তোকে চাই। পার্ট_৫ স্বামী স্ত্রীর ভালোবাসার গল্প

#তোকে চাই❤
#writer: রোদেলা❤
#part: 5

তোকে চাই সকল পর্ব

এই আপনি এভাবে হাসছেন কেনো?(সন্দেহ নিয়ে)

কই হাসছি না তো(হাসতে হাসতে উঠে দাড়িয়ে)

হাসছেন না মানে??”কই হাসছি না তো”এই কথাটাও আপনি হেসে হেসেই বললেন,,,তবু বলছেন হাসছেন না,,,(ভ্রু কুচঁকে)

তুমি ভুল দেখেছো,,,হাসছি না (বলে আবারো হেসে খুন)

এই আমাকে আপনার মগা মনে হয় নাকি??যে, যা বলবেন তাই বিশ্বাস করবো??আপনি হাসছেন মানে হাসছেন,,,শুধু হাসছেন বললে ভুল হবে আপনি তো রীতিমতো হাসতে হাসতে নাচানাচি করছেন,,,কাহিনী কি??(ভ্রু নাচিয়ে)

উনি এবার আমার নাকটা হালকা টেনে দিয়ে বেরিয়ে গেলেন,,,যাওয়ার সময় শুধু বললেন,,”দেরী হচ্ছে যটপট নিচে আসো।।”আমি তো শকড হয়ে দাড়িয়ে আছি,,শুভ্র হাসি হাসি মুখে আমার নাক টেনে দিলো,,,ওহ্ মাই গডডডড।।।।।আই কান্ট বিলিভ,,ইচ্ছা তো করছে নাগিন ডান্স দেই,,বাট ইচ্ছাটাকে আপাতত সাইডে রেখে ওনার কথা মতো যটপট নিচে নেমে গেলাম।।।নিচে গিয়ে দেখি উনি গাড়িতে বসে ওয়েট করছেন,,আমি একটু অবাক হলাম,,কারণ উনি গাড়ি খুব কম ইউজ করেন,,ওলওয়েজ বাইক দিয়ে চলাচল করে,,, তাহলে আজ কি হলো??আমার প্রথম থেকেই কতো শখ উনার বাইকে উঠবো,,,কিন্তু কখনো উঠতে পারি নি,,ভেবেছিলাম আজ উঠবো কিন্তু জনাব দেখি আগে থেকেই গাড়িতে উঠে বসে আছে,,কেনো রে??আমি তোর বাইকে উঠলে কি,,তোর বাইকের রং জ্বলে যাবে নাকি হুহ,,,,যত্তসব।।।নিজের মনে বিরবির করতে করতে গাড়িতে উঠলাম।।আমি গাড়িতে উঠা মাত্রই গাড়ি চলতে শুরু করলেন,, ,,দুজনেই চুপচাপ বসে আছি,,,উনি কিছু বলছেন না,,আর আমি বলার সাহস পাচ্ছি না।।পেটের মধ্যে কথাগুলো কিলবিল করছে কিন্তু গলা পর্যন্ত এসে আটকে যাচ্ছে,,,আমি বারবার উনার দিকে করুন চোখে তাকাচ্ছি,,,আর উনি স্ট্রেইট বসে গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছেন,,,,হঠাৎ করেই উনি বলে উঠলেন,,

বারবার এভাবে তাকানোর কি আছে??আমায় তো নতুন দেখছো না(বিরক্তি নিয়ে)এভাবে তাকাবে না,,মাইন্ড ইট।।

এবার আমার রাগ লাগছে,,,আমি উনার দিকে ঘুরে বসে উনার দিকে ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে রইলাম,,এবার বুঝো মজা,,,😁

কি ব্যাপার এভাবে ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছো কেনো??(ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে)

আমার বিরক্ত লাগছে,,সোজা হয়ে সামনের দিকে তাকাও,,(রাগী চোখে)

আজিব পাবলিক,,,আরে চোখ আমার,,ইচ্ছা আমার,,জামাইও আমার,,আপনার প্রবলেমটা কি মশাই??(ঠোঁট উল্টে)

এবার উনি আমার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকালেন,,,কিন্তু আমার তা নিয়ে বিন্দুমাত্র মাথাব্যাথা নেই,,আমি আগের মতোই উনার দিকে ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছি।।।আসলে বিষয়টা খুব উপভোগ করছি,,,কাউকে বিরক্ত করার মধ্যেও অন্য রকম মজা আছে,,যা আমি এই মুহূর্তে বেশ ভালোভাবে পাচ্ছি।।।উনি হঠাৎই গাড়ি থামিয়ে দিলেন,,,এবার আমি একটু ভড়কে গেলাম,,এইরে উনি আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিবেন না তো?? কিন্তু না,,,উনি আমাকে নামিয়ে দিলেন না,,,কিন্তু এর চেয়েও ভয়ঙ্কর কাজ করলেন,,,যা আমি কখনো আমার চিন্তাতেও আনি নি।।।উনি গাড়ি থামিয়েই আমার দিকে ঝুঁকে পড়লেন,,,আমি তো রীতিমতো কাঁপছি,,,কি করতে চলেছেন উনি?????এই মুহূর্তে আমার মাথায় একসাথে শতাধিক প্রশ্ন ঘুরে বেড়াচ্ছে,,,উনার এভাবে কাছে আসায়,, আমার হার্টবিট হাজার গুন স্পিডে ছুটছে,,,,উনি আমার ভাবনা -চিন্তা থামিয়ে দিয়ে আমার উড়নাটা টেনে নিজের হাতে নিয়ে নিলেন,,,,আমি “হা” হয়ে তাকিয়ে আছি।।।।আগের মতো অসভ্য আচরন শুরু করে দিয়েছেন উনি আমিই ঠিকই ছিলাম,,নীলামার ভূতই চেপেছে উনার ঘাড়ে,,,কেনো যে এমন অদ্ভুত দোয়া করেছিলাম,,এখন নিজেকেই ভুগতে হচ্ছে,,,আমি দুই হাত দিয়ে নিজেকে ঢাকার চেষ্টা করতে করতে বললাম,,,

ক,,,কি করছেন এসব??অসভ্যর মতো আচরন করছেন কেনো??আমার ওড়না দিন বলছি,,,(কাঁদো কাঁদো কন্ঠে)

আজিব,,,অসভ্যর কি আছে??হাত আমার,,ইচ্ছা আমার,,,বউ আমার আর বউয়ের ওড়নাটাও আমার,,,তোমার কি সমস্যা হচ্ছে বুঝলাম না।।।(শয়তানী হাসি দিয়ে)

উনি আমার ডোস টা আমাকেই দিয়ে দিলেন,,,,রাগে-দুঃখে নিজের চুল ছিঁড়তে ইচ্ছা করছে আমার,,,,কি দরকার ছিলো উনার সাথে লাগার??এখন হলো তো??আমি উনার দিকে করুন দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললাম,,”উড়নাটা দিন না প্লিজ,,আর তাকাবো না আপনার দিকে প্রমিজ”।।।কিন্তু খাটাস বলে কথা,,এতো সহজে মানবে কেন?না মানার অধিকার তো তার আছে,,,

তাকাবে কি তাকাবে না,,সেটা তো তোমার ইচ্ছের উপর নির্ভর করছে,,,আর আমি উড়নাটা দিবো কিনা,,এটা আমার উপর নির্ভর করছে।।আর এই মুহূর্তে আমার মোটেও উড়নাটা দিতে ইচ্ছা করছে না,,,সো সরি,,,(বাঁকা হাসি দিয়ে)

উনার হাসি দেখে ইচ্ছে করছে,,,উনার গলা চেপে ধরি,,,কিন্তু কি আর করা??কথায় আছে না?হাতি কাদায় পড়লে পিঁপড়াও লাথি মারে,, হুহ।।।আমি উনার দিকে টলমল চোখে তাকিয়ে বললাম,,,প্লিজজজজজ।।।এবার উনার একটু দয়া হলো,,,,উনি বললেন,, উড়না দেবে কিন্তু একটা শর্ত আছে।।।আমিও বাধ্য হয়ে রাজি হয়ে গেলাম।।আর উনি শয়তানী হাসি দিয়ে বলে উঠলেন,,,
গুডডড।।।শর্তটা হলো,,এই এক সপ্তাহ,,, আমি যা বলবো।।তুমি তাই করবা,,,কি রাজি তো??

হুম রাজি।।আর কোনো উপায় রেখেছেন কি??(বিরবির করে)

ভেবে বলছো তে?

হুমম(মাথা নিচু করে)আমি আড়চোখে উনার দিকে তাকালাম,,,উনার শয়তানী হাসি দেখেই বুঝতে পারছি,,,আমার জীবন শেষ😭,,,,

বাসায় ফিরছি আর উনার দিকে আড়চোখে তাকাচ্ছি,,,উনার মাথায় কি চলছে তাই বোঝার চেষ্টা।।কিন্তু উনি আমার চেষ্টায় জল ঢেলে দিয়ে চুপচাপ ড্রাইভ করে চলেছেন।।কি আলতো হাতে ড্রাইভ করছেন উনি,,,উনার হাতের উপরও কেমন প্রেম প্রেম ভাব আসছে আমার🙈,,,এত্তো কিউট কেন উনি??ইচ্ছা করছে গাল দুটো টেনে দিয়ে,,,টাইট একটা কিসি দিই,,,কিন্তু ,তা কি আর আমার ভাগ্যে আছে নাকি??ব্যাটা দেবদাস,,নীলি নীলি করেই মরে যাচ্ছে।।মুখটা গোমড়া করে বসে আছি,,,মনে হচ্ছে কেউ আমার সামনে চকলেট আইসক্রিম রেখে দিছে বাট আমি খেতে পারছি না,,,কিন্তু অপর পাশ থেকে ক্রমাগত লোভ দেখিয়ে চলেছে ,,হুহ।।।আমাকে মন খারাপ করে থাকতে দেখেই হয়তো উনি বলে উঠলেন,,,

কি হয়েছে??(ভ্রু কুঁচকে)

কিছু করেছেন যে কিছু হবে???(বলেই জিব্বায় কামড় দিলাম,,,ছি ছি কি বলে ফেললাম)

উনি অবাক হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে থেকে ভ্রু কুঁচকে বলে উঠলেন,,,

কি বললা??

ক,,,কই কিছুই না তো,,,(ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে)

বাচ্চা একটা মেয়ের মুখে,,এতো বাজে কথা কোথা থেকে আসে??(রাগী কন্ঠে)

এই শুনুন,,আমি মোটেও বাচ্চা নই,,যথেষ্ট এডাল্ট,,আমার তো বিয়েও হয়ে গেছে হুহ,৷ (ভাব নিয়ে)

এবার উনি হুহু করে হেসে দিলেন,,,আমার আবারো নীলিমার ভূতের কথা মনে পড়ে গেলো,,আল্লাহ এখন তো আরো রাত,,,যদি উনি আমাকে মেরে টেরে ফেলেন,,,হায় আল্লাহ্,,,ভেবেই গাড়ির দরজার সাথে লেগে বসে,,,,, সন্দেহের দৃষ্টিতে উনার দিকে তাকিয়ে বলে উঠলাম,,,

ক,,,কি ব্যাপার হাসছেন কেন??

তুমি এডাল্ট??লাইক সিরিয়াসলি??এখনো নাক টিপলে দুধ বের হবে,,,আর বলছে কি না আমি এডাল্ট,,,,হাহাহা,,প্লিজ ডোন্ট মেক মি লাফ,,,আমি তোমার থেকে ৫ বছরের বড়,,ওকে?

এবার আমার রাগ লাগছে,,উনি আমাকে অপমান করছেন,,,,

এক্সকিউজ মি?আপনি বুইড়া বলে যে সবাই বাচ্চা হবে তা কিন্তু নয়,,,,ওকে???(হাত দিয়ে নাক ঘষে)

কিহ??আমি বুইড়া??(ভ্রু কুঁচকে)

অবশ্যই আপনি বুইড়া,,,আমি বাচ্চা হলে আপনি ১০০% খাটি বুইড়া,,,হুহ(মুখ ভেঙিয়ে)

আর ইউ মেড??তোমার চোখে কি সমস্যা আছে??আমার মতো হট এন্ড হ্যান্ডসাম ছেলেকে তোমার কাছে বুইড়া মনে হয়??তুমি জানো??মেয়েরা আমাকে দেখেই ফিদা হয়ে যায়,,হুহ

ওহ,,,রিয়েলি??নাইস জোক,,,আপনি হট এন্ড হ্যান্ডসাম হলে পৃথিবীর সব হ্যান্ডসাম ছেলেরা সুইসাইড করবে,,,,শুধু তাই নয়,,আই থিংক “হ্যান্ডসাম ” শব্দটাও আপনার নিজেকে হ্যান্ডসাম দাবি করায় লজ্জা পাচ্ছে,,,,,প্লিজ তার প্রতি রহম করুন(হাত জোড় করে)আর কি জানি বললেন ফিদা??হুহ,,কই আমি তো ফিদা হলাম না।।।

তোমার মধ্যে মেয়ে টাইপের কিছু আছে নাকি যে ফিদা হবা???(দাঁত দাঁতে চেপে)

মানে??(চিৎকার করে)

চেঁচাও কেন,,ঠিকি তো বলছি,,,তুমি মেয়ে না ছেলে এটা বুঝতেই সবার দুইমিনিট সময় লাগবে,,,

আমি এবার কেঁদেই দিলাম,,উনি কি করে পারলেন,,আমাকে এতো বাজে কথা বলতে??খাটাস একটা,,

এই এই কাঁদো কেন??

তো,,আপনি ওভাবে বললেন কেন??

তুমিও তো বলছো আমায়,,আমি কান্না করছি??এখনই প্রুভ হলো তুমি বাচ্চা,,,বাচ্চাদের মতো ফেসফেস করে কাঁদছো।।

উনার সাথে ঝগড়া করতে করতেই বাসায় এসে পৌছাঁলাম।।ছেলেরা যে এভাবে কোমর বেঁধে ঝগড়া করে জানতাম না,,উফফফ।।।ডিনার করে রুমে এসে,, ফ্রেশ হয়ে যেই না বিছানায় বসতে যাবো,,,ওমনি উনি বল উঠলেন,,,,

রোদদদ??এই রোদ??

কি হয়েছে??(বিরক্তি নিয়ে)

কফি খাবো,,,

তো?? আমি খাওয়ায় দিবো?(রাগী কন্ঠে)

জি না,,শুধু নিয়ে এসে দিলেই চলবে,,,,গো,,,,

রাগে ছিটতে ছিটতে কফি এনে উনাকে দিতে যাবো,,তখনি বলে উঠলেন,,,

ও এনেছো??এক্চুয়েলি রোদদ,,,প্রতিদিন কফি খেতে খেতে বোর হয়ে গেছি,,তুমি বরং চা করে আনো,,যাও।।

কথাটা বলেই ল্যাপটপটা কোলে নিয়ে কাজ করতে লাগলেন,,,মেজাজ আমার ব্যাপক গরম হয়ে আছে,,,একে তো বাইরে থেকে আসছি,,একটু রেস্ট নিবো তা না,, এই সাদা বিলাই আমাকে খাটিয়ে মারছে,,,,কিছু না বলে গেলাম নিচে,,,মামানি নিজের জন্য চা বানিয়ে মাত্রই মুখে দিবো,,,ওমনি উনার,হাত থেকে চা টা নিয়ে চলে এলাম।।না তাকিয়েও বুঝতে পারছি উনি অবাক হচ্ছেন বাট কিছু করার নেই,,,চা টা এনে উনাকে দিতেই বলে উঠলেন,,,,

আরে,, দুধ চা আনছো কেন??আমি দুধ চা খাই না,,,,রং চা আনো।।।

এবার আমার মাথায় আগুন ধরে গেলো ব্যাটার চুলগুলো টেনে ছিঁড়ে ফেলতে ইচ্ছা করছে।।।শালা খচ্চর একটা,,,😡

আমি পারবো নননননননা,,,,,আপনার সব কথা শুনতে হবে নাকি আজিব,,,(চিৎকার করে),

হ্যা শুনতে হবে,,,তুমি ভুলে গেছো?? গাড়িতে বলছিলা,,আমার সব কথা শুনে চলবে(দাঁত কেলিয়ে)যাও যাও,, নিয়ে এসো।।।

ইইইইইইই,,,,আজ থেকে উড়নায় পড়তাম না,,এই উড়নায় যতো নষ্টের গোড়া,,,,রাগে যেনো আমার মাথা ফেটে যাচ্ছে,,,উফফফ,,,লোকটা কি ইরিটেটিং,,, রাগে ফোঁফাতে ফোঁফাতে নিচে নামলাম,,এবার মামুও মামানির সাথে বসে আছে।।মামানি আমাকে দেখেই তাড়াতাড়ি চায়ে চুমুক দিলেন,,,,আমি সোজা আরিফ চাচার সামনে দাড়ালাম,,উনি মামুকে চা দিচ্ছিলেন,,মামু উইথআউট সুগার রং চা খায় জানতাম,,,,তাই উনার হাত থেকে চা টা নিয়ে,,, নিচে বসে থাকা সবাইকে দ্বিতীয় বারের মতো অবাক হওয়ার সুযোগ করে দিয়ে ওখান থেকে কেটে পড়লাম।।।
এবার রুমে গিয়ে সোজা উনার সামনে দাঁড়ালাম,,,উনি কিছু বলতে যাবেন তার আগেই চা টা টেবিলে রেখে,, উনার হাত থেকে লেপটপটা ছিনিয়ে নিয়ে কলার চেপে ধরে রাগী গলায় বলে উঠলাম,,,,

এবার যদি না খাইছিস তো তোর মাথায় ঢালুম চা,,,বুঝছিস???

বলেই কলার ছেড়ে উনার হাতে চায়ের কাপটা ধরিয়ে দিয়ে কোমরে হাত দিয়ে দাড়ালাম,,,,উনি আর কিছু বললেন না,,চুপচাপ খেয়ে নিলেন।।।উনার মুখের অবস্থা দেখে রাগ ভুলে হুহা করে হেসে দিতে ইচ্ছে করছে,,কিন্তু নিজেকে সামলে নিয়ে বিছানায় শুতে চলে গেলাম।।বিছানার কাছে গিয়ে দাড়াতেই উনি বলে উঠলেন,,,,বিছানায় নয় তুমি সোফায় শুবা,,,,

আমি অবাক হয়ে উনার দিকে তাকালাম কারন এই কয়দিন এক বিছানাতেই থেকেছি আজ হঠাৎ কি হলো??আমি ভ্রু কুঁচকে জিগ্যেস করলাম,,

কেনো???

আমি বলছি তাই,,,

আপনি যেহেতু বলছেন,,,তো আপনিই সোফায় ঘুৃমান আমি পারবো না।।।

তুমি আমার কথা শুনতে বাধ্য,,,

মোটেও না,,,,

হঠাৎই উনি উঠে দাড়ালেন,,,উনার দাড়ানো দেখেই আমার গলা শুকিয়ে গেলো,,,এতো ক্ষনের কনফিডেন্সগুলোও সাথে সাথেই ফুঁসসসস হয়ে গেলো,,,, উনি শার্টের হাতা গুটাতে গুটাতে আমার দিকে এগিয়ে আসছেন,,এটা দেখে তো রীতিমতো কাঁপা-কাঁপি অবস্থা,, ,,,, এবার আমি শেষ……



ক,,,কি ব্যাপার??আ,,,আপনি এ,,এভাবে এগুচ্ছেন কেনো??

এতোদূর থেকে ঠিক শুনতে পারছিলাম না,,তুমি কি বলছো।।।তাই ভাবলাম একটু কাছে গিয়ে শুনি।।(শয়তানী হাসি দিয়ে একদম কাছে দাড়িয়ে)

ও,,(ঢোক গিলে)

তো?কি বলছিলে???(পকেটে হাত দিয়ে স্ট্রেইট দাড়িয়ে)

ব,,বলছিলাম য,,য,,যে…..

হ্যা কি বলছিলা তাই জিগ্যেস করছি,,,বলো বলো।।।তোতঁলাচ্ছো কেন??ভয় লাগছে আমাকে?(ভ্রু নাচিয়ে বাঁকা হাসি দিয়ে)

ন,,নাহ।।ভয় কেনো লাগবে?একদম ভয় লাগছে না,,,আপনি কি ভূত নাকি যে আপনাকে দেখে কাঁপা কাঁপি শুরু হয়ে যাবে,,,হার্টবিট বেড়ে যাবে।।।(এক নিশ্বাসে বলে ফেললাম)

ওহ,,তাই নাকি???তোহ,,,বললে না তো,,, কি বলছিলা?

ব,,বলছিলাম যে বাড়ি আপনার,, ঘর আপনার,,,আপনি যা বলবেন তাই হবে।।আপনি বললে শুধু সোফা কেন আমি তো খাটের তলায়ও থাকতে পারি,,(জোর করে হাসার চেষ্টা করে)

বাহ,,বেশ ভালো বুদ্ধি দিয়েছো তো,,,আই লাইক ইট,,,,

ম,,মানে??আ,,আমি আবার কি বুদ্ধি দিলাম???(অবাক হয়ে)

এইযে খাটের তলা,,,সাউন্ডস এক্সাইটিং,,তাই না??

ম,,,মানে??কি বলতে চাচ্ছেন আপনি??(ভয়ে ভয়ে)

আমি বলতে চাচ্ছি যে তুমি আজ খাটের তলায় ঘুমাবা,,,ব্যাপারটা কিন্তু দারুন এক্সাইটিং জাস্ট ইমেজিন।।

শালা বজ্জাত,,এতোই যদি এক্সাইটিং হয় তুই থাক না,,আমাকে বলিস কোন কামে,,,(মনে মনে)

কি হলো? দাড়িয়ে আছো কেন??যাও বালিশ নিয়ে চলে যাও খাটের তলায়,,,তেলাপোকারা আজ একজন সঙ্গী পাবে,,কি বলো??(দাঁত কেলিয়ে)

“তেলাপোকা” শব্দটা শুনেই চিৎকার দিয়ে উনাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলাম,,,তেলাপোকা আমি ভয় পাই ঠিক কিন্তু নাম শুনলেই ভয়ে দৌড়ে পালাবো ব্যাপারটা তেমন না।।।তবু আমি উনাকে জড়িয়ে ধরলাম,,, এটাকে বলে ইচ্ছাকৃত ভয় পাওয়া।।সুযোগের সৎ ব্যবহার যাকে বলে আরকি,, 😁।।।কিন্তু ওই যে ব্যাটা খচ্চর বলে কথা,রোমান্টিকতা বলতে তো কিছু নাই,,,ফাউল জামাই একটা।। আমাকে তৎক্ষণাৎ নিজের থেকে ছাড়িয়ে দুই হাত দূরে দাড় করালেন।।।তারপর শান্ত কন্ঠে বলে উঠলেন,,,,

আমার থেকে অলওয়েজ এতোটুকু ডিসটেন্স মেইনটেইন করবে,,,গট ইট??

তারমানে আপনি আমাকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করছেন??

মানে??(ভ্রু কুচঁকে)ডিস্টেন্স মেইনটেইন করার সাথে মরা-বাঁচার সম্পর্ক কি শুনি???

তা নয় তো কি??চিন্তা করে দেখুন,,আমি যদি গাড়িতে আপনার থেকে দুই হাত দূরুত্ব নিয়ে বসতে যাই,,তাহলে আমার আর গাড়িতে বসা হয়ে উঠবে না,,গাড়ির দরজায় ঝুলে থাকতে হবে।।।(মুখ গোমড়া করে)

উনি আমার দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থেকেই ওয়াশরুমে চলে গেলেন।।ভিতরে পানি পড়ার শব্দ হচ্ছে,,উনি কি গোসল টোসল করছে নাকি??আজিব,,,,কথার মাঝখানে কে গোসল করতে যায়??আবাল নাকি??তখনি উনি বেরিয়ে এলেন,,উনার মুখটা লাল টমেটোর মতো হয়ে আছে।।ব্যাপারটা সন্দেহজনক,, কাহিনীটা কি??উনি আমার ঠিক সামনে দাড়িয়ে বললেন,,”যাও খাটের তলায় গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ো,,গো।।।” এবার সব ভাবনা-চিন্তাকে জলাঞ্জলি দিয়ে উনার দিকে করুন দৃষ্টিতে তাকালাম।।কিন্তু আমার করুন চাহনী উনার উপর কোনো প্রভাব ফেললো বলে মনে হচ্ছে না।।।এবার আমি বলে উঠলাম,,,,

দেখুন,,,আমার মতো বাচ্চাকে প্লিজ এভাবে নির্যাতন করবেন না।।

আমি তোমাকে নির্যাতন করছি??(রাগী গলায়)আর কি বললে?তুমি বাচ্চা?গাড়িতে তো খুব বলছিলে তুমি এডাল্ট,,তোমার বিয়ে হয়ে গেছে,,,ব্লা ব্লা।।।তো এখন আবার বাচ্চা হয়ে গেলা???(ভ্রু কুচকে)

আজিব,,,আমি যদি এখন বলি,, আমি আপনার বাচ্চার মা হতে যাচ্ছি,,,আপনি বিশ্বাস করবেন??

হোয়াটটট????কি সব ফালতু কথা বলছো??

ফালতু কথা কেন হবে??আমি বললাম আমি এডাল্ট আর আপনি মেনে নিলেন???তাহলে এখন যদি আমি বলি আমি আপনার বাচ্চার মা হতে চলেছি আপনি তাও মেনে নিবেন??

এই মেয়ে একদম চুপপ।।।কই কি বলতে হয় জানো না??আর একটা কথা না বলে চুপচাপ গিয়ে শুয়ে পড়ো,,,অবিয়েসলি খাটের নিচে।।

নাহ,প্লিজজ,,,এমন করবেন না।।ওখানে তেলাপোকা আছে,,প্লিজ প্লিজ প্লিজ।।

আচ্ছা ঠিক আছে,,আমি তোমাকে সোফায় শুতে দিবো,,বাট আই হেভ ওয়ান কনডিশন।।

ওকে ওকে আমি রাজি,,(দাঁত কেলিয়ে)

উনি হঠাৎ আমার মুখের সামনে মুখ ঝুকিয়ে এনে স্লো ভয়েজে বলে উঠলেন,,,, “ভেবে বলছো তো?”

উনার কথা শুনে আবার আমার কাঁপুনি স্টার্ট হয়ে গেলো।।ইন্না-লিল্লাহ,,,, এবার কি করতে বলবে উনি?কিছু না ভেবেই তো গাঁধার মতো হ্যা হ্যা বলে দিলাম।।এখন কি হবে???আমি আসলেই একটা ডাফার,,,কি দরকার ছিলো,,খাটের তলার কথা বলার??নিজের সাথেই বিভীষনের মতো আচরন করছিস তুই রোদ।।এবার বুঝ ঠেলা।।

এই যে মিসেস??ভাবনা চিন্তা হয়ে গেলে,, আপনি রেডি??

কি করতে হবে?(ভয়ে ভয়ে)

তেমন কিছু না।।।

উনার এই “তেমন কিছুনা” শব্দটাতেই ব্যাপক কিছুর আভাস পাচ্ছি আমি।।গলা শুকিয়ে আসছে।।

আজ আমার পা টা বেশ ব্যাথা করছে,,তুমি পা টা টিপে দিবা,,যতোক্ষণ না আমার ঘুম আসে,,,,,

হোয়াটটট???পাগল হয়ে গেছেন??আমি টিপে দিবো? তাও আবার পা??ইম্পসিবল।।

ওকে তাহলে যাও খাটের নিচে,,গুড নাইট।।

এই না না,,,

কি?

আমি টিপপো।।

কি টিপপা??

আপনার গলা,,,

কি বললা??(ভ্রু কুচকে)

না মানে,,আপনার পা টিপপো,,

ওহ,,সরি বাট এখন আমি রাজি নই,,তুমি বরং খাটের নিচেই যাও।।

এই না প্লিজ,,,আমি টিপপো বললাম তো।(মুখ গোমড়া করে)

ওকে রাজি হতে পারি তবে আরেকটা শর্ত আছে…..

কি শর্ত?(ভ্রু কুঁচকে)

গান গেয়ে গেয়ে পা টিপতে হবে।।।না পারলে গো টু খাটের তলা।।

আমি গান পারি না(কাঁদো কাঁদো গলায়)

দ্যাটস নট মাই প্রবলেম,,,

শালা ফাজিল তুই মরিস না কেন,,,
তুই মরলে এ জীবন কতো সুখের হতো

কি বললা??(রাগী কন্ঠে)

গানের লিরিক্স এটা,,,(জোর করে হাসার চেস্টা করে)

তাই??তো এই গান কবে পাবলিশ হলো?(দাঁতে দাঁত চেপে)

কেনো??এই মাত্র।।আমার লেখা গান,,,অনেক সুন্দর তাই না??আপনি শুয়ে পড়ুন আমি গান শুনাচ্ছি আর গলাও টিপে দিচ্ছি,,,ওহ সরি পা,,পা টিপে দিচ্ছি।।

উনি শুয়ে আছেন আর আমি উনার পা টিপছি আর খুন্ব মনোযোগ দিয়ে জাতীয় সংগীত গায়ছি,,,উনার দিকে না তাকিয়েও বুঝতে পারছি যে,,উনি ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে আছেন,,,,

এই তুমি জাতীয় সংগীত গায়তেছো কেন??

তো??

তো মানে??তোমাকে আমি গান গাইতে বলছি,,জাতীয়,সংগীত নয়।।

আরে,,জাতীয় সংগীত ও একধরনের গান।।সংগীত মানেই তো গান,,,,

এভাবেই প্রায় রাত দুটো পর্যন্ত উনি আমার উপর অত্যাচার চালিয়ে গেছেন,,,তারপর কখন যে ঘুমিয়ে গেছি বুঝতেই পারি নি।।।সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি আমি বিছানায়,,,আর উনি আমার পাশে গুটিশুটি হয়ে বাচ্চাদের মতো ঘুমিয়ে আছেন।।।ঘুমান্ত অবস্থায় কি নিষ্পাপ লাগছে উনাকে,,,,এই মানুষটাকে দেখলে কে বলবে যে এই লোকটা আস্ত একটা খাটাস।।।সাতদিনের মধ্যে প্রথমদিনেই আমার জীবনটাকে কচুপাতা বানায় ফেলছে।।।এবার আমাকেও একশন নিতে হবে,,,নয়তো এক সপ্তাহ পর আমাকে আর খোঁজে পাওয়া যাবে না।।এই বজ্জাতটার অত্যাচারে শহীদ হয়ে যাবো নির্ঘাত।।তারপরের দিন খবরের কাগজে বের হবে “এক খাটাসের অত্যাচারে শহীদ হলো সাহসী নারী রোদেলা”।।।😒,,বিছানায় উঠে বসে উনার দিকে তাকালাম,,,উনার ওই কালচে লাল ঠোঁটগুলো অলওয়েজ আমার জন্য একটি আকর্ষনের বস্তু।।।একটু ভেবে আমি উনার ঠোঁটের দিকে এগিয়ে গেলাম,,উনার ঠোঁটগুলোকে আজ বেশ করে ছোঁয়ে দিতে ইচ্ছা করছে।।।কিন্তু ওই যে ফাটা কপাল আমার,,,উনার ঠোঁটের কাছে মুখ আনতেই হঠাৎ উনি চোখ খোলে তাকালেন,,,

#চলবে…

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *