পিচ্ছি বউ পার্ট-৭ | পিচ্চি বউয়ের ভালবাসার গল্প

 

পিচ্ছি বউ পার্ট-১

পিচ্ছি বউ পার্ট-২

পিচ্ছি বউ পার্ট-৩

পিচ্ছি বউ পার্ট-৪

পিচ্ছি বউ পার্ট-৫

পিচ্ছি বউ পার্ট-৬

পিচ্ছি বউ পার্ট-৭

পিচ্ছি বউ পার্ট-৮

পিচ্ছি বউ পার্ট-৯  অন্তিম পর্ব

,♥♥♥পিচ্চিবউ♥♥♥
♥♥লেখকঃ রাইসার অাব্বু♥♥
♥♥পর্ব ৭♥♥

.

নার্স বললো ” আপনি এখন পাবনায় আছেন, আপনার বউ কথার সাথে! কখাটা বলে একটা কিসের যেন ইনজেকশন দিয়ে দিলো।

.

ঘুম থেকে উঠে, দেখি কথা আমার দিকে চেয়ে হাসছে।

.
বাবা – মা আসছে। বাবাকে বললাম, ” বাবা আমার এখানে থাকতে ভালো লাগে না! আমাকে তোমাদের সাথে নিয়ে চলো। সাথী তোমাদের বউমা কথাকেও নিয়ে চলো।

ও বাবা কাঁদছো কেন? আমাকে এখান থেকে নিয়ে যাবে না? জানো বাবা এখানে কেউ আমার সাথে কথা বলে না। শুধু কথা ছাড়া। বাবা আমাকে নিয়ে চলো না। আমি থাকবো না। কথাগুলো বলে কাঁদতে লাগলাম।

.
বাবা মাকে নিয়ে চলে গেল। তারপর নার্স এসে ইনজেকশন দিয়ে গেল! তারপর আর কিছু মনে নেই। সবসময় কথার সাথেই তথা বলতাম।

.

এদিকে আজ মা- বাবা আমাকে নিতে আসছে। এখন কথা আমার সাথে কথা বলে না। আমি জানি কথা মারা গেছে। মা- বাবা বাসায় নিয়ে বললো ” রাজ বাবা তুমি পাঁচ বছর পাগল হয়ে পাবনা মানসিক হসপিটালে ছিলে! এ দুবছরে অনেক পর্রিবতন হয়ে গেছে! আমরা আজ নিঃস্ব। ব্যবসাতে ক্ষতি হয়েছে, ব্যাংকের লোকেদের ঋণ পরিশোধ করতে বাড়িটাও বিক্রি করর দিছি! এখন এই বাসাটাতে ভাড়া আছি।

.

বাবার কথাগুলো শুনে নিজের অজান্তেই চোখের কোণে পানি চলে আসলো, আমার বাবা এ বয়সে অফিসে কাজ করে।

.

মনে মনে ভাবলাম, আমার কোন না কোন জব করতে হবে! যেই ভাবা সেই কাজ, কয়েক জায়গাই আবেদন করলাম সাথে একটা প্রাইভেট প্রতিষ্টানে শিক্ষকতা করার জন্যও আবেদন করলাম। সপ্তাহখানেক পর, নোটিশ আসলো, সে প্রতিষ্টানে আমাকে জয়েন করতে বলেছে।

.
দিনগুলো ভালোই কাটছিল, কিন্তু প্রতিরাতেই কথার স্মৃতি আমাকে ঘুমাতে দেয় না। কথার সেই দুষ্টমি গুলো আজো আমাকে কাঁদায়। প্রতিরাতে কথার ছবি বুকে নিয়ে ঘুমায়! খুব কষ্ট হয়, মাঝরাতে মোনাজাতে শুধু একটা কথায় বলি, আল্লাহ্ আমার স্ত্রীকে ভালো রেখ!

.

এদিকে স্কুলে একটা বাচ্চাকে দেখে খুব অবাক হয়ে গেলাম! কি সুন্দর করে হাসে ঠিক কথার মতো! কি মায়াবি চাহনী, মনে হচ্ছে কথার প্রতিচ্ছবি তার মাঝে দেখতে পাচ্ছি।

.

আমি মেয়েটাকে ডাক দিয়ে বললাম” তোমার নাম কী মামনী?

.
আসসালামু আলাইকুম!

.

ওয়ালাইকুম সালাম। উওরটা দিয়ে মনে মনে ভাবতে লাগলাম, এতটুকু একটা বাচ্চা মেয়ে হাই, হ্যালো না বলে সালাম দিলো।

.
আপনি কি জানেন না? কারো সাথে কথা বলতে হলে, প্রথমে সালাম দিয়ে কথা শুরু করতে হয়!

.
আমার নাম ” তাসনিয়া কারিমা রাইসা”

নামটা শুনে বুকটা কেমন কেঁপে ওঠলো। “আপনি আমাদের নতুন টিচার”?

.
হ্যাঁ মামনী আমি তোমাদের নতুন টির্চার!

.
এই নাও চকলেট, আমরা আজ থেকে ফ্রেন্ড কেমন!?

.

হুমম ফ্রেন্ড।

.

তুমি আমার চকলেট নিলে, আমাকে পাপ্পি দিবে না? তুমি এতো কিপটে কেনো?তোমার সাথে আড়ি। কান ধরো, কান না ধরে বলবে, রাজকন্যার সাথে আর কোনদিন অপরাধ করবো না! তুমি জানো না, রাইসা নামের অর্থ হলো ” রাণী”। ( রাইসা)

.

আমি না তোমার টির্চার, টির্চারকে কান ধরতে বলা লাগে?

.
টির্চার না ছাই, তুমি এখন আমার বন্ধু, কিছুক্ষণ আগে চকলেট দিয়ে বন্ধ বানিয়েছি। তোমার টির্চারগিরি ক্লাসে দেখাবে। এখন কান ধরো, নইলে ফাইন ধরবো! ( কথাগুলো বলে, মুখে চেপে হেসে দিল)
.
আমি কি বলবো ভেবে পাচ্ছি না, খুব হাসি পাচ্ছে, মেয়েটার চোখের দিকে তাকিয়ে দেখি, রাগি লুক নিয়ে তাঁকিয়ে আছি!

.

কি হলো আমার কথা বুঝোনি? বন্ধু হলে কেন? বন্ধু হয়েছে যেহেতু, কান ধরে বলো আর এমন অপরাধ হবে না। যদি না কান ধরো তাহলে! দাঁত পড়ে যাবে। আর দাঁত পড়ে গেলে বিয়ে হবে না!

.

রাইসার কথা শুনে কান ধরে বললাম ” আমার ভুল হয়ে গেছে, আর এমন ভুল হবে নানা, মেয়েটাকে টান দিয়ে কোলে নিয়ে, গালে মুখে চুমু দিয়ে বললাম” মামনী এখন হয়েছে?

.

হুমমম,বেশ হয়েছে। তুমি সত্যিই অনেক ভালো। হঠাৎ পাশ থেকে দশ বছরের মতো একটা মেয়ে এসে বলল” রাইসা আব্বু এসেছে চলো। দাঁড়িয়ে আছে।

.

ও আপু তুমি আমার ফ্রেন্ড এর সাথে পরিচিত হয়ে নাও,। এই যে স্যার এটা আমার আপু রিচি। রিচি আপু আমার স্যারকে সালাম দাও!

.

আসসালামু আলাইকুম, আমি রিচি। স্যার আজকে আসি। হঠাৎ দেখি, একটা ভদ্রলোক এসে রাইসাকে কোলে নিল! রাইসা বাবাই বাবাই বলে লোকটাকে জড়িয়ে ধরল!

.

লোকটা রাইসা আর রিচিকে নিয়ে গাড়ি করে চলে গেল। মনে মনে ভাবলাম, আজ যদি কথা বেঁচে থাকতো, তাহলে আমাদের সন্তানটা ঠিক এতটুকু বড়ই হতো।

.

নিজের অজান্তেই চোখের পাতাটা ভিজে ওঠল। কথার চাঁদমুখটা ভেসে উঠছে, স্মৃতিপটে।

.

এদিকে বাসায় এসে দেখি, বাবা অসুস্হ!

বাবাকে নিয়ে হসপিটালে গেলাম! ডাক্তারের রুমে গিয়ে সেই লোকটাকে দেখলাম কেমন বিচলিত ভঙ্গিতে বসে আছে।

.

ডাক্তার লোকটিকে বলল,” রফিক সাহেব, যদি ও নেগেটিভ রক্ত না পাওয়া যায় চারঘন্টার ভেতর তাহলে আপনার মেয়েকে বাঁচানো সম্ভব না!

.

এদিকে আমি একজন ডাক্তার কে নিয়ে বাবাকে দেখালাম। ডাক্তার বলল তেমন কিছু না, পেশারটা একটু বেড়েছে।

.

বাবার বেড থেকে বের হয়ে, পাশের বেড়ের দিকে তাকাতেই বুকটা কেমন যেন হু হু করে কেঁদে ওঠল! কি মায়াবি মুখটা, কেমন যেন অন্ধকারে ঢাকা পড়ে গেছে। মুখে অক্সিজেন মাক্স লাগানো। মনে হচ্ছে, আমার নিজের আপন কেউ। কেন এতটা কষ্ট হচ্ছে মেয়েটাকে দেখে, বুকের ভেতর চিনচিনে ব্যাথা করছে।

.
ডাক্তারের রুমে গিয়ে বললাম, মেয়েটার কি হয়েছে?

.

পাশ থেকে লোকটি বললো” কাল স্কুল থেকে আসার সময় গাড়ি দুর্ঘটনা হয়। প্রচুর ব্লাড যায়, মাথায় অনেক আঘাত পেয়েছে। তাঁর মা, মেয়ের খবর শুনে অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে। মেয়েটার যদি কিছু হয়ে যায় তাঁর মা বাঁচবে না!”

.

যদি এখন রক্ত না পাওয়া যায় আল্লাহ্ যে কি করবেন? কথাটা বলে কেঁদে দিল। এদিকে এক নার্স এসে বলল” স্যার ঢাকার আশে – পাশে প্রায় সব ব্ল্যাডব্যাংকে খবর নিয়েছি, কিন্তু কোথাও রক্ত পাওয়া গেল না! এদিকে পেশেন্ট এর অবস্থাও ভালো না! জানিনা কি হবে?

.

নার্সের কথাটা শুনে, রফিক সাহেব কেঁদে দিলেন। আমার জানি কথাগুলো শুনে খুব কষ্ট হচ্ছে।

.

আমি ডাক্তার সাহেব কে বললাম” ডাক্তার সাহেব আমি রক্ত দিবো, আমার রক্তের গ্রুপ ও নেগেটিভ!

.

ডাক্তার তাড়াহুড়া করে আমায় নিয়ে শুইয়ে দিলেন। দুই ব্যাগ রক্ত নিয়ে রাইসাকে দিলো। আমি কিছুক্ষণ শুইয়ে থেকে, বাবার কাছে চলে আসলাম। পরের দিন বাবাকে নিয়ে বাসায় ফিরি! হসপিটাল থেকে আসার সময়, রাইসার বেডের দিকে তাকিয়ে দেখি একটা মেয়ে রাইসাকে জড়িয়ে ধরে আছে। মনে হচ্ছে এটাই রাইসার মা, কিন্তু মানুষটাকে খুব পরিচিত লাগছে! এক ধ্যানে তাকিয়ে আছি মেয়েটার দিকে।

.

কিরে রাজ বাসায় যাবি না? এভাবে দাঁড়িয়ে পড়লি যে?

.

বাবার কথা শুনে, ক্ষাণিকটা চমকে, বললাম” চলো বাবা!

.

বাবাকে নিয়ে বাসায় আসার পর, বিছানায় গা টা এলিয়ে দেয়।

.
পরের দিন হঠাৎ কে যেন দরজা নর্ক করছে, আমি দরজাটা খুলতেই আমার মাথাটা ঘুরতে লাগল! পা দুটো কাঁপছে,কথা তুমি বেঁচে আছো? হ্যাঁ বেঁচে আছি তুমি কিভাবে ভেবেছিলে আমি মরে গেছি? যাকে আল্লাহ্ বাঁচায় তাকে কেউ রক্ষা করতে পারে না।

.

কিন্তু আমি যে স্পর্ষ্ট দেখেছি সেটা তুমি। রোড একসিডেন্টে মারা গিয়েছো।

.

তুমি ভুল দেখেছো, তুমি জানো না এ পৃথিবীতে একজন মানুষের ন্যায় আরো সাতজন মানুষ রয়েছে।

আচ্ছা বাদ দাও, এই নাও আমার বিয়ের কার্ড তুমি কিন্তু আসবেই!আঙ্কেল আন্টি সাথে জান্নাত কেও নিয়ে আসবে!

.

“কথা আমি তোমাকে ভালবাসি, বড্ড বেশি ভালবাসি। আমি আমার ভুল বুঝতে পেয়েছি, প্লিজ আমাকে ক্ষমা করে দাও! তোমাকে ছাড়া সত্যি বাঁচবো না। প্লিজ ছেড়ে যেয়ো না আমায়। প্লিজ আমার বুক থেকে তোমাকে কেউ আর কেড়ে নিতে পারবে না “( কান্না করে দিয়ে, কথাগুলো বললাম। চোখ থেকে টুপ-টাপ করে পানি পড়ছে। নিজের অজান্তে কথার হাতটা ধরে ফেললাম!

.

ঠাস, ঠাস করে চড় বসিয়ে দিলো, কথা আমার গালে, হঠাৎ কি যেন পড়ায় শব্দে ঘুম ভেঙে যায়। ফ্লরের দিকে চেয়ে দেখি, বুক থেকে কথার ছবিটা পড়ে ভেঙে গিয়েছে। গলাটা শুকিয়ে গেছে, টেবিল থেকে এক গ্লাস পানি খেয়ে, এসে বিছানায় ধপ করে বসে পড়লাম।

.

আমি বুঝতে পারলাম, আমি কথাকে নিয়ে বাজে স্বপ্ন দেখেছি! কথার মুখটা বার বার ভেসে ওঠছে।

.

কয়েক দিন পর , স্কুলে গিয়ে দেখি, রফিক সাহেব বসে আছে।
.

আপনাকে আজ আপনাদের বাড়িতে দাওয়াত। সন্ধ্যায় আসবেন। আজ আমাদের রাইসার পঞ্চম জন্ম বার্ষিকী! ( রফিক সাহেব কথাটা বলে বাড়ির ঠিকানা দিয়ে চলে গেল)

.

এদিকে সন্ধ্যায় ঠিকানা দেওয়া বাসায় গিয়ে নর্ক দিলাম। একটা কাজের মেয়ে, দরজাটা খুলে দিল! বাসাটা খুব সুন্দর করে সাজানো। রাইসা দৌঁড়ে এসে আমায় জড়িয়ে ধরল!

.

খুব সুন্দর লাগছে। মেয়েটাকে কোলে নিয়ে গালে মুখে চুমু দিয়ে বুকে জড়িয়ে নিলাম। অজানা এক প্রশান্তি মনে হচ্ছে ছুঁয়ে গেল!

.
বাড়িতে প্রায় আমাদের স্কুলের সব টিচারদের দাওয়াত করা হয়েছে।

.

হঠাৎ, সিঁড়ি দিয়ে কাউকে নামতে দেখে থমকে গেলাম! নীল রঙের চশমাটা খুলে মুছে আবার চোখে পড়লাম। বুকের স্পর্দন বেড়ে যাচ্ছে। কারণ এ তো অন্য কেউ না কথা। এটা কিভাবে সম্ভব যাকে নিজ হাতে দাফন করেছি। যার চাঁদমুখটা এখনো ভেসে ওঠে। কিন্তু কথা আবার বেচে আছে। কথার দিকে তাকিয়ে পলক ফেলতে পারছি না। নিজের অজান্তেই কথা নাম ধরে ডাকতে গিয়েই গলাট কেমন যেন ধরে এলো অন্যদিকে,

.

পাশ থেকে কে যেন বলে ওঠল” তানিয়া ” তোমার সাজতে এতো লেট হয় কেন? কখন থেকে সবাই অপেক্ষা করছি!

.

আমি কিছু ভাবতে পারছি না, এদিকে রফিক সাহেব কথার হাত ধরে নামাচ্ছে। কথার সাথে কয়েকবার চোখাচোখি হয়েছে, কিন্তু কোন কথা হয়নি।

.

এদিকে রাইসার জন্মদিনের কেক কাটার পর, কাধে কারো হাতের স্পর্শ পেলাম। পিছন দিকে তাকাতেই দেখি কথা!

.

আসসালামু আলাইকুম! আমি তানিয়া রেজওয়ান রফিক।

.

ওয়ালাইকুম সালাম! কেমন আছেন?.

.

জ্বি ভালো, আপনার কাছে অনেক কৃতজ্ঞ, আপনি আমাদের কলিজার টুকরাটাকে রক্ত দিয়ে বাঁচিয়েছেন! রাইসার আব্বুর কাছে আপনার কথা শুনেছি। আপনি কি বিয়ে করেছেন? একদিন ম্যাডামকে নিয়ে বেড়াতে আসবেন!

.

আমি কি বলবো বুঝতে পারছি না, এটা আমার কথা নয়, কিন্তু মনে হচ্ছে এটাই আমার ভালবাসার মানুষ। আমার স্ত্রী! কিছুু ভাবতে পারছিনা। বুকটা ফেঁটে যাচ্ছে।

.

আসার সময় বাড়ির গেট পর্যন্ত রাইসা আর তার মা এগিয়ে দিয়ে গেল!

.

বাসায় এসে কথার স্মৃতিগুলো ভাবতে লাগলাম। আমি জানি এটা কথা নয়, কিন্তু কেন যেন বার বার আমার মন বলছে এটাই কথা। এটাই আমার পিচ্চি বউ কথা। এখন প্রায় প্রায় তাদের বাসার নিঁচে দাঁড়িয়ে থাকি

.

প্রতিদিন কোথায় যেন যায়, তানিয়া। যাকে আমার মন বলে এটা তানিয়া নয় কথা।

.

পরে খবর নিয়ে জানতে পারি অফিসে যায়। নিজের অফিস আছে।

.

একদিন অফিসে যাওয়ার পথে, কথার গাড়ি আগলে দাড়ালাম।

.

গাড়ি দাঁড়া করাতেই বললাম, যদি কিছু না মনে করেন, পার্কে গিয়ে বসতে পারি? আপনার সাথে কিছু কথা আছে!

.

আচ্ছা চলেন! একটা পার্কে নিয়ে গাড়ি দাঁড় করালো।

.

কিছু বলবেন? আমার যেতে হবে।

.

একটা সত্যি কথা বলবেন?

.
হুমম, বলেন কি বলতে চান?

.

আমার মন বলছে, তুমি তানিয়া না আমার কথা।, আমার মন বলছে। প্লিজ মিথ্যা বলো না।

.

আপনি কি ঠিক আছেন মিঃ রাজ, আমি তানিয়া রেজওয়ান রফিক। আপনার কথা কি বলছেন এসব। আপনি এসব বলতে এখানে এনেছেন আমার ছিঃ লজ্জা করেনা?

.

আমি মিথ্যা বলছি না, এর পর কথার সাথে ঘটে যাওয়া সব কিছু বললাম।

.

কি, আশ্চর্য অাপনি কি, আমাকে নাটকের স্ত্রীট শুনাচ্ছেন???

.

প্লিজ আমি জানি তুমি আমার কথা, তুমি আমার সাথে মিথ্যা বলছো।

.

কি আশ্চর্য আমার বিয়ে হয়েছে বাচ্চাও আছে দুটা!

.

প্লিজ কথা তুমি আমার কথা বলো তুমি মিথ্যা বলছো? আমার মন কখনো মিথ্যা বলেনা। কথাটা বলে কথার হাত টা ধরে ফেললাম!

.
কথা হাতটা ছাড়িয়ে, ঠাস ঠাস করে চড় বসিয়ে বলতে লাগল! আপনাকে ভালো ভেবেছিলাম, কিন্তু আপনার যে চরিএ খারাপ তা বুঝার বাকি রইলো না! লজ্জা করে না, অন্যের স্ত্রীর হাত ধরতে, আপনার কি বউ নেই, জানেননই আমার স্বামী আর দুইটা মেয়ে আছে। তারপর আমাকে কেন বিরক্ত করেন। নির্ঘাত আমার মেয়ের জীবন বাঁচানোর জন্য আজ আপনাকে লোক ডেকে অপমান করলাম না! নইলে আজ আপনাকে পুলিশে দিতাম! ছোটলোক, নারীদের সম্মান করতে শেখেননি! জন্মের দোষ রয়েছে আপনার। ( কথাটা বলে জিবে কামড় দিল)

.

এদিকে তানিয়া, যাকে কথা ভেবে নিজের অজান্তেই হাতটা ধরে ফেলেছিলাম, কিন্তু সে তো আমার কথা না।

নিজের প্রতি আজ প্রচন্ড ঘৃণা হচ্ছে! আজ আমার জন্য মা- বাবা কথা শুনলো!

.
সরি আমি ঠিক এমনটি বলতে চায়নি!(তানিয়া)

.
না, ঠিক আছে বলবেন না কেন? আমি যে হতভাগা নিজের স্ত্রীকে কত কষ্ট দিয়েছি, এতটা ভালবাসা সত্ত্বেও তাকে দূরে সরিয়ে দিয়েছে। তবে জানেন এখনো মাঝরাতে উঠে তার জন্য কান্না করি! তার ছবিটা বুকে নিয়ে ঘুমায়, তার ডাইয়িটা বুকে নিয়ে প্রতিরাতে কাঁদি। পাঁচবছর পাগল হয়ে পাবনা ছিলাম। জানিনা আর কত কষ্ট পাবো, আল্লাহ আরো আমাকে কষ্ট দেন যেন। জানেন যেদিন আপনাকে দেখছি, সেদিন আমার মন বলছে আপনিই আমার কথা, আমার কলিজার টুকরার মতো, কিন্তু না সেটা আমারি ভুল কারো মতো, দেখতে বা কথা বলতে পারলেই সে যে আপন কেউ হবে তা তো কথা নয়। ক্ষমা করে দিবেন, ভালো থাকবেন। এই যে ডাইরিটা,এখানে সব লেখা আছে।

.

আবারো বলছি, আপনাকে আমার স্ত্রী ভেবে দৃষ্টাব্দ করার জন্য!খুব বাজে তো আমি তাই, আচ্ছা আসি!

.

চোখদিয়ে অঝরে পানি পড়ছে, আর বাঁচার ইচ্ছা করছে না, বুকটা ফেটে যাচ্ছে, । বারবার কথার চাঁদমুখটা ভেসে ওঠছে। এদিকে কখন যে মাঝরাস্তায় এসে পড়েছি জানি না! পিছন থেকে কে যেন ডাকছে, পিছন দিকে চেয়েই দেখি, তানিয়া হাত দিয়ে ইশারা দিয়ে সরে যেতে বলছে। আমি মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে আছি। এদিকে তানিয়া দৌড়ে আসছে, কি সুন্দর লাগছে, মনে হচ্ছে আমার কলিজার টুকরা কথা দৌড়ে আসছে আমাকে ভালবাসার পরম শিহরণে জড়িয়ে নেওয়ার জন্য। হঠাৎ কি যেন ধাক্বা দিয়ে শূন্যে উড়িয়ে ফেলে দিল! পাশদিয়ে একটা বাস চলে গেল, আমি ধাক্কা খেয়ে রাস্তায় একপাশে গড়িয়ে পড়লাম! চোখদুটি রক্তে বন্ধ হয়ে আসছে, নাক মুখ দিয়ে রক্ত বের হচ্ছে!

অনুভব করতে পারছি, কেউ বুকের সাথে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে আছে আমায় আর বলছে, ক্ষমা করে দাও আমায় আমি তোমার কথা, তোমার কিছুই হবে না! আমাকে ছেড়ে কোথাও যেতে পারো না।

চলবে””””””””””

বিঃদ্রঃ ভুলক্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন!

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *