তোকে চাই || সিজন -২ || Part_7 ❤ নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤

তোকে চাই❤ (সিজন -২)

writer : নৌশিন আহমেদ রোদেলা❤
part: 7

তোকে চাই সিজন ১ সকল পর্ব

তোকে চাই সিজন ২ সকল পর্ব 

💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔💔

.
ডান হাতটা আমার কাঁধের উপর দিয়ে সেল্ফের উপর রেখে বাম হাতটা পকেটে গুঁজে আমার দিকে ঝুঁকে দাঁড়িয়ে আছেন শুভ্র ভাইয়া।।চোখে রাগ স্পষ্ট।সাহস আমার অনেক আছে কিন্তু কোনো ছেলে এতেটা কাছে দাঁড়িয়ে থাকলে সাহসরাও হতাশ হতে বাধ্য ।কোন রকম ঢোক গিলে বলে উঠলাম….
.
আআপনি?
.
শুভ্র ভাইয়া ডেবিল মার্কা হাসি দিয়ে আমার দিকে তাকালেন।।উনার এই হাসিতেই আমার কাঁপা কাপি অবস্থা।শুভ্র ভাইয়ার কাঁধের উপর দিয়ে চোখ যেতেই দেখি উনার পুরো গ্যাং পেছনে দাঁড়িয়ে।। উনি বাঁকা হাসি দিয়ে আমার সামনের একটা টেবিলে বসে চেয়ারে পা রাখলেন।সিল্ক চুলগুলোতে আঙ্গুল চালিয়ে ঠিক করে নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে বলে উঠলেন…
.
তোমার সাহস দেখে আমি হতবাক।আমার গাড়ি নষ্ট করার মতো দুঃসাহস তোমার হলো কি করে??
.
উনার কথায় কেঁপে উঠলাম,,এই যাহ!! বুঝে গেলো?কিন্তু কিভাবে বুঝলো??এরা কি এখন আমায় দুলাই দেবে নাকি?কাঁপা কাঁপা হাতে ওড়না ঠিক করতে করতে এদিক ওদিক তাকালাম..একটা ঢোক গিলে নিয়ে উনার চোখের দিকে তাকিয়ে বললাম…
.
আপনার গাড়ি আমি কেনো নষ্ট করতে যাবো.?আর আমি করেছি তার কোনো প্রমান আছে আপনার কাছে??
.
আমার কথায় হুহা করে হেসে উঠলেন উনি।আবারও আমার সামনে দাঁড়িয়ে বলে উঠলেন…
.
তোমার কি মনে হয়?আমি পলিটিক্যাল লিডার হয়েছি এমনি এমনি?তোমার এই ছোট খাটো কূটনীতি আমার জন্য দুধ ভাত।।গেইটের পাশে যে একটা সিসি টিভি ক্যামেরা আছে খেয়াল করেছো??(ভ্রু নাচিয়ে,শয়তানী হাসি দিয়ে)
.
উনার কথার কোনো উত্তর আমার কাছে নেই।।আমি যে এভাবে ফেঁসে যাবো ভাবতেও পারি নি।তবুও জোড় গলায় বলার চেষ্টা করলাম….
.
দদদেখুন…
.
উনি হঠাৎ আরো একটু এগিয়ে এসে মুখের সামনে মুখ এনে বলে উঠলেন, “হোয়াট?” উনার এভাবে কাছে আসায় ভয় পেয়ে গেলেও একটা বিষয়ে বেশ অবাক হলাম আমি। উনি আমার এতোটা কাছে দাঁড়িয়ে থেকেও একটাবারও আমায় টাচ করেন নি।।উনার হাতের একটু স্পর্শও আমার গায়ে লাগছে না।।উনি ফু দিয়ে আমার সামনের চুলগুলো উড়িয়ে দিয়ে আবারও চেয়ারে বসে পড়লেন।।ঠোঁটে ভয়ংকর হাসি ঝুলিয়ে বলে উঠলেন…
.
তোমাকে খুব কঠিন শাস্তি পেতে হবে রোদেলা।আমার সাথে পাঙ্গা নিতে আসলে বাঁচাটা যে খুব কঠিন হয়ে যায় জানো এটা??
.
উনার কথার কি উত্তর দিবো ভেবে পাচ্ছি না।।উনার লাল চোখের দিকে তাকিয়ে কিছু একটা বলতে যাবো ঠিক তখনই সাহেল ভাইয়া বলে উঠলেন…
.
ছেড়ে দে না শুভ্র।বাচ্চা মেয়ে না বুঝে করে ফেলেছে একটা ভুল।লেট হার গো।।তোর কার সার্ভিসিং এ যত টাকা লাগছে আমি দিয়ে দিচ্ছি তবু ওকে যেতে দে।
.
আমি অবাক চোখে সাহেল ভাইয়ার দিকে তাকিয়ে আছি।এর আবার কি হলো হঠাৎ?? শুভ্র ভাইয়া রাগী চোখে উনার দিকে তাকিয়ে বলে উঠলেন…
.
এতো দরদ ওর জন্য তোর?তুই আমাকে টাকা দেখাচ্ছিস সাহেল??মনে রাখিস টাকা তোর থেকে আমার কম নেই।।টাকা আমার যথেষ্টই আছে যা নেই তা হলো মনের শান্তি।।আর এই মেয়েকে শাস্তি দিলেই সেই শান্তিটা পাবো।। সো গাইস??ওকে কি শাস্তি দেওয়া যায় বল তো??
.
শুভ্র প্লিজ ছেড়ে দে।।ছোট্ট একটা মেয়ে,,ওর সাথেও তোর জেদ করতে হবে??শাস্তি দিবি তো? ওকে তাহলে একটা কাজ কর…আমাদের এসাইনমেন্ট গুলো ওকে করতে দিয়ে দে।।ওর জন্য ওটাই সবচেয়ে কঠিন শাস্তি হবে।।ট্রাস্ট মি!!
.
কিহ?আমি কি মুর্খ যে আমার এসাইনমেন্ট অন্যকেউ করবে?(রাগী গলায়)
.
আচ্ছা তোরটা তুইই কর। তুই তো আবার মহাঞ্জানী সানশাইনকে বরং আমাদের ছয়জনেরটা দিয়ে দে। ফার্স্ট ইয়ারের স্টুডেন্টের জন্য মাস্টার্সের ছয় ছয়টা এসাইনমেন্ট করা অসম্ভব তাও আবার একরাতে।।তোর কি মনে হয়? এর থেকে কঠিন শাস্তি আর কিছু হতে পারে??
.
শুভ্রর মুখ দেখে মনে হচ্ছে সাহেল ভাইয়ার বুদ্ধিটা তার তেমন একটা মনে ধরে নি।।তবুও সবার কথায় মেনে নিলো সে।।আমাকে শেষ বারের মতো ওয়ার্নিং দিয়ে চলে যাওয়ার আগ মুহূর্তে আবারও ফিরে তাকিয়ে গলায় থাকা কামড়ের দাগটাকে লক্ষ করে বলে উঠলেন…
.
রোমান্স কিছু কমিয়ে করো।এভাবে স্ট্যাম্প লাগিয়ে ঘুরলে মানুষ পতিতালয়ের বাসিন্দা ভাববে(তাচ্ছিল্যের হাসি দিয়ে)নাকি তুমি ওই জায়গারই?হতেও পারো।
.
কথাটা বলেই উনি হনহন করে বেরিয়ে গেলেন লাইব্রেরি থেকে।।এতো সুন্দর একটা ছেলের কথাগুলো এতোটা তিক্ততাপূর্ণ কি করে হতে পারে?দিনে তিনবেলা করলার জুস খায় নাকি??তিতা করলা কোথাকার।।উনার কথাটা শুনে কান্না পাচ্ছে আমার।শুধু শুধু কান্না নয় ফ্লোরে পা ছড়িয়ে মরাকান্নার মতো কান্না করতে ইচ্ছে করছে।।এই ছেলেটা কতো সহজে আমার চরিত্র নিয়ে কথা বলে গেলো?? মেনার্সহীন বুইড়া।শুধু গলায় কেন দরকার পড়লে সারা শরীরে স্ট্যাম্প লাগিয়ে ঘুরবো তাতে তোর বাপের কি??ইডিয়ট।লাইব্রেরিতে মাস্টার্সের বইয়ের পাতা উল্টাচ্ছি আর উনার বলা কথাগুলো ভেবে চোখের পানি ঝরাচ্ছি।মানুষ কতোটা খারাপ হতে পারলে এভাবে বলতে পারে,সেটাই ভাবছি।।উনার কথা শুনে মাঝেমাঝে মনে হয়,আমাকে অপমান করার জন্যই পৃথিবীতে জন্ম নিয়েছেন উনি।।একঘন্টা যাবৎ পাতা উল্টিয়েও এদের বইয়ের আগা মাথা কিছুই বুঝলাম না ।।মাথাটা পুরাই হ্যাং মেরেছে বলে মনে হচ্ছে।।এটা যে আমার পক্ষে সম্ভব না তা এতোক্ষণে বেশ বুঝা হয়ে গেছে।।ইনোসেন্ট মার্কা অসহায় ফেস নিয়ে বইয়ের উপর মাথা রেখে আকাশ পাতাল চিন্তা করছি।।এভাবে টেবিলে মাথা রেখেই যে কখন ঘুমের সাগরে পাড়ি জমিয়েছি খেয়ালই ছিলো না….কতোক্ষন ঘুমিয়েছি জানি না তবে কোনো পরিচিত ছোঁয়ায় ঘুম ভাঙলো আমার।।চোখ মেলে দেখলাম চারপাশে কেউ নেই।।আমি একা বসে আছি পুরো লাইব্রেরিতে।।হাই তুলতে তুলতে সামনের দিকে তাকাতেই একটা খাতার দিকে চোখ পড়লো।।সামনে রাখা একটা খাতার মাঝ বরাবর আটকানো একটা লাল রঙের কাগজ।কাগজটা নিতে গিয়ে খাতাটা খুলেই অবাক হলাম আমি।।খাতাটায় এসাইনমেন্টটা করা!!!কিভাবে সম্ভব?হাতের লাল কাগজটাই চোখ বুলালাম…সেখানে গুঁটি গুঁটি অক্ষরে লেখা-“আমার ঘুমন্ত পরী,,এইযে প্রতিদিন নতুন নতুন ভাবে তোমার নেশায় জড়াচ্ছো আমায়।।পরে সামলাতে পারবে তো???” একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে বাকি খাতাগুলো চেক করলাম।নাহ্,, শুধু একটাই করা।।বাকিগুলো একদম ফাঁকা।। তবুও আমার খুশি দেখে কে।।এই এসাইনমেন্ট টা কপি মারলেই তো হয়ে গেলো থেংক গড যে আমায় এই মোটা মোটা বইগুলো পড়তে হবে না।।তবু সবশেষে একটা চিন্তা থেকেই যায়,,কে সে ব্যাক্তি??কালকের লোকটা আর আজকের লোকটা যে সেইম তা বেশ বুঝতে পারছি আমি।।কিন্তু কে হতে পারে তা কিছুতেই বোধগম্য হচ্ছে না।।উফফ কালকে যাকে গালি দিয়েছি আজকে তাকে এতোটাও খারাপ মনে হচ্ছে না একটা থেংক্স দিলেও দেওয়া যেতে পারে।।।চিত্রাকে ইমোশনাল ব্লেকমেইল করে,,ভাইয়াকে ঘুষটুস দিয়ে,, তিনজনে মিলে পাঁচটা খাতার এসাইমেন্ট শেষ করলাম রাত ৪ টায়।।লিখতে লিখতে হাতের অবস্থা শেষ।ব্যাটা খাটাস!!তোর বউ ভেগে যাবে দেখে নিস।।মাসুম বাচ্চার উপর এতো টর্চার আল্লাহর সহ্য হবে না হুহ।।দেরিতে ঘুমাতে যাওয়ায় ঘুম ভাঙতে ভাঙতে ৯ টা।যার ফলাফল, আজকেও প্রথম ক্লাসটা মিস।তাড়াহুড়ো করে ভার্সিটি গেলাম আমি আর চিত্রা।।গেইটের সামনের পার্কিং এর পাশে বটতলায় আড্ডা দিচ্ছে শুভ্র ভাইয়ার গ্যাং।।দ্রুত পায়ে এগিয়ে গেলাম সেদিকে।।আমাদের দেখেই একটু নড়ে চড়ে বসলো শুভ্র ভাইয়া।।বাইকের উপর বসে ছিলেন উনি এবার নেমে এসে হেলান দিয়ে হাত ভাজ করে দাঁড়ালেন।।উনাকে দেখে মনটা আপনা আপনিই বলে উঠলো,, বাহ!!লোকটি কি সুন্দর করে দাঁড়াতে পারে।।উনি আজ কফি কালার একটা শার্ট পড়েছেন।।শার্টের হাতা কনুই পর্যন্ত গুটানো।।পরনে হোয়াইট জিন্স।হালকা ব্রাউন সিল্কি চুলগুলো খুব গুছিয়েই পড়ে আছে উনার কপালে।।ডান হাতে ব্রেন্ডেট ঘড়ি,, বাম হাতে ব্ল্যাক ব্রেসলেট টাইপ কিছু একটা পড়ে আছেন।।দুধসাদা শরীরে কফি কালার রঙটাকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ রং বলে মনে হচ্ছে আমার।।চিত্রার খোঁচা আর ফিসফিস কথায় এসব কল্প কাহিনী বাদ দিয়ে মাথা নিচু করে ওর দিকে আড়চোখে তাকালাম….
.
দোস্ত…শুভ্র ভাইয়াকে পুরো চকলেট বয় লাগছে রে।।ইচ্ছে তো করছে…(ফিসফিস করে)
.
তোর ইচ্ছে কে পুটলিতে বন্ধ করে রেখে দে।অন্যের বরের দিকে খারাপ নজরে তাকাস বদ মাইয়া।(দ্বিগুন ফিসফিসিয়ে)
.
আরে…অন্যের বর আগেই কেমনে বলিস?আমারও তো হতে পারে।।
.
আমি কিছু বললাম না শুধু একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললাম,, হ্যা হতেও পারে।।চিত্রার মতো সুন্দরী মেয়ের জন্য এটা অবিশ্বাস্যকর কিছু না।।আমি মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে আছি ঠিক তখনি শুভ্র ভাইয়া শান্ত কন্ঠে বলে উঠলেন..
.
তোমাদের ফিসফাস শেষ?এবার ওদের এসাইনমেন্ট টা দিয়ে বিদেয় হও।
.
আমি ব্যাগ থেকে খাতাগুলো বের করে এগিয়ে দিতেই পাশ থেকে একটা ছেলে হাত বাড়িয়ে নিয়ে নিলো।।সেখান থেকে একটা খাতা এগিয়ে দিলো শুভ্রর দিকে।।শুভ্র খাতাটা নিয়ে খুব মনোযোগ দিয়ে পড়তে লেগে গেলো।।আর আমার চোখ খুব মনোযোগ দিয়ে তাকে দেখতে লেগে গেলো।।উনার ডার্ক পিংক ঠোঁট দুটো একটা আরেকটার সাথে চেপে ধরে খাতার দিকে তাকিয়ে আছেন উনি।।গভীর শান্ত চোখগুলোর ঘন পাপড়ি একটু পড় পড় কেঁপে কেঁপে উঠছে।।আমি উনার মুখের দিকে একদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি উনি খাতা থেকে একবার চোখ তুলে আমাকে দেখে নিয়ে আবারও খাতায় মুখ ডুবালেন।।উনার চাহনী টা কি স্বচ্ছ।।আচ্ছা মানুষ এতোটা পার্ফেক্ট কি করে হতে পারে?হাউ??হঠাৎই থুতনির কাছের তিলটা নাড়িয়ে কথা বলে উঠলেন উনি,,,
.
সাহেল?হেল্প যখন করেছিসই লুকিয়ে করার দরকার ছিলো না।।সামনাসামনিই করতে পারতি।।
.
মানে কি?(অবাক হয়ে)
.
মানেটা খুবই পরিষ্কার সাহেল।ফাস্ট ইয়ারের কোনো স্টুডেন্টের পক্ষে মাস্টার্সের এসাইনমেন্ট করা যে সম্ভব নয় তাও আবার একরাতে তা তুই এবং আমরা সবাই বেশ ভালো করেই জানি।।তবু এই মেয়ে করেছে।বলতে গেলে বেশ গুছিয়েই করেছে।এখন প্রশ্ন হলো কিভাবে করেছে?উত্তরটা হলো সাহেল তুই ওকে হেল্প করেছিস।।ওর প্রতি তোর প্রেম, দরদ সব আমাদের আগে থেকেই জানা সাহেল।। সো ড্রামা কমিয়ে কর।
.
আরে আমি কেন করতে যাবো হেল্প? ও আমার বউ না গার্লফ্রেন্ড?
.
তোর বেডরুমের খবর তো আমার জানার কথা না সাহেল…
.
কথাটা শুনে শান্ত দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম উনার দিকে।ছিহ্…মানুষের মনমানসিকতা কতোটা নিচু স্তরের হতে পারে তার উজ্জল দৃষ্টান্ত উনি।চিত্রাও অবাক চোখে তাকিয়ে আছে।।সাহেল ভাইয়াও বেশ অপ্রস্তুত ফিল করছেন বলেই মনে হচ্ছে।শুভ্র ভাইয়া এমন কিছু বলবে ভাবতে পারেন নি উনি।।কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে রাগী গলায় বলে উঠলেন উনি…
.
শুভ্র?এবার লিমিট ক্রস করছিস তুই?
.
এখন কি এই মেয়ের জন্য আমার সাথে ঝগড়া করবি?নাকি আমার সাথে যাবি? অনেক কাজ আছে।
.
কথাটা বলে হাতের খাতাটা সাহেল ভাইয়ার হাতে ধরিয়ে দিয়েই সানগ্লাসটা চোখে দিয়ে হাঁটা দিলেন উনি।একটু পর তার পিছু নিলেন সবাই।সাহেল ভাইয়াও আমার দিকে একটা নীরব দৃষ্টি নিক্ষেপ করে চলে গেলেন নিজের গন্তব্যে।। আমি জাস্ট দাঁড়িয়ে আছি।।মাথাটা ফাঁকা ফাঁকা লাগছে।।এখানে ভর্তি হওয়ার পর যেসকল কথা আমায় শুনতে হচ্ছে তা হয়তো এই ১৮ টা বছরে আর কখনো শুনতে হয় নি।।
.
.
আজ ভার্সিটিতে অরিনটেশন।।সবাইকে বড় আপুরা শাড়ি পড়ে যেতে বলেছেন।।আমি আর চিত্রা নীল শাড়ি পড়বো।।আমার রেডি হওয়া শেষ, তেমন কিছুই করিনি।।শাড়ি পড়ে, চুলগুলো খোলে দিয়ে চোখে হালকা কাজল আর ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক লাগিয়েছি ব্যস!!মেকাপ জিনিসটা আমার জন্য আস্ত একটা বিরক্তির বিষয়।।সবকিছু কমপ্লিট করে যেই না বের হবো তখনই চিত্রা মুখ ফুলিয়ে আমার বাসায় এসে হাজির।।শাড়িটাও পড়ে নি সে…দেখেই মেজাজটা গরম হয়ে গেলো আমার।৯ঃ৩০ বেজে গেছে প্রায় আর সে এখনও তৈরিই না।।এই হারামির জন্য আজ আবারও রেগ খেতে হবে আমাদের।।ওর দিকে ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে রাগী গলায় বলে উঠলাম….
.
কি সমস্যা তোর??শাড়ি পড়িস নি কেনো??
.
আমি যে শাড়ি পড়তে পারি না জানিস না তুই?বকবি না একদম। অনেক চেষ্টা করেছি বাট হচ্ছেই না(চশমা ঠিক করতে করতে)
.
বকবো না ঠাডায় চড় লাগাবো।। ফাজিল মেয়ে।।এদিকে আয় তাড়াতাড়ি।
.
আমি ওকে শাড়ি পড়াচ্ছি আর ও বকবক করছে।। ওর একমাত্র চিন্তার বিষয় হলো সে শাড়ি পড়ে হাঁটতে পারে না যদি স্টেজে গান গাইতে উঠার পর সবার সামনে শাড়ি খুলে পড়ে যায় তখন কি হবে??ওর এসব ফাউল পেচালে বিরক্ত হয়ে শান্ত গলায় বলে উঠলাম….
.
কি আর হবে?সবাই আনন্দে আত্মহারা হয়ে সিটি বাজাবে।
.
তুই মজা করছিস?
.
না করছি না।।যা সত্য তাই বলছি।
.
ও আমার দিকে কাঁদো কাঁদো দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে কিন্তু আমি ওকে পাত্তা দিলাম না।।এই মুহূর্তে আমি ওর উপর চরম বিরক্ত।এক তো লেইট করেছে দ্বিতীয়ত ওকে শাড়ি পড়াতে গিয়ে আমার শাড়ির অবস্থা বেকাহিল।।অবশেষে ভার্সিটি পৌঁছালাম।অনেক লেইট হয়ে গেছে বুঝতেই পারছি।তাড়াতাড়ি যে পা চালাবো তার উপায়ও নেই।।চিত্রা এতো আস্তে আস্তে হাঁটছে যেন সে নয় মাসের প্রেগন্যান্ট।যত্তসব।।এই মাইয়াকে এই মুহূর্তে তোলে আছাড় মারতে ইচ্ছে করছে আমার।।হঠাৎ কি মনে করে দাঁড়িয়ে পড়লাম।কপাল কুচঁকে গেলো অটোমেটিকলি।।আমার সিক্সসেন্স বলছে কেউ আড়াল থেকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে আমায় দেখছে।।কিন্তু কে সে??
.
.
#চলবে🍁)

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *