অবুঝ বউ part-7

অবুঝ বউ
,
Sûmøñ Ãl-Fãrâbî
,
৭ম পর্ব
,
পুতুল আমার দিকে আর আমি পুতুলের দিকে তাকিয়ে আছি ,,,,
দুজনের কেউ কোনো কথা বলছি না ,,,
হঠাৎ পুতুল মাথা নিচু করলো,,,
মনে হয় লজ্জা পেয়েছে ,,,
তাই আমি ওকে আরও কাছে নিয়ে আসলাম ,,,
“” কি করছো,,, ভাবি আসবে তো,,,
“” আগে তো সবকিছু ভাবিকে বলতে এখন আবার কি হলো,,,
“” আগে তো এমন ছিলাম না ,,, এখন আমি জানি,,,,
“” কি জানো,,,,,
“” সব কিছু ,,,
“” সব কিছু কি,,,, না কি আমায় বলা যাবে না ,,,,
“” তোমায় বলা যাবে ,,,,,
“” তাই ,, তো বলো,,,

এই সময় ভাবি যে কোন দিকে আসলো বুঝতেই পারলাম না ,,,

“” এই নতুন পায়রা পায়রি ,, এমন সুপার গ্লু মতো চিপকায়া বসে আছো কেন,,,,, এখন বাচ্চাদের লজ্জা শরম যে কই গেলো,,, শ্বশুর বাড়ি ও বোঝে না ,,,,
( ভাবি কথা গুলো বলছে আর হাসছে )
আমি একটু এদিকে সরে বসলাম ,,, পুতুল বোধ হয় লজ্জা একটু বেশি পাইছে,,, তাই ও উঠে চলে যেতে লাগলো ,,,

“” এই যে মহারাণী কোথায় যাচ্ছেন
“” রুমে ,,,
“” হইছে অনেক লজ্জা পাইছেন ,,, লজ্জায় লাল টমেটো হইয়া গেছেন ,, আসেন চা খাবেন ,,,

পুতুল ধীরে ধীরে হেটে এসে এবার ভাবির পাশে বসলো ,,,

“” কি হলো এখানে বসলে কেন,,,
“” এমনি,,,
“” যাও সুমনের পাশে গিয়ে বসো,,,,
“” আচ্ছা ,,,
পুতুল এবার আমার পাশে এসে বসলো,,,,
“” তোমাদের দুজন কে অনেক সুন্দর লাগছে ,,,,
পুতুল কে এক হাতে জড়িয়ে ধরে বললাম,,,,
“” নজর দিবেন না কিন্তু ,,,
“” তোমাদের নজর দিবো কেন,,, আমার কি স্বামী নাই ,,, তো পুতুলরাণী কাল রাত কেমন কাটলো ,,,,
“” তোমায় বলবো কেন ,,,,
“” আমায় বলা যাবে না ,,,,
“” না,,,
“” পুতুল তো বড় হয়ে গেছে ,,,, তোমরা থাকো আমি রান্না করবো,,,,

ভাবি রান্না করতে চলে গেল ,,, পুতুল ও উঠে রুমে আসলো ,,,,
আমিও একা একা বসে না থেকে পুতুলের সাথে রুমে আসলাম ,,,
“” কি হলো রুমে আসলে যে,,,,
“” আমার বউ রুমে আসলো তাই ,,,,
“” ভাবি কি ভাববে ,,,,
“” এখন তো দেখি তুমি পুরো লজ্জাবতী লতা হয়ে গেছো,,,,,
“” জানো ভাবি কাল আমায় অনেক কিছু বলেছে ,,,
“” কি,,,, কি,,,,,
“” স্বামী স্ত্রী কি করে ,, স্বামীর চাওয়া পাওয়া কি,,, আর স্বামী স্ত্রী এর কথা বাইরের কাউকে বলতে নেই ,,,
“” তাই ,,, তাহলে তো আমার বউ বেশ বড় হয়ে গেছে ,,,,
“” আমি কি ছোট নাকি,,,,
“” তাই তো ভাবতাম,,,


আমি গিয়ে দরজা বন্ধ করে দিলাম ,,,
“” এই কি করছো,,,,
“” দেখতেই তো পাচ্ছো দরজা বন্ধ করছি,,,
“” কেন
“” স্বামী স্ত্রী যা করে তা করতে ,,,,
“” এই না,,, সামনে আর আসবে না ,,,,
“” কেন
“” আসবে না বলছি ,,,,


পিছনে পিছাতে পিছাতে পুতুলের পিঠ দেয়ালে আটকে গেছে ,,,
আমি ওর কাছে গেলাম ,,, এতোটাই কাছে গেলাম যে ওর বেড়ে যাওয়া শ্বাস প্রশ্বাস এর শব্দ কানে আসছে ,,,
মেয়েটা হয়তো একটু ভয় পেয়েছে ,,,,

“” ভয় পেয়েছ,,,,
“” ভাবি বলছে মানসিক এবং শারীরিক ভাবে প্রিপারড থাকতে হয়,,,,,
“” আর তুমি এখন প্রিপারড না,,, এটা আমি জানি,,,,
“” তাহলে এভাবে আগাচ্ছিলে কেন,,,,
“” তুমি পিছনে পিচাচ্ছো তাই ,,, আর তোমার শরীর ঘেমে যাচ্ছে দেখে আমার খুব হাসি পাচ্ছে ,,, তাই ,,,
“” ওহহহ,,,,

পুতুল কে টেনে বুকে নিলাম ,,, পুতুল ও আমায় শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো ,,,
“” শোনো আমি তোমার স্বামী ,,, তোমার সুবিধা অসুবিধা যদি নাই বুঝতে পারি তবে আমি আর বাইরের একটা মানুষের মাঝে কি পার্থক্য থাকলো,,,,
“” ভাবি ঠিকই বলে ,,,, তুমি অনেক ভালো ,,,,
“” তাই ,,, কিন্তু তুমি কান্না করছো কেন ,,,,
“” আমি ভয় পেয়ে গেছলাম,,,
“” আচ্ছা ,, এখন কান্না থামাও ,,,
“” হুম ,,,
“” একটা ইয়ে তো দিতে পারবো তাই না ,,,
“” না,, সেটাও পারবে না ,,,
“” আচ্ছা ,,,
পুতুল কে ছেড়ে দিয়ে রুম থেকে বের হয়ে যাচ্ছি ,,,
পুতুল সামনে এসে দাড়ালো,,,,
“” কোথায় যাচ্ছো,,,,
“” বাইরে ,,,,
“” রাগ করছো,,,
“” না,,,,
“” তোমায় বলছি না আমার উপর রাগ করবে না ,,,
“” কই রাগ করি নি তো ,,, আমি তো,,,,,,
আর কথা বলতে পারলাম না ,,, এর আগেই পুতুলের ঠোঁট আমার বাকশক্তি কেড়ে নিয়েছে ,,,,
ঠোঁট থেকে ঠোঁট সরানোর পর পাগলী টা লজ্জা পেয়েছে ,,,
লজ্জায় বুকে মুখ লুকিয়েছে,,,

“” এই যে পিচ্চি মেয়ে লজ্জা পেয়েছেন,,,,
“” আমায় পিচ্চি বলবে না ,,,
“” বাসর ঘরে বসে যে চকলেট খায় তাকে পিচ্চি বলবো না তো কি বলবো ,,,
“” ওহহ,, চকলেট খাবে ,,, আমার রুমে অনেক চকলেট আছে ,,,
“” না এখন খাবো না ,,,
“” কেন,,,
“” এখনি তো একটা চকলেট খেলাম,,,
“” কখন ,,,
“” এখনি,, তুমি খাওয়াই দিলে,,,,
হালকা করে ধাক্কা দিয়ে বললো,,, যাহ দুষ্ট ,,,,
বুঝলাম বউ আমার লজ্জা পেয়েছে ,,,
“” পুতুল রাণী যদি চায় তবে আমি তার চকলেট ফিরিয়ে দিবো,,,
“” লাগবে না আমার,,,,
“” ভেবে দেখো বাজার থেকে আইসক্রিম এনে দিবো ,,,
“” সত্যি,,,
“” হুম ,,,
“” অনেক গুলো দিতে হবে কিন্তু ,,,
“” আচ্ছা ,,, তো এখন কি চকলেট টা ফেরত দিবো,,,,
“” হুম দাও,,,

এরপরের ফিলিংস টা না হয় না বলি,,,,

এভাবে শ্বশুর বাড়ি থেকে বাসায় ফিরে আসলাম,,,,,
বউ আগের থেকে অনেক বেশি একটিভ হইছে ,,,,
তবে আমি ভাবছি ভাবি কি জিনিস ,, এতো তাড়াতাড়ি আমার বউকে এমন করে দিলো,,,,

বাসায় এসে আবার অফিসের চাপ,,,,

“” পুতুল
“” হ্যা বলো,,,,
“” কাল সকালে আমায় ডেকে দিয়ো,,,
“” কেন,,,
“” অফিস আছে ,,,
“” আচ্ছা ,,,
“” আমি ঘুমালাম ,,
“” এখনি ঘুমাবে ,,,
“” হুম খুব ক্লান্ত লাগছে ,,,,
“” আচ্ছা ,,,


আমি ঘুমালাম ,,, মাঝরাতে কারো হাসির শব্দে ঘুম ভেঙে গেলো,,,,
চোখ খুলতেই চাচ্ছে না তবুও জোর করে খুললাম ,,,
পুতুল আমার বুকের উপর মাথা রেখে ফোনে গেমস খেলছে আর হাসছে ,,,

“” তুমি ঘুমাও নি ,,,
পুতুল চমকে গেলো,,,
“” ঘুম আসছে না,,,,
“” কি করছো,,
“” গেমস খেলি,,,
“” ফোন কার,,,
“” এটা আমার ফোন ,,,,
“” ওহহহ,,, ফোন রাখো,,, রেখে ঘুমাও,,,
“” আমায় জড়িয়ে না ধরলে আমার ঘুম আসে না,,,
“” তো বলতে পারতে তো,,,
“” তুমি তো ঘুমাইছো,,,
“” আচ্ছা বাবা আসো,,, কাছে আসো,,,, এবার ঘুমাও,,,,


পুতুল কে জড়িয়ে ধরলাম ,,, মেয়েটা বাচ্চা দের মতো গুটিশুটি হয়ে শুয়ে পড়লো,,,,

আসলে এই মেয়েকে বড় কে বলবে ,,,
রাতে ১২ টায় যে মেয়ে গেমস খেলে তাকে কি কেউ বড় বলবে ,,,,

সকাল বেলা ঘুমে আছি ,,,,
“” এই তোমার অফিস আছে না,,,
“” কে,,, ওহহ তুমি ,,,,
“” উঠবে না,,,
“” হুম ,,
“”তোমার অফিস আছে তো,,,
“” কখন যাবে ,,,
“” এখন ,,,
“” তাড়াতাড়ি ওঠো,, আজ আম্মু আর আমি রান্না করছি ,,,
“” তাই,,,
“” হুম ,,,
“” হাতটা একটু ধরবে ,,,
“” কেন,,,
“” উঠতে পারছি না ,,
“” আচ্ছা ,,,

ও যেই হাতটা বাড়ালো ওর হাতটা ধরে টেনে আমার কাছে নিয়ে আসলাম ,,,
“” এই কি করছো,, আম্মু চলে আসবে তো,,,
“” আমার বউ,,, আম্মু এসে কি করবে ,,,
“” তাই,,,, তাড়াতাড়ি রেডি হয়ে নাও নয়তো তোমার অফিসে দেরি হবে ,,,,

বাইরে থেকে আম্মু ডাকছে ,,, এই সুমন অফিস কখন যাবি তাড়াতাড়ি ওঠ,,,
এই অফিসের জ্বালায় বউয়ের সাথে একটু রোমান্স ও করা যাবে না ,,,,,,,
,,,
,,,,
,,,
,,,,
,,,
To be continue

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *