পিচ্চি বউ ( সিজন-2 ) part-2

#পিচ্চি বউ-পর্ব-২
#কাব্য আহম্মেদ

তিথি গুটিসুটি মেরে আমার বুকে ঘুমিয়ে পড়ল। আমি তিথির মুখের দিকে তাকিয়ে অজান্তে হেসে দিলাম।
– পাগলী, আমার পিচ্ছিটা…
বলে নাক টেনে দিলাম। তিথি নড়েচড়ে উঠল। আমি খুব সাবধানে শুয়ে রইলাম। যাতে তিথির ঘুম না ভাঙে।
( সকালে…)
তিথি চোখ খুলতেই বললাম,
– ম্যাডামের, ঘুম ভাঙল তাহলে। তোমার জ্বর কমেছে।
বলে কপালে হাত রাখলাম। নাহ, জ্বরটা বেশ কমে গেছে। তিথির দিকে তাকাতেই রাতের কথা মনে পড়ল। মিট মিট করে হাসতে লাগলাম।
– আপনি, হাসছেন কেনো? ( ভ্রু কুঁচকে বলল)
– নাহ, এমনি।
– না, বলুন কি জন্য হাসছেন?
– আরে এমনি হাসলাম।
আমি উঠে গেলাম। পিছন থেকে তিথি আবার ডাক দিলো,
– এই, এই বলে যান না। প্লিজ…
আমি ঘুরে তাকালাম।
– শুনবে।
– হুম।
– তার আগে একটা প্রশ্ন করি, তোমার জ্বর হলে কি জ্বরের ঘোরে আবোলতাবোল বকো?
বলতেই তিথি জিভ কাটল। তিথি মনে মনে ভাবছে, আবার কি গণ্ডগোল পাকালাম? কি বললাম উনাকে আল্লাহই জানেন?
– হ্যা।
– ওও, তাইতো বলি…।
বলে চলে যাচ্ছিলাম। তিথি আবার ডাক দিলো,
– এই, এই কোথায় যাচ্ছে? বলে যান না কি বলেছি রাতে?
– শুনবে… মুচকি হাসি দিয়ে বললাম।
– হুম।
– এইতো বললে যে,
থেমে গেলাম।
– কি হলো বলুন?
– আচ্ছা বলছি। এইতো তুমি বললে যে, আমি খুব খারাপ। আমি তোমাকে ভালোবাসি না। আমি পচা। আমি তোমাকে একটুও ভালোবাসি না। তোমাকে যেনো একটু ভালোবাসি।
• দুষ্টুমি হেসে দরজায় হেলান দিয়ে দাঁড়ালাম।
তিথি মাথা চুলকাতে লাগল, হায় হায় এসব বলে ফেলেছি উনাকে। কি করলাম এটা? এখন উনার দিকে তাকাবো কি করে? কি লজ্জা কি লজ্জা? তিথি কি করলি এটা?
আমি তাকিয়ে দেখলাম তিথির গালদুটো আস্তে আস্তে গোলাপী হয়ে যাচ্ছে। লজ্জায় গালে গোলাপী আভা প্রকাশ পাচ্ছে।
– কি হলো চুপ মেরে গেলে কেনো?
– না, আসলে…
– হ্যা, আমি জানি জ্বরের ঘোর তুমি প্রলাপ বকেছে। এগুলোর একটাও সত্যি না। তাই না…
তিথির মুখ মলিন হয়ে গেলো। আপনাকে কি করে বোঝাই যে, এগুলোর সবটা সত্যি ছিল। আপনাকে আমি ভালোবেসে ফেলেছি। আমার বুড়ো বরের প্রেমে পড়ে গেছি আমি। কি করে বোঝাই যে, আপনার ভালোবাসা পেতে চাই আমি।
– বাই দ্যা ওয়ে, আমি কিছু করিনি কিন্তু। এতোটাও খারাপ না আমি যে, একটা পিচ্ছি মেয়েকে…
দুষ্টু হেসে রুম থেকে বেরিয়ে পড়লাম।
• তার মানে, উনি কিছু করেননি আমার সাথে। গাধা নাকিরে বাবা। নিজের বউকে কিছু করতে ইচ্ছে করে না নাকি? তার উপর আমার মত ছিলো তো তাহলে…
ব্যাটা বেশী ভালো হওয়ার অভিনয় করছে। খারাপ লোক একটা। একটু ভালোবাসলে কি হতো? মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যেতো। মুখ ভার করে রইল তিথি।
আমি রুমে ডুকে দেখলাম তিথি বিছানার মাঝখানে বসে আছে। খাবারগুলো রেখে তিথির কাছে গেলাম।
– উঠো ফ্রেস হয়ে নাস্তা করবে।
তিথি কোনো কথা বলল না।
– কি হলো উঠো?
– আচ্ছা, আপনি সত্যি আমার সাথে কিছু করেননি। ( করুন দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলল তিথি)
– না, সত্যি কিছু করিনি।
– কেনো?
– কারন, তুমিই তো বলেছিলে যে, আমি যেনো তোমাকে টাচ না করি। আর তার উপর তুমি তো পিচ্ছি। পিচ্ছিদের সাথে কিছু করতে নেই…
– পিচ্ছি, পিচ্ছি করবেন নাতো। পিচ্ছিদের কি ভালোবাসতে নেই? পিচ্ছিদের কি ভালোবাসা যায় না?
– কে বলল পিচ্ছিদের ভালোবাসা যায় না? এই দেখ আমি তোমাকে ভালোবাসি।
– ভালোবাসা না ছাই। আমি পূর্ণ ভালোবাসা চাই। ( মনে মনে বলল তিথি )
– আচ্ছা, এখন চলো ফ্রেস হয়ে নাও।
তিথি হাত দুটো আমার দিকে বাড়াল,
– কি? ( আমি )
– কোলে নিন।
– মানে!
– মানে, আমাকে কোলে করে নিয়ে যান। আমার হাঠতে ভাল্লাগছে না।
তিথির বাচ্চামো কথা শুনে আমি হেসে দিলাম,
– ওকে।
তিথিকে কোলে তুলে নিলাম। তিথি আমার গলা জরিয়ে ধরল। ওয়াসরুমে দিয়ে এলাম। ওয়াসরুম থেকে বেরিয়ে এলো,
– আবার কোলে নিতে হবে?
– আমি বলেছি?
– না, আমি ভাবলাম…
– বুঝি, বুঝি।
– কি বুঝো?
– আপনার মতলব কি আমি বুঝি? আমাকে কোলে নেয়ার ধান্ধা তাই না?
– আরে আমি কখন বললাম। প্রথমে তো তুমিই বললে তোমাকে কোলে নিতে।
– হইছে আর কথা না বলে কোলে নিন।
– মানে, তুমি এই না বললে…
– চুপ করুন তো। আপনি একটু বেশি কথা বলেন।
আমি তিথিকে কোলে তুলে নিলাম। বিছানায় বসিয়ে দিয়ে নাস্তাগুলো সামনে রাখলাম। তিথি হাত গুটিয়ে বসে থাকল,
– হাত গুটিয়ে বসে থাকলে হবে? নাস্তা করবে কে? ( আমি )
– আপনি খাইয়ে দেন।
– উফফ! পিচ্ছিদের নিয়ে এই এক ঝামেলা। হা করো…
– তাহলে, পিচ্ছিকে বিয়ে করেছেন কেনো? আমি যেচে আপনার কাছে বিয়ের পিরিতে বসেছি।
তিথি আবার শুয়ে পড়ল অন্য দিকে মুখ করে।
– আরে আমিতো এমনিই বললাম।
তিথি চুপ করে শুয়ে আছে।
– তিথি, সরি ভুল হয়ে গেছে। আমি সত্যিই এমনি বলেছি…
তিথি কোনো কথাই বলছে না। একটু এগিয়ে গেলাম। একি তিথি কাঁদছে ?
– একি তুমি কাঁদছ? আমি সরি। ভুল করে ফেলেছি।
তিথিকে শোয়া থেকে উঠালাম। তিথি কেঁদেই চলছে। আমাকে জরিয়ে ধরে ভ্যা ভ্যা করে কেঁদে উঠল।
– আমি সরি তিথিমনি। আমি সত্যি তোমাকে রাগানোর জন্য বলেছিলাম। আমি বুঝিনি তুমি কষ্ট পাবে।
– আপনি, সত্যিই খুব খারাপ।
– আচ্ছা আচ্ছা, আমি খারাপ। এখন কান্না বন্ধ করো প্লিজ।
– আমার এক বান্ধবীরও তো স্বামী আছে। ওর স্বামী ওকে খুব ভালোবাসে। আপনি আমাকে একটুও ভালোবাসেন না।
কাঁদতে কাঁদতে বলল তিথি।
– আহা! কে বলল? আমি তোমাকে ভালোবাসি না।
– আমি বুঝিতো সব।
– তাই, তুমিতো খুব পাকনি হয়ে গেছো। এতো কিছু বুঝো।
– হ্যা, বুঝিতো। আমি পিচ্ছি বলে আপনি আমাকে আদর করেন না।
– দূর! কে বলল তোমাকে ভালোবাসি না? আমি তো আমার পিচ্ছি বউটাকে সবচেয়ে বেশী ভালোবাসি।
– ভালোবাসা না ছাই। ছাড়ুন এখন ভালোবাসা দেখাতে হবে না।
– প্লিজ রাগ করো না। কান্না বন্ধ কর..।
– তাহলে চুমু দেন।
– কি?
তিথি আমার গালে চুমু একে দিলো।
আমার প্রতি আমার পিচ্ছি বউটার মনে যে হালকা হালকা অনুভুতি জমা হচ্ছে আমি সেটা খুব ভালো ভাবে টের পাচ্ছি।
,
তিথিকে খাবার খাইয়ে ঔষধ খাইয়ে দিলাম। বিকেলের দিকে একটু বাইরে বেরোলাম। অফিসের অফ ডে আজ। আব্বু-আম্মু তো বাসায় আছেই। তাই তিথিকে বাসায় রেখে এলাম। বন্ধুদের সাথেই ছিলাম। ফোন কেপে উঠল। হাতে নিয়ে দেখলাম তিথি ফোন করেছে। ঠোঁটের কোনে অজান্তে হাসি ফুটে উঠল,
– আসসালামু আলাইকুম। ( তিথি)
– ওয়ালাইকুম আসসালাম। হ্যা, তিথি বলো।
– আপনি কোথায়?
– এই একটু বাইরে আসলাম।
– বাসায় কখন আসবেন?
– কেনো? কোনো সমস্যা?
– না, না। এমনি।
– ওও।
– একটু তাড়াতাড়ি ফিরতে পারবেন।
– হুম।
– আচ্ছা, রাখি। দেখে শুনে আসবেন।
– আচ্ছা।
ফোন কেটে দিলো তিথি। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে তাকিয়ে রইল। খানিকটা লজ্জা পেলো। ইশ! আমার বরটা এসে কি আমাকে জরিয়ে ধরবে? উনি তো একেবারে হুতুম পেচা। আমাকে একটুও ভালোবাসে না।
,
বন্ধুদের বিদায় জানিয়ে বাসায় ফিরলাম। দরজায় নক করলাম। দরজা খুলে দিলো তিথি। তিথির দিকে তাকিয়ে আমি হা হয়ে গেলাম। তিথি একটা শাড়ি পড়েছে। মনে হয় মায়ের শাড়ি। চুলগুলো খোলা, হাতে নানা রঙের চুড়ি। হালকা সাজ।
আমি ফিদা হয়ে গেলাম। আমার এমন হা করে তাকানো দেখে তিথি লজ্জায় লাল হয়ে নিচের দিকে তাকিয়ে রইল।
তিথির কোমড় ধরে টান মেরে বুকের সাথে মিশিয়ে নিলাম,
– পাগল করে দিবে নাকি আমাকে?
– আমি আবার কি করলাম? ( অবাক হয়ে বলল)
– এতো সাজ সেজেছো কেনো? কোথাও যাবে নাকি?
– কেনো সাজতে পারি না নাকি? আর দরজার সামনে এমন করছেন কেনো? আম্মু-আব্বু আছে দেখে ফেলবে তো।
তিথি যদিও বলছে কথাটা। কিন্তু, আমি বেশ বুঝতে পারছি তিথির ভালোই লাগছে। আমাকে ছাড়ানো কোনো চেষ্টাই করছে না।
– না, তা পারো। তবে নিশ্চয়ই একটা কারন আছে।
বলতেই তিথি রাঙা মুখে বলল,
– জ্বি।
– আমার জন্য?
– হুম।
বলতেই লজ্জা পেয়ে দৌড়ে রুমে চলে গেলো। আমি হাসতে লাগলাম। আমার পরী বউটা লজ্জা পেয়েছে। হা হা হা।
রুমে গিয়ে দেখলাম বারান্ধার পাশে দাঁড়িয়ে আছে। পিছন থেকে জরিয়ে ধরে কাধে মুখ গুঁজলাম। তিথি কেপে উঠল।
– আপনাকে আমার কিছু বলার আছে।
– বলো…।
– আমার একটা বাবু চাই।

চলবে……..

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *