তোকে চাই || সিজন -২ || Part_2 ❤ নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤

তোকে চাই❤ (সিজন -২)

writer : নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤
part: 2

তোকে চাই সিজন ১ সকল পর্ব

তোকে চাই সিজন ২ সকল পর্ব 

💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔

কি ব্যাপার?(ভ্রু কুচঁকে)
.
কোনো ব্যাপার না।(শয়তানী হাসি দিয়ে)
.
তাহলে আমাদের মতো মাসুম মেয়েদের এভাবে ঘিরে বসেছেন কেন??
.
আমার কথায় সবকটা হুহা করে হেসে উঠলো।।ওদের মধ্যে ফর্সা করে একটা ছেলে বলে উঠলো…
.
দোস্ত?এরা নাকি মাসুম।।তো এই মাসুম বান্দীদের নিয়ে কি করা যায় বল তো।(বাঁকা হেসে)
.
সাহেল?তোর কি মনে হচ্ছে না আমাদের ব্যাপারটা সেলিব্রেট করা দরকার।।আমরা যে কতোটা লাকি সেটা তো ভার্সিটির সবাইকে জানাতে হবে।।দুইটা মাসুম,, ধোয়া তুলশিপাতা পেয়ে তো আমরা ধন্য,,কি বলিস?
.
অবিয়েসলি দোস্ত।আমাদের লাক দেখে আমার এতো খুশি লাগছে যে খুশির চোটে আইটেম সং দেখতে ইচ্ছে করছে।।
.
পাশের ছেলেগুলোও চেঁচিয়ে উঠলো,,তারমানে সাহেল নামক ছেলেটার সাথে তারাও একমত।।আমি ব্যাপারটা ঠিক বুঝে উঠতে পারছি না।।এরা আমার সাথে ঠিক কি করতে চাইছে এবং কতটুকুই বা করতে চাইছে??তা আমার বোধগম্য হচ্ছে না তবে এটা বুঝতে পারছি ভয়ঙ্কর কিছু একটা ঘটবে আমার সাথে আর তা এখনই।।চিত্রা আমার দিকে অসহায় দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে৷ ওকে দেখে মনে হচ্ছে সে যেকোনো সময় ভ্যা ভ্যা করে কেঁদে উঠবে।।আমি চোখটা সরিয়ে সামনের দিকে তাকালাম,ভয় একটা ছোঁয়াচে রোগ।কারো হাসি দেখলে যেমন হাসি পায় ঠিক তেমনি কাউকে ভয় পেয়ে কাঁপা-কাঁপি করতে দেখলে নিজের মধ্যেও একটা কাঁপা-কাঁপি ভাব চলে আসে।।তাই এই মুহূর্তে চিত্রার দিকে না তাকানোটাই উত্তম বলে আমি মনে করছি।।ভাবনার সুতো কেটে পাশের টপস,জিন্স পড়া মেয়েটা কথা বলে উঠায় চোখ ঘুরিয়ে বামপাশে তাকালাম।।মেয়েটা বেশ গোছালো। বাঙালি মেয়েদের দেখলেই এক অজানা কারনেই মনে হয়… নাহ্ হয়তো শাড়িতেই মেয়েটাকে বেশি সুন্দর লাগবে।।কিন্তু আশ্চর্যকর বিষয় হলো এই মেয়েটাকে দেখে আমার তেমন কিছু মনে হচ্ছে না।।।মেয়েটাকে দেখে মনে হচ্চে শাড়ি নয় এই ড্রেসটাতেই তাকে বেশি মানিয়েছে।।এই ড্রেসটা না পড়লে যেনো মেয়েটাকে মানাতো না।।এটাই তার জন্য সর্ব্বোচ্চ পোশাক।।মেয়েটা আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসি দিয়ে বলে উঠলো…
.
শুভ্র?তুই আমাদের লিডার তো আমাদের সামান্য ইচ্ছে পূরণ করবি না??বেচারা সাহেল আইটেম সং দেখতে চাচ্ছে সো তোর উচিত ব্যবস্থা করা।।দেখ না,ছেলেটার মুখটা কি শুকিয়ে গেছে।।
.
কথাটা বলেই সবাই একসাথে হেসে উঠলো।।সবাই কে চুপ করার ইশারা করে শুভ্র ভাইয়া সানগ্লাসটা খুলে টেবিলে রেখে শয়তানী হাসি দিয়ে বলে উঠলো…
.
অবিয়েসলি নীলি তোরা চাইবি আর আমি পূরন করবো না তাই কি হয়??তাছাড়া আজ তো গ্র্যান্ড সেলিব্রেশনের দিন।।এতো ইনোসেন্ট দুইটা বাচ্চা পাইছি।।যারা নাকি গেইট দিয়ে ঢুকতেই সিনিয়রের গায়ে হাত তুলে।।ভাবা যায়??সেলিব্রেশন তো হবে দোস্ত।।
.
কথাগুলো আমার দিকে তাকিয়ে বলেই জোড়ে চেচিয়ে রনি নামে কাউকে ডাকলেন।।উনার এই ডাকেই কেনো জানি আমার অন্তর আত্মা কেঁপে উঠলো খানিকটা।।পরক্ষনেই পাশে এসে দাঁড়ালো হ্যাংলা পাতলা একটা ছেলে।।
.
জি ভাই?
.
বক্স নিয়ে আয় ফাস্ট
.
জি ভাই
.
ছেলেটা যতো দ্রুত এসেছিলো তার থেকেও দ্রুত পা চালালো।।যেনো এই কাজটা সম্পন্ন না করতে পারলে পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যেতে পারে যা ছেলেটা কিছুতেই হতে দিতে পারে না।।আমি চুপচাপ বসে আছি।।গলা শুকিয়ে কাঠ,,, ইচ্ছে করছে ফ্লোরে বসে পা ছড়িয়ে কাঁদি।।এই ভার্সিটিতে জীবন যে আমার নরকে পরিনত হবে তা বেশ বুঝতে পারছি আমি।এত্তো কিউট একটা ছেলে যে এত্তো ডেঞ্জারাস হতে পারে কে জানতো??কিছুক্ষণের মধ্যেই হ্যাংলা ছেলেটা একটা বিশাল সাউন্ড বক্স এনে পাশের টেবিলের উপর রেখে দিলো।।শুভ্র ভাইয়া শরীরটা টানা দিয়ে চেয়ারে আরাম করে বসে আমাকে উদ্দেশ্যে করে বলে উঠলেন….
.
হেই হোয়াটস ইউর নেইম??
.
রররোদ…(জড়ানো গলায়)
.
হোয়াট?রররোদ কারো নাম হয় নাকি?(ভ্রু কুচঁকে)
.
রররোদ নয় রোদ।(মুখ ফুলিয়ে)
.
আমার কথাটা শুনেই শুভ্র ভাইয়া চোখ মুখ কুঁচকে বলে উঠলেন….
.
হোয়াট? রোদ??হেই গাইস শীতের দিকে একে একটু কাছে কাছে রাখতে হবে তাহলে আর টাকা খরচ করে সুয়েটার কিনতে হবে না, কি বলিস??
.
উনার কথায় আবারও সবাই হুহা করে হেসে উঠলো।।একজন তো বলেই ফেললো…” দোস্ত আমি তো ভাবছি শীতের রাতে একে সাথে করেই নিয়ে যাবো।।আরে রাতে রোদ পাওয়ার ভাগ্য সবার হয় নাকি??” এবার আমার চোখদুটো টলমল করে উঠলো।।এতোটা অপমানিত এই জীবনে কখনো হয়েছি বলে মনে হয় না।।এই একদিনেই আমার অবস্থা যে এমন হবে জানলে কখনো ভার্সিটিতে ভর্তিই হতাম না।।উনাদের হাসাহাসি শেষ হলে শুভ্র ভাইয়া আবারও আমাকে উদ্দেশ্য করে বলে উঠলেন।।
.
হেই সানশাইন।।মাথা নিচু করে বসে আছো কেন??উপরের দিকে তাকাও।।তো..তোমার নাম শুধুই সানশাইন??আই মিন শুধু রোদ?আগে পিছে ঝর বৃষ্টি কিছু নেই??
.
আমি কোনোরকম নিজের কান্না আটকিয়ে কিছু একটা বলতে যাবো তখনই পাশ থেকে একজন বলে উঠলো…”দোস্ত জিজ্ঞেস কর তো নামের আগে পিছে ঠাডা, বজ্রপাত কিছু আছে কি না??”উনার কথায় আবারও সবাই একপত্তন হেসে নিয়ে আমার দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলো…” পুুরো নাম কি?”
.
নৌশিন আহমেদ রোদেলা।(মাথা নিচু করে)
.
রো-দে-লা??(টেনে টেনে)
.
নট বেডডড।।এনিওয়েস ঝটপট টেবিলের উপর দাঁড়িয়ে পড়ো।।ফাস্ট ফাস্ট
.
আমি অবাক চোখে মাথা তুলে উনার দিকে তাকিয়েই বলে উঠলাম -“কেন???'”সাথে সাথে আবারও হেসে উঠলো সবাই।।ডানপাশে বসা লং স্কার্ট পড়া মেয়েটা আমার জুটি করে রাখা চুলগুলো একটানে খুলে দিয়ে বলে উঠলেন…”দোস্ত?এই মেয়ের এতো দেখি ব্যাপক কিউরিওসিটি রে।।আমাদের প্রশ্ন করে।।কি করা যায় একে??”
.
আন্সারটা দিয়েই দে।।আচ্ছা আমিই বলছি,,এই যে সানশাইন…তোমাকে এই টেবিলের উপর উঠে আনটেম সং এর সাথে ডান্স করতে হবে।।এক্চুয়েলি আমার ফ্রেন্ডসদের আইটেম সং দেখতে ইচ্ছে করছে সো স্টার্ট করো।(শয়তানী হাসি দিয়ে)
.
উনার কথাটা শুনে মাথাটা যেন ঘুরে গেলো আমার।।বলে কি এই ছেলে?পুরো ভার্সিটির সামনে আমি টেবিলের উপর আইটেম সং এ নাচবো??পাগল নাকি??
.
দদদেখুন আআমি নাচ পারি ননা।
.
না পারলেও সমস্যা নেই।।নাচতে নাচতে শিখে যাবে।।তাছাড়া তুমি চাইলে আমার পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলেগুলোও তোমায় সঙ্গ দিতে পারে….কি লাগবে??
.
দেখুন আমি নাচবো না।আর আপনার কথা শুনতে আমি বাধ্য নই।।ভার্সিটিতে রেগিং এলাউড নয় ,, আপনারা বেশি বাড়াবাড়ি করলে আমি ভিসি স্যারকে জানাতে বাধ্য হবো।।
.
আমার কথায় আবারও হেসে উঠলো সবাই।।তারমধ্যে পাশে বসা আপুটি আমার চুলগুলো শক্ত করে চেপে ধরে মাথাটা একটু তুলে ধরলো…ব্যাথায় কুকিয়ে উঠলাম।।কিন্তু তাতে মেয়েটার কোনো ভাবান্তর হলো বলে মনে হচ্ছে না।।বরং আরো শক্ত করে চেপে ধরে দাঁতে দাঁত চেপে বলে উঠলেন….
.
ভিসি স্যার,,রেগিং হোয়াটএভার এসব তোমার “আবরার আহমেদ শুভ্র” এর গায়ে হাত তোলার আগে চিন্তা করা উচিত ছিলো খুকি।।নাও ইউ আর গন।
.
কথাটা বলেই টেবিলে থাকা পানিভর্তি জগের পানিগুলো ছুঁড়ে মারলেন আমার গায়ে।।এমন কিছুর জন্য তৈরি ছিলাম না আমি।।জামাটা পুরো ভিজে একাকার।।ঠান্ডায় শরীরটা হালকা কেঁপে কেঁপে উঠছে।।এবার আর নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারলাম না।।চোখ থেকে ঝরে পড়লো দু’ফোটা জল।।তার সাথে চেপে বসলো জেদ।।জেদের বশেই করে ফেললাম আরেকটা মারাত্মক ভুল।।হাতের কাছের গ্লাসের পানিগুলো ছুঁড়ে মারলাম শুভ্র ভাইয়ার মুখে।আমি এমন কিছু করবো তা হয়তো চিন্তাই করতে পারে নি কেউ।।চিত্রাকে দেখলাম মুখ চেপে ধরে আছে,, ওর চশমার উপর দিয়েও বুঝা যাচ্ছে ও কাঁদছে।।কয়েকমিনিটে পুরো ক্যান্টিন অস্বাভাবিক রকম শান্ত হয়ে গেলো যেনো ঝড় আসার পূর্ব নীরবতা চারপাশে।।হঠাৎ করেই প্রচন্ড শব্দে চমকে উঠলাম আমি।।শরীরটা ভয়ে কুঁচকে গেছে একদম।।অবাক চোখে সামনের দিকে তাকাতেই দেখি আমার সামনের টেবিলটা আর নেই।।ওটা ছিটকে পড়ে আছে আমাদের থেকে একটু দূরে,,আর শুভ্র ভাইয়া চোখ মুখ লাল করে দাঁড়িয়ে আছেন।।ভয়ে আমার প্রাণপাখি রীতিমতো উড়াউড়ি শুরু করে দিয়েছে।।আমার ভয়টাকে আরো দুইগুণ বাড়িয়ে দিয়ে উনি একহাত আমার চেয়ারের হাতলে রেখে অন্যহাতে গাল চেপে ধরলেন আমার।।উনার লাল লাল চোখগুলোর দিকে তাকানোর সাহস খুঁজে পাচ্ছিলাম না যেনো।।কি ভয়ানক দুটি চোখ।।উনি গম্ভীর গলায় দাঁতে দাঁত চেপে বলে উঠলেন…
.
হাউ ডেয়ার ইউ??এতো সাহ..
.
এটুকু বলেই আমার শরীরের দিকে তাকালেন উনি।।কয়েক সেকেন্ড তাকিয়ে রইলেন একদৃষ্টে পরক্ষণেই আমায় ছেড়ে দিয়ে ঘুরে দাঁড়ালেন উনি।।গায়ের জ্যাকেটটা খুলে আমার উপর ছুঁড়ে ফেলে,,”কাল ওর ক্লাস নেবো” কথাটা বলেই বন্ধুদের নিয়ে বেরিয়ে গেলেন উনি।।চারপাশের সবাই আমার দিকে অদ্ভুতভাবে তাকিয়ে আছে আর মেয়েরা ফিসফাস করে চলেছে।।ব্যাপারটা বুঝতে না পেরে নিজের দিকে তাকিয়েই লজ্জায় কুকড়ে উঠলাম আমি।।পানিতে ভেজা সাদা জামায় শরীরের প্রতিটা ভাজ স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে।।ছিহ্ কি লজ্জার ব্যাপার,,তাই তো ছেলেগুলো মুখের লালা ফেলে এভাবে আমার দিকে তাকিয়ে আছে।।ভাবতেই শরীরটা ঘিনঘিন করে উঠলো…লজ্জায় আর অপমানে চোখ দিয়ে পানি পড়তে লাগলো অনবরত।।ঠিক তখনই পাশ থেকে চিত্রা ভাঙা ভাঙা গলায় বলে উঠলো…..
.
ররোদ?জ্যাকেটটা শরীরে জড়িয়ে নে সসব বুঝা যাচ্ছে খুবই বিশ্রী দেখাচ্ছে।।এজন্যই হয়তো শুভ্র ভাইয়া জ্যাকেটটা দিয়ে গেলো তোকে।।
.
আমিও আর কিছু না ভেবে জ্যাকেটটা পড়ে নিলাম।।এছাড়া আর কোনো অপশন আমার কাছে নেই।।এই অবস্থায় ভার্সিটি গেইট পর্যন্ত যাওয়া মৃত্যু যন্ত্রনার চেয়ে কম কিছু নয় বরং তার চেয়েও বেশি।।জ্যাকেটের চেইন লাগাতে লাগাতে আবারও বলে উঠলো চিত্রা…
.
আবারও একই ভুল করলি রোদ।।পানি মারার ছিলো তো আমার মুখে মারতি।।শুভ্র ভাই কেই মারতে হলো??এবার কাল যে তোর সাথে কি হবে সেটা ভেবেই হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসছে আমার।।
.

আমিও বুঝতে পারছি আবারও ভয়ানক একটা কাজ করেছি আমি।।এর পরিনতি কি হতে পারে ভেবেই গলা শুকিয়ে আসছে বারবার।।
.
.
🍁
.
.
কোনোরকম মুখ লুকিয়ে বাসায় ঢুকে গেলাম আমি।।মার সামনে পড়তে হয় নি ভেবে স্বস্তির নিশ্বাস ফেললাম।। মার সামনে পড়লেই হাজারও প্রশ্নে জড়জড়িত হতে হতো আমাকে।গায়ের জ্যাকেট কার?আমার এই অবস্থা কেন?হেন তেন কতো কিছু।।তারপর সবশুনেই শুরু হতো উনার টেনশন নামক পীড়া তারসাথে প্যাশার আপ ডাউন।।এক্সট্রা ঝামেলা!!! মা নামক মানুষগুলো এমনি হয়,,,এদের টেনশন না করলে পেটের ভাত হজম হয় না।।সিম্পল বিষয়গুলো নিয়েও উনারা খাওয়া-নাওয়া বাদ দিয়ে টেনশন করতে বসে যাবেন।।আর এটা তো সিরিয়াস ইস্যু।।রুমে ঢুকে কোনোরকম শাওয়ার নিয়েই বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম।।আজকের দিনটা আমার জীবনের সবচেয়ে বাজে দিনগুলোর তালিকায় প্রথম।।আর শুভ্র নামের মানুষটা ভালো লাগা আর খারাপ লাগার মাঝে বিরক্তিকর একটা পার্সোনালিটি যাকে আমি ইহকালে দ্বিতীয়বার দুচোখ মেলে দেখতে চাই না।।কখনো না।।
.
.
#চলবে🍁

হঠাৎ বিয়ে Part-1

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *