল যেন। ভেজা স্বরে বলল,
-ইরা মেয়েটা সব বলে দিয়েছে তাই না?
আমার গলাটা ধরে এলো। বললাম,
-এই কথা গুলো কি আরো আগে বলা যেত না? একটা বছর কী প্রচণ্ড কষ্টে কাটালাম তা কি তুমি জানো?
এই বলে খানিকটা এগিয়ে এলাম নিশিতার দিকে। নিশিতা বলল,
-তানভীর, খানিকটা অহংকার বোধ আমার ছিল। এই কথাটা অস্বীকার করব না আমি। এই অহংকারের চোটেই কিছুদিন ভাব নিলাম আমি। ইচ্ছে করেই কথা বলিনি তোমার সাথে। কিন্তু জানো? এরপর একদিন হঠাৎই আমার মনে হলো আমার কিছু একটা নেই৷ আমি কেউ একজনকে ভীষণ মিস করছি। ভীষণ রকম ভাবে৷ হঠাৎই যেন তোমার অপূর্ণতায় ভুগতে থাকলাম। মনে হলো তুমি ছাড়া আমি ভালো নেই৷ একদমই নেই। ভাবলাম তোমাকে গিয়ে সারপ্রাইজ দেই। গিয়েই জড়িয়ে ধরব তোমায়। কিন্তু পড়াশোনার ক্ষতি হবে ভেবে যাইনি৷ কারণ আমি জানতাম তুমি সেকেন্ড টাইম ভার্সিটি এডমিশনের জন্যে খুব করে পড়ছিলে। তাই আর বাধা হয়নি। এরপর তো সবা জানোই৷ কারণে কিংবা অকারণে, ভুল বুঝাবুঝির দরুন আমরা আজ কতো দূরে চলে গিয়েছি তানভীর! এই দূরে যাওয়ার ব্যাথাটা যে কী ভীষণ পীড়া দিত আমার তা তোমাকে বলে বোঝাতে পারবো না আমি। মোটেও পারবো না৷
নিশিতা কেঁদে দিলো৷ আমি আরো খানিক এগিয়ে গেলাম। ভেজা স্বরে অনেকটা লজ্জা মাথা নিচু করে বললাম,
-আমাকে ক্ষমা করে দাও নিশিতা। এ দু’দিনে খুব বাজে বিহেভ করে ফেলেছি তাই না?
নিশিতা ফুপিয়ে উঠল। কাঁদতে কাঁদতে বলল,
-প্রিয় মানুষের খানিকটা অবহেলা একদমই সয়ে নেওয়া যায় না। বুক ফেটে চিৎকার আসে তখন। কী যে কষ্ট হয়!
নিশিত কাঁদতে থাকল। আমি ওর কাছে চলে গেলাম একদম। আমায় কাছে পেতেই সে হঠাৎ পাগলের মতো করে জড়িয়ে ধরল আমায়৷ গা কাঁপিয়ে কাঁদতে থাকল কেবল। বলল,
-এই একটা আলিঙ্গনের জন্যে আজ এতোটা দিন কতোটা অপেক্ষায় ছিলাম তা যদি তুমি জানতে তানভীর তবে আমার সাথে এমন ব্যবহার করতে না৷
নিশিতা কাঁদতেই থাকল৷ আমি বললাম,
-সরি নিশি৷ খুব সরি আমি। এর জন্যে যা শাস্তি দাও তা-ই মাথা পেতে নিবো আমি।
সে আমায় জড়িয়ে ধরে ভেজা স্বরে বলল,
-যাও। দিলাম শাস্তি। আজীবন আমার কাছে থাকবে। আমাকে নিয়ে ভাববে সেই আগের মতো করে। মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে দেখবে আমায়। তুমি কেবল আমার হবে। কেবল আমার।
আমি ভেজা চোখে হাসলাম। বললাম,
-শাস্তি মেনে নিলাম আমি।
নিশিতা যেন আমাকে আরেকটু শক্ত করে আঁকড়ে ধরল। এমন লোকালয়ে আমরা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে থাকলাম৷ উৎসুক জনতা তা দেখল কেবল। দেখুক তারা৷ আমার কী! আমি তো আমার পৃথিবীটা পেয়ে গেছি৷ এইই অনেক। প্রশান্তি পাওয়া যে কতো বড় পাওয়া তা কেবল যে পায় সে-ই বুঝে।
.
সমাপ্ত
গল্পঃ অপ্রাপ্তবয়স্ক প্রেম
.
ভুলত্রুটি মার্জনীয়
-তাসফি আহমেদ

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *