দুষ্ট মিষ্টি প্রেমের গল্প। Romantic Valobasar golpo

গল্পঃ,, দুষ্ট মিষ্টি প্রেমের গল্প

লেখকঃ ইয়াসিন আলী

হঠাৎ করে ফোন আসে সুমির ফোনে রং নাম্বার থেকে
সুমি :- হ্যালো
ইয়াসিন :- হ্যালো; আচ্ছা কে বলছেন আপনি
সুমি :- আপনি কল করেছেন আপনি জানেন না কাকে
কল করেছেন?
ইয়াসিন :- না! ম্যাডাম; আসলে আপনার নাম্বার থেকে
আমার ফোনে মিসকল এসেছিল!
সুমি :- ফালতু কথা বলবেন না ok! আমি কাউকে মিস
কল করি না!
ইয়াসিন :- তাহলে আমাকে কি ভূতে মিস কল করছে!
সুমি :- আপনার হয়তো কোন কাজকর্ম নেই;
এভাবে মেয়েদেরকে বিরক্ত কড়াই আপনার কাজ!
বাপের হোটেলে বসে বসে খান আর এভাবে
মেয়েদের বিরক্ত করেন!
ইয়াসিন :- এই যে ম্যাডাম আপনি নিজেকে কি মনে
করেন? আপনি কি মহারানী ভিক্টোরিয়া নাকি লেডি
ডায়না যে আমি আপনাকে বিনা কারণে ফোন
করতে যাব ভাব কত|
সুমি :- দেখুন একদম ফালতু কথা বলবেন না!
ইয়াসিন :- আমি ফালতু কথা বলছি না! তবে আপনার সাথে
কথা বলে যা মনে হল তাতে বুঝলাম আপনি একটা
ফুটো কলসি’!
সুমি :- কি? ফটো কলসি মানে! কি বলতে চান আপনি?
ইয়াসিন :- মানি আপনার মাথায় ঘিলু নেই; সব ঘিলু ফুটা দিয়ে
বেরিয়ে গেছে! আপনার মাথা গোবর দিয়ে ভর্তি!
সেখানে আলু চাষ করলে বোধহয় ভালো ফসল
পাওয়া যাবে!
সুমি :- তোর এত বড় সাহস? বেয়াদব কোথাকার; তুই
কোন মায়ের ব্যাটা রে?
ইয়াসিন :- এই আমার মা কে টানছিস কেন? যা বলার
আমাকে বল!
সুমি :- ওই ফোন রাখ| তোর মত ফালতু ছেলের
সঙ্গে কথা বলতে চাই না আমি! আর কোনদিনও এই
নাম্বারে কল করবি না!
ইয়াসিন :- তোকে কল করতে আমার বয়েই
গেছে| তোর তো খেয়ে দেয়ে কোন
কাজকর্ম নেই; বাড়িতে বসে বসে সারাদিন
ছেলেদের মিস কল করিস!
সুমি :- ওই দেখ; একদম বাজে কথা বলবি না! তুই কিন্তু
লিমিট ক্রস করছিস! খুব খারাপ হয়ে যাবে কিন্তু!
ইয়াসিন :- ইস; ওরে আমার ঝাঁসির রানী লক্ষীবাই
রে! কি করবি তুই আমার?
সুমি :- দেখ বেশি বাড়াবাড়ি করিস না| নইলে তোকে
বুঝিয়ে দিব আমি কি করতে পারি!
ইয়াসিন :- থাক থাক; আমি না ভীষণ ভয় পেয়েছি!
ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি! তোর অকাদ আমার
জানা আছে বুঝলি! কিছু ছিড়তে পারবি না! তুই বরং
বাড়িতে বসে বসে মশা মাসিমার! স্বচ্ছ ভারত মিশন!
মোদি তোকে মেডেল দিবে!
সুমি :- তুই কিন্তু বকবক করেই যাচ্ছি! দাঁড়া তোর
নামে কেস করবো! পুলিশ তোকে খুজে বের
করে ইচ্ছেমতো কেলাবে! তখন বুঝবি কত
ধানে কত চাল!
ইয়াসিন :- আরে টুনির মা; যা থানা যা; আমার সিমটা না তোর
বাবার নামে কিনা আছে!
সুমি :- মানে; কে বলতো তুই?
ইয়াসিন :- আমি তোর বর! কেন রে চিনতে পারছিস
না?
সুমি :- আমি আবার কবে বিয়ে করলাম? বর আসলো
কোথা থেকে?
ইয়াসিন :- কেন; গতবছর ভাদ্র মাসের 50 তারিখে
তো বিয়ে করলাম! সব ভুলে গেছিস?
সুমি :- চুপ; ইডিয়েট! ফালতু ছেলে কোথাকার! এক
গ্লাস জলে ডুবে মর যা!
ইয়াসিন :- আমি মরলে তো তুই কাঁদবি! তোকে
কাঁদাতে চাই না!
সুমি :- ওরে আমার হরিদাস পাল রে; তুই মরলে আমি
কাঁদবো কেনো?
ইয়াসিন :- হুম কাদবি! তোকে কাঁদতেই হবে! কারন
তোর হৃদয় জুড়ে যে শুধু আমি আমি আর আমি! আমি
মরলে তুই হার্ট অ্যাটাক করে মারা যাবি!
সুমি :- ওই কে বলতো তুই?
ইয়াসিন :- আরে পাগলি আমি তোর পাগল! তোর হৃদয়
রাজ্যের রাজা!
সুমি :- শয়তান; এভাবে হ্যাঁ জালালি আমাকে? তোকে
আমি ছাড়বো না!
ইয়াসিন :- ছাড়িস না; কোনদিনও ছাড়িস না! বেঁধে রাখিস
তোর ভালবাসার বাঁধনে!
সুমি :- না তোর পায়ে দড়ি বেঁধে টাওয়ারে ঝুলিয়ে
রাখবো!
ইয়াসিন :- এমা; বাদুর ঝোলা করবি নাকি!
সুমি :- হ্যাঁ তাই করবো!
ইয়াসিন :- এই পাগলি; অনেক হয়েছে! বিয়ে করবি
আমাকে! চল না সাত পাকে বাঁধা পরী দুজনে!
সুমি :- না; বিয়ে করবো না! তুই খুব খারাপ!
ইয়াসিন :- কর না; খুব আদর করব তোকে; খুব যত্ন
নেব ! তোর মাথা ব্যথা করলে মাথা টিপে দিব!
সুমি :- ও তার মানে তুই চাস আমার মাথা ব্যাথা করুক!
ইয়াসিন :- তুই আমাকে এত ভুল বুঝিস কেনো
বলতো?
সুমি :- আমি ভুল বুঝি না Ok! তুই আমাকে ভুল বুঝিস ! তুই
কি করে ভাবলি আমি তোকে বিয়ে করব না! তুই
জানিস না আমি তোকে কতটা ভালোবাসি?
ইয়াসিন :- জানিতো; তবুও তোর মুখে সেই কথাটা
বারবার শুনতে ইচ্ছে করে! খুব ভালো লাগে
শুনতে! আমি তোর বুকের কারাগারে বন্দি হয়ে
থাকতে চাই আজীবন!
সুমি :- পাগল আমার! আচ্ছা তোর গলার স্বর বদলে
গেছে কেন?
ইয়াসিন :- হাহাহা; তোকে হ্যাঁ জালানোর জন্য অনেক
কষ্ট করে ঠান্ডা লাগিয়েছে!
সুমি :- শয়তান; আমি তোকে ভালোবাসি না যা তুই! আই
হেট ইউ!
ইয়াসিন :-But I Love You Pagli
সুমি :- আই পাগল; আমার বুকে আয়!
ইয়াসিন :- ওকে; দারিয়ে থাক আমি আইতেসি।
সুমি :- আমার পাগল আই আমি তোর অপেক্ষাই রইলাম।

এভাবে ভালবাসা গুলো সারাজীবন ভালবাসার মানুষের বুকে থাকুক
সুখে থাকুক ভালবাসা।
সমাপ্ত

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *