অবুঝ বউ part-8

অবুঝ বউ
,
Sûmøñ Ãl-Fãrâbî
.
৮ম পর্ব
,
নতুন বউয়ের সাথে যে একটু রোমান্স করবো,,,,,
সেটারও কোনো উপায় নেই ,,,,
বিছানা থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে নাস্তা করে অফিসে যাবো,,,,
কিন্তু সমস্যা একটাই ,,,
টাই বাঁধতে পারি না,,,,
এখন আবার আম্মু কে ডাকতে হবে ,,,
আর আম্মু বলবে ষাঁড়ের মতো চিল্লাস কেন,,,

“”” আম্মু, আম্মু , ও আম্মু ,,,
“”” আসছি ,,,,
কি হলো??? আজ এতো শান্ত ,,,, কোনো বকাবকি নাই ,,,
মনে হয় মুড ভালো আছে ,,,
আম্মু আর পুতুল একসাথে রুমে আসলো ,,,
“” কি হইছে ষাড়ের মতো চেচাচ্ছিস কেন ,,,,
কথা টা দূর থেকে বললে হয়তো ফিলিংস কম আসতো তাই রুমে এসে বললো,,,,
“” টাই টা,,,,
“” আজ পর্যন্ত একটা টাই বাঁধতে পারিস না ,,,
“” আম্মু আমি পারি ,,,
“” এই তো তোর বউ বাঁধতে পারে ,,, আমায় না ডেকে ওকে ডাকলে তো পারতি,,,
“”” আগে যদি জানতাম বউ পারে তাহলে কি আর বকা শোনার জন্য তোমাকে ডাকতাম,,,,,
“” তোর তো ওটা অভ্যাস,, বকা না শুনলে পেটের ভাত হজম হয় না ,,, আমি গেলাম ,, আর সাবধানে যাস ,,,
“” আচ্ছা ,,,

আম্মু চলে গেলো,,,, পুতুল আমার সামনে দাড়িয়ে টাই বেঁধে দিচ্ছে ,,,
এমনিতেই অনেক কাছে আছে ,, তাতে আবার কোমরে ধরে আরও কাছে টেনে নিলাম ,,,

“” এই তোমার টাই বাঁধা শেষ ,,,
“” তো,,,
“” এখন ছাড়ো ,,,
“” তুমি টাই বাঁধতে জানো আগে বলবে না,,,
“” তুমি কি আমায় বলছিলা,,,
“” তা ঠিক ,,, আচ্ছা গেলাম ,,,
“” এই শোনো ,,,
“” হুম বলো ,,,
“” ভাইয়া রোজ অফিসে যাওয়ার সময় ভাবিকে একটা ইয়ে দেয়,,,,
“” তো,,, তোমারও কি ইয়ে লাগবে ,,,
“” নাআআআ,,,,, ভাইয়া ভাবি কে দেয় সেটাই তোমায় জানালাম ,,,
“” ওহহ আচ্ছা ,,, পিচ্চি মেয়ের তো বুদ্ধি আছে ,,,
“” ঐ পিচ্চি বলবে না ,,,,
“” আচ্ছা বলবো না ,,,, উম্মায়,,, এখন যাই,,,
“” যাই না আসি বলতে হয়,,,
“” এটা কার থেকে শিখলে ,,,
“” ভাইয়া ভাবি,,,,
“” পাগলী,,, আচ্ছা আসি,,, আর আম্মুর সাথে থেকো সব সময় ,,,
“” আচ্ছা ,,,


বেশ কিছু দিন পর আজ অফিসে গেলাম ,,, কলিগ রা সবাই মজা নিচ্ছে আমায় নিয়ে ,,,

তাতেই অনেক দিনের কাজের পেসার আজ,,,
অফিসে গিয়ে সেই লেভেলের ব্যাস্ত হয়ে পরলাম ,,,
বাসায় যে একটা ফোন দিবো সেটাও মনে নেই,,,
ফোনটা হাতে নেওয়ার ও সময় হয়নি ,,,
রোজ ৭ টার মধ্যে বাসায় পৌঁছে যাই কিন্তু আজ নয়টা বাজে তবুও আমি অফিসে ,,,
ফোনটা হাতে নিয়ে দেখি বাসা থেকে ২৪ বার ফোন দিছে ,, ফোন সাইলেন্ট মুডে ছিলো ,,
আমি কি ফোন দিবো ,,,
না থাক একটু পরে তো বাসায় যাবো,,,
অফিস থেকে বের হলাম বাসায় যাবো বলে,,,
ফোনের রিংটোন টা বাজছে,,,,
ফোন হাতে নিয়ে দেখি ভাবি,,,,
ফোনটা রিসিভ করে সালাম দিলাম ,,,
“” কই তুমি ,,,,
“” ভাবি আমি অফিস থেকে বের হলাম ,,,
“” বাসায় ফিরবে কখন ,,,
“” এখন ,,,
“” বাসা থেকে তোমায় যে ফোন দিছলো রিসিভ করো নি কেন,,,
“” ভাবি খুবই বিজি ছিলাম আর ফোন সাইলেন্ট মুডে ছিলো ,,,
“” বাসায় যে একটা নতুন বউ আছে সেটা কি মনে আছে ,,,
“” মনে থাকবে না কেন ,,,
“” একবার ও কি ফোন দিছলে,,,
“” না,,,
“” মেয়ে টা কান্না করছে ,,,
“” সরি ভাবি,,,
“” আমায় সরি বলে লাভ নাই ,, তাড়াতাড়ি বাসায় যাও,,,
“” আচ্ছা বাই ,,,

.
ফোন কেটে দিয়ে তাড়াতাড়ি বাসায় গেলাম ,,,
বাসায় যাওয়ার আগে চকলেট কিনে নিয়ে গেলাম ,,,,

বাসার কলিং বেল বাজালাম ,,,
আম্মু এসে দরজা খুলে দিল ,,,
যেভাবে আমার দিকে তাকালো মনে হয় আমি কাউকে হত্যা করে আসছি ,,,
আমার সাথে কোনো কথা বললো না ,,,
“” আম্মু ক্ষুধা পাইছে ,,,
“” টেবিলে রাখা আছে খেয়ে নে,,,
“” তোমরা খাইছো,,,,
“” হুম ,, শুধু তোর বউ খায় নি ,,,
“” কেন,,,
“” আমি কি জানি ,,, তোর মোবাইল কই,,,
“” কাছে ,,,
“”কতো বার ফোন দিছে দেখ তো,,,,
“” ফোন সাইলেন্ট মুডে ছিলো ,,, কে ফোন দিছে
“” পুতুল ,,,, মেয়েটা কান্না করে না খেয়ে শুয়ে পারছে,,,
“” আচ্ছা আম্মু তুমি রুমে যাও আমি আসছি ,,,


এরপর রুমে আসলাম ,,,
পুতুল শুয়ে আছে ,,,
ধীরে ধীরে ওর কাছে গেলাম ,,,
গিয়ে দেখি এখনো কাঁদছে ,,, ভিতরে কেমন জানি একটা অপরাধ বোধ কাজ করছে ,,,
পুতুলের গায়ে হাত দিতেই ও ঘুরে তাকালো,,,
আমায় দেখে কোনো কথা না বলেই জড়িয়ে ধরে জোরে কান্না শুরু করলো ,,,

“” এই কি হইছে ,,,,
,,,,,
“” আরে বাবা বলবে তো কি হইছে,,, কান্না করছো কেন,,,,,

অনেক সময় লাগলো ওকে নরমাল করতে ,,,
“” কি হয়েছে বলো আমায়,,,
“” তুমি একবারও ফোন করো নি কেন,,,,
“” সরি ভুল হইছে ,,,
“” যখন আম্মু বললো তুমি ৭ টায় আসো,,, ৭ টার পর থেকে কতো ভয় হচ্ছিল আমার জানো,,,
“” আর হবে না ,,,

পাগলীটা এই কয়েক দিনে আমায় যে এতটা ভালোবাসবে তা বুঝতেই পারি নি ,,,
পাগলীটাকে বুকে জরিয়ে নিলাম ,,,
এখন ও একটু একটু কান্না করছে ,,,,
আরে আমার তো মনেই নাই,,,
ওর জন্য অনেক চকলেট নিয়ে আসছি ,,,
“” পুতুল,,,
“” হুম ,,,
“” মুখ টা একটু তোলো,,,
“” কেন,,,
“” তোমার জন্য চকলেট নিয়ে আসছি ,,,
“” আমার চকলেট লাগবে না ,,,
‘”” কেনো,,,
“” তাহলে তুমি রোজ দেরি করে আসবে ,,,,
“” কে বললো ,,,,
“” আব্বু এমন করতো ,,,
“” আচ্ছা ঠিক আছে খাও নি কেন ,,,
“” তোমায় ছাড়া খাওয়ার ইচ্ছে করছে না তাই ,,,
“” আচ্ছা চলো খাওয়া করি,,,

পুতুল কে নিয়ে টেবিলে আসলাম ,,, এসে দুজনেই খাওয়া করলাম,,,
আমি ওকে খাওয়াই দিছি,,,,
খাওয়া শেষ করে ওকে কোলে করে রুমে নিয়ে আসলাম,,,,

“” পুতুল
“” হুম ,,
“” আর কখনো কান্না করবে না ,,,
“” কেনো,,
“‘ কান্না করলে তোমায় পেত্নীর মতো লাগে,,,

পুতুল আমার কলার ধরে বললো কি বললে আমি পেত্নী ,,,,
“” সেটা তো বলি নি ,,,
“” তাহলে কি ,,,
“” কিছু না ,,,
“” এই আমি চকলেট খাবো,,,
“” খাও,, অনেক গুলো নিয়ে আসছি ,,,
“” ঐ চকলেট না,,,
“” তবে ,,,,
“” সেদিন আমি তোমায় যে চকলেট খাওয়াই ছিলাম ,,,
“” তো খাও আমি কি বাঁধা করছি ,,,

পুতুল কথা শেষ করতে না দিয়েই একটা পাপ্পি দিলো,,,,,,
,,,,,,,
,,,,,,,
,,,,,,
,,,,,,
,,,,,,
,,,,,,
to be continue

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *