অবুঝ বউ part-13

অবুঝ বউ
,
Sûmøñ Ãl-Fãrâbî
.
১৩ তম পর্ব
,
আলতো করে পুতুলের কপালে একটা চুমু দিলাম ,,,
পুতুল আমার দিকে তাকালো ,,, তাকিয়ে আরো শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো ,,,
আব্বু ফোন করলো ,,,
“””” হ্যা আব্বু ,,
“”” শোন আমার আজ বাসায় আসবো না,,,,,
“”” কেন,,,,
“”” তোর হাসিব আংকেল এর বাসায় আজ থাকবো,,,
“”” ওহহ আচ্ছা ,,,
“”” তোরা শুধু নিজেদের খাবার রান্না করে খেয়ে নিস,,,
“”” আচ্ছা ,,,

ফোন কেটে দিলাম ,,, পুতুল তখন ও আমার বুকে মাথা রেখে শুয়ে আমায় দেখছে ,,,,

“”” আব্বু কি বললো,,,,
“”” ওনারা আজ আসবে না ,,,
“”” কেন,,,,
“”” আব্বুর বন্ধুর বাসায় থাকবে ,,,
“”” ওহহহ,,,, রাতে কি খাবো,,,
“”” বাইরে থেকে খাবার নিয়ে আসছি আমি একটু পরে ,,,
“”” আমি একাই বাসায় থাকবো না ,,,
“”” তো কি করবেন ,,,
“”” আমিও যাবো ,,,
“”” আপনার যে পা কেটে গেছে সেটা মনে আছে ,,,
“”” তাতে কি ,,, তুমি কোলে করে নিয়ে যাবে ,,,
“”” আমার কি আর কোনো কাজ নেই ,,,,
“”” কান্না করবো কিন্তু ,,,,
“”” পিচ্চি গুলোর মতো কথায় কথায় কান্না করবো কান্না করবো করো কেন ,,,,
“”” তুমি আবার আমায় পিচ্চি বললে,,,,
“”” কই না তো,,,, কখন কোথায় কিভাবে ,,,,
“”” আচ্ছা,,, আমি ও যাবো ,,,
“”” না,,, তুমি গেমস খেলো আমি গিয়ে নিয়ে আসছি ,,,
“”” না,,, আমিও যাবো ,,,
“”” চলো রান্না ঘরে চলো,,, রান্না করবো,,,,
“”” আচ্ছা চলো,,, আমি রান্না করবো কিন্তু ,,,,
“”” দরকার নেই ,,, একবার রান্না করতে গিয়ে এই অবস্থা ,,, পরের বার না জানি আরও কি হয়,,,,
“”” আমি কি করছি ,,, তুমি তো পিছনে থেকে এসে ,,,,
“”” থাক আর বলতে হবে না ,,, এখন আমার একার দোষ,,,, আপনি তো কিছু করেন নি,,,,
“”” আমি আবার কি করলাম ,,,,
“”” বাঁধা দিলেই তো হতো,,,,,
“”” আমার স্বামী আমায় আদর করছে আমি কেন বাঁধা দিতে যাবো,,, এতে তো আমার ক্ষতি ,,,,
“”” বাধা না দিয়েও ক্ষতি টা আপনারই হয়েছে ম্যাম,,,,
“”” আচ্ছা ,,, এখন ঝগড়া না করে চলো রান্না ঘরে চলো ,,,
“”” আসো,,,
“”” আমায় নিয়ে যাও, ,
“”” হেটে আসো,,,
“”” পারবো না ,, আমায় কোলে করে নিয়ে যাবে ,,,

পুতুল কে কোলে করে রান্না ঘরে যাচ্ছি ,,, পুতুল আমার গলা জড়িয়ে আছে আর আমার মুখে চুমু দিচ্ছে ,,,,

“”” শুরু তো তুমি করতিছো,,,
“”” আমি আমার স্বামী আদর করবো না ,,,
“”” তোমায় রান্না ঘরে নিয়ে গেলে রান্না করা হবে না ,,, সিয়র আবার কারো ক্ষতি হবে ,,,,
“”” না,, কিছু হবে না ,, আমি তোমার পিছনে বসে থাকবো,,,
“”” দরকার নেই ,,,, আপনি সোফায় বসে টিভি দেখেন,,,,
“”” না,,,, আমি রান্না ঘরে যাবো,,,

জোরে একটা ধমক দিলাম ,,,
পুতুল পুরো চুপ হয়ে গেল ,,, শুধু টলটল চোখে আমার দিকে তাকিয়ে আছে ,,,, কিন্তু কিছু বলার সাহস পাচ্ছে না ,,,,
এই মনে হচ্ছে এখনি বৃষ্টি নামবে ,,, আকাশ ঘন কালো মেঘে ঢেকে গেছে ,,,,
এই বুঝি কয়েক ফোটা মুক্ত ঝাড়তে শুরু করে,,,,

পুতুলের মুখের দিকে তাকিয়ে আমার হাসি পাচ্ছে ,,,
একটু ধমক দিলে কেউ এভাবে ভয় পায় ,,,,
পুতুলের পাশে বসলাম ,,,,
চোখের টলমল পানি মুছে দিলাম ,,,
এটা কি হলো,,,
চোখের পানি মুছে দেওয়া পর তো কান্না শুরু হয়ে গেল ,,,,

“””” এই পাগলী কান্না করছো কেন,,,,,
“”” তুমি পঁচা তুমি আমায় ধমক দাও,,,,,
“”” আচ্ছা বাবা,, আর হবে না ,,,, এবার কান্না থামাও,,,,
“”” সবসময় তুমি এমন বলো কিন্তু পরে আবার ভুলে যাও,,,
“”” এই একটু ধমকে কেউ ভয় পায়,,,
“”” তুমি জানো না আমি ভয় পাই,,,,,
“”” জানি তো তুমি পিচ্চি ,,,,
“”” আমি মোটেই পিচ্চি না,,,,
“”” আচ্ছা বাবা তুমি পিচ্চি না,,, তুমি তিন বাচ্চার আম্মু ,,, এখন বসে বসে টিভি দেখো,,,,
“”” আচ্ছা আমাদের বেবি হবে কবে,,,

এই রে কথাটা বলে বোধ হয় ফেঁসে গেলাম ,,,

“”” আচ্ছা তুমি থাকো আমি রান্না করছি ,,

পুতুলের কপালে একটা চুমু দিয়ে আমি রান্না ঘরের দিকে গেলাম

পুতুল পিছনে থেকে বেশ কয়েক বার ডাকলো,,, কিন্তু পিছনে তাকাই নি ,,,


আমি রান্না করছি কিন্তু পুতুল টিভি দেখছে না,,, টিভি অন করাই আছে আর উনি রান্না ঘরের দিকে তাকিয়ে আছে ,,,,
মনে হচ্ছে রান্না ঘরে টম জেরি হচ্ছে ,,,


রান্না শেষ করে পুতুল কে তুলে খাওয়াই দিচ্ছি ,,,

“”” তুমি খাচ্ছো না কেন,,,,
“”” তুমি খাও আমি একটু পরে খাবো,,,
“”” না,,, একসাথে খাবো,,, আমি তোমায় খাওয়াই দিচ্ছি
“” আচ্ছা ,,,


খাওয়া শেষ করে আবার পুতুল কে কোলে করে রুমে নিয়ে আসলাম,,,,

“””””পায়ের ব্যাথ্যা কমেছে ,,,
“”””” হুম,,,, তবে একটু আছে ,,,
“”” ঔষধ টা খেয়ে নাও ,,, ঐ ব্যাথ্যাও আর থাকবে না ,,,
“”” আচ্ছা ,,,,
,,,,

পরের দিন সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে রেডি হচ্ছি অফিস যাওয়ার জন্য ,,, ।
পুতুল এখনো ঘুমাচ্ছে ,,, তাই ওকে ডাকলাম না ,,,
কিন্তু সমস্যা হচ্ছে টাই পড়তে পারছি না ,,,
পুতুল কে কি ডাকবো ,,,,
না থাক,, এতো সুন্দর ঘুম নষ্ট না করি,,,
মেয়েটাকে কি মায়াবী লাগছে ,,,
ইচ্ছে করছে অফিস না গিয়ে বসে বসে শুধু ওকে দেখি,,,


অফিসের সময় হয়ে যাচ্ছে ,,,
বাসায় ও তো কেউ নেই ,,,
হঠাৎ করে যদি জেগে যায় তবে তো কান্না করবে ,,,,
আম্মু কে ফোন দিয়ে তাড়াতাড়ি আসতে বললাম ,,,
আমি রুমে থেকে বের হচ্ছি,,,

“”” এই কই যাচ্ছো,,,,
এই যা এই অসময়ে ঘুম টা ভাঙা লাগে ,,,
“””” অফিস যাচ্ছি ,,,
“””” ওহহহ,,, আম্মু আসছে ,,,
“”” না,,, একটু পরে আসবে ,,,,
“”” তুমি আমায় একা রেখে যাচ্ছো
আবার কান্না শুরু ,,,, কি মেয়ের পাল্লায় পরলাম রে বাবা,, কথায় কথায় শুধু কান্না করে ,,,
“”” তুমি কান্না করছো কেন,,,,
“”” আমি একা বাসায় থাকতে পারবো না ,,,
“”” তাহলে ,,,
“”” তুমি আমার সাথে বাসায় থাকো,,,
“”” পাগল হলে নাকি,, অফিসে না গেলে চাকরি থাকবে না,,,,
“”” তাহলে আমায় তোমার অফিসে নিয়ে যাও,,,
“”” কি,,,, তুমি অফিসে গিয়ে কি করবে ,,,,
“”” তোমার সাথে থাকবো,,,,
“””” না,,, তুমি বাসায় থাকো,,,,
“”” কান্না করবো কিন্তু ,,,
“”” করো কান্না ,, আমি গেলাম ,,,

আমি রুম থেকে বের হয়ে আসলাম,,, হঠাৎ চিৎকার করার শব্দ শুনলাম ,,,
দৌড়ে আবার রুমে গেলাম,,,
এসে দেখি পাগলীটা হয়তো তাড়াতাড়ি করে নামতে গেছলো আবার সেই কাটা জায়গাটায় লাগছে ,, রক্ত বের হচ্ছে ,,,,
কি যে করি এই পিচ্চিটাকে নিয়ে ,,,,,,,,,
,,,,,
,,,,,
,,,,,
,,,,,
To be continue

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *