বরিশাইল্যা বউ । রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প Part-2

বরিশাইল্যা বউ

পর্বঃ০2

 বরিশাইল্যা বউ Part-1


আমি: এই কি করছো পানি মারছো কেনো তাও এত সকালে??

বউঃ ওয়া কি এত বেইন্না হালে আমনে ঘুমাইয়াছেন কা আয়?

আমিঃ এই বেইন্না হাল মানে এটা আবার কি?

বউঃ ও মোর খোদা হেইয়া আমনে কি কইতে আছেন বেইন্না হাল মানে বঝেন না?

আমিঃ হায়রে আমি বুঝলে তো আর তোমাকে বলতাম না?

বউ: বেইন্না হলাম ঐলে সকাল বঝতে পারছেন?

আমিঃ তা সকাল বল্লেই তো পারতে?

বউঃ ও মুই মোগো গ্রাইম্মা ভাষা ছাড়া মুই কতা কইত পারি না।

আমিঃ হায়রে এ কোন গ্রামের মেয়ে যে আমার কপালে আসলো?

বউ: গত কাইলগো ও মুই আমনেরে কইছি মোর বাড়ি বরিশাল?

আমিঃ তা বুঝলাম কিন্তু এত সকালে ডাক দিছো কেনো?

বউঃ ওয়া কি আমনে নাইতে যাইবেন না?

আমিঃ এই নাইতে আবার কি?

বউ: পরালেহা করছেন এইয়া ও জানেন না??

আমিঃ হায়রে আমি পাগল হয়ে যাবো যেটা কখোনো জানি নি এবং শুনি ও নি সেটা জানবো কিভাবে বলো?

বউ: ঐছে ঐছে আর সাধু সাজতে ঐবে না নাইতে মানে কি যানো কয় আমনেগো ভাষায় হয় মনে পড়ছে গোসল করতে জাইবেন না?

আমিঃ কি এই সকালে গোসল করবো তোমার মাথা ঠিক আছে?

বউ: মোগো গ্রামে বেডারা বেইন্না হালে লুঙ্গিহান পিন্দা পুহুর পারে নাইতে যায় বঝঝেন?

আমিঃ মনে হয় আমার পাবনার টিকিট কাটতে হবে এর সাথে থাকলে আমি পাগল হয়ে যাবো।

বউ: ও আমনে জেইহানেই যান এহন তারাতারি কইররা নাইতে যান হেইর ফর তারাতারি কইররা কামে যান!

আমিঃ হায়রে এই কামে মানে কি?

বউ: আমনের মায় দি মোরে কইলো আমনে নাকি ভালো কোনো কাম হরেন?

আমিঃ আরে কাম জিনিসটা কি বলবা তো?

বউ: এ মোর খোদা আমনে কাম হরেন হেইয়া আমনেই জানেন না?

আমিঃ ওহ এখন বুঝেছি তুমি কি আম এর কথা বলছো ওটা কাম হবে না আম হবে?

বউ: মোরে কি বলদ পাইছেন আয় মুই আমনে রে আমের কতা কইছিনি?

আমি: তাহলে?

বউঃ হেরে যে মুই কিবাইল কইররা বুঝামু বঝতে পারতে আছি না তয় হনেন আমনেগো শহরে মানে কামে যায় না হেইয়া থুক্কু কি যানো কয় হয় মনে পড়ছে অপিসে যায় হেইয়ার কতা কইছি মুই!

আমিঃ তাই বলে এত ঘুরিয়ে পেচিয়ে তার থেকে অফিস বল্লেই তো হতো?

বউ: মুই তো আমনেরে কইআহালাইম এহন আমনে না বঝলে মুই কি হরমু?

আমিঃ কেনো যে বিয়েটা করলাম দূর আর এই তুমি জানো না কয়েক দিন আমার অফিস ছুটি?

বউঃ হে তো মুই জানি না?

আমি: দূর এখানে থাকলেই পাগল হয়ে যাবো এর থেকে ভালো নাস্তা করি গিয়ে!

বউ: হেইয়া নাসতা কি?

আমিঃ( রেগে গিয়ে) আমার মাথা…..!

দূর ঘর থেকে চলে গেলাম ডাইনিং রুমে আর দেখি আমার সামনে আম্মু তখন আম্মু বল্লো—–>

আম্মুঃ কিরে বাসর রাত কেমন কাটালি?

রেগে গিয়ে বল্লাম—->

আমিঃ কথা বলবা না আমার সাথে।

আম্মুঃ কেনো বাবা মেয়ে পছন্দ হয়নি তোর জন্য কত সুন্দর মেয়ে আনলাম ¡

আমিঃ কি এইটা মেয়ে?? বিয়ের আগে এক বতল বিষ দিতে তাও খেয়ে মরে যেতাম!!

আম্মুঃ থাপ্পর দিবো ধরে তোকে কত বার বলছিলাম যে আগে দেখতে তুই দেখিস নি কেনো??

আমিঃ তাই বলে একটা বরিশালের মেয়ে??

আম্মুঃ আরে বোকা বরিশালের মেয়েরা খুব ভালো বুঝলি দেখিস তোকে খুব ভালোবাসবে!

আমিঃ কেও আমাকে মেরে ফেলো এদের জন্য আমি পাগল হয়ে যাবো!

এই মূহর্তে আমার বউ আসলো আর বল্লো—->

বউঃ ও আম্মা দেহেন না আমনের পলায় মোর লগে কিবাইল করতে আছে??

আম্মুঃ কি করে মা?

বউ: আমনের পলায় মোর লগে ঠিক কইররা কতা ও কইতে আছে না!

আম্মুঃ জাহিদ তুই নাকি আমার বউ মার সাথে ঠিক করে কথা বলিস না??

আমি: তার আগে বলো আম্মু তুমি ওর ভাষা কিভাবে বুঝো??

আম্মুঃ আরে গাধা তুই জানিস না আমার নানু বাড়ি বরিশাল ছিলো??

আমি: কি তোমার নানু বাড়ি ও বরিশাল?

আম্মুঃ তাই একটু একটু বুঝি!

আমি: হায়রে এদেখি পুরা গুষ্টি বরিশাল?

আম্মু: বেয়াদব ছেলে থাপ্পর দিবো আর জানো না শুনি এসব কথা আর বউ মার সাথে ভালোভাবে কথা বলবি!

এদিকে দেখি আমার বউ হাসছে দূর অতঃপর ফ্রেস হতে গেলাম পানি দিয়ে মুখ ধুলাম তো আম্মুকে বল্লাম—->

আমিঃ আম্মু তয়ালে টা দাও!

এর মধ্যে দেখি বউ হাজির আর বলছে—->

বউঃ এই লন আমনের গামছা!

আমিঃ তোমাকে কি আমি ডাক দিছি?

বউ: আমনের সব দায়িত্ব মোর বঝঝেন?

আমিঃ বেশি কথা না বলে তয়ালে টা দাও!

বউ: ওয়া কি আমনে দাত বেরাশ করবেন না?

আমিঃ আরে খাওয়ার পর করবো!

বউ: হেইয়া মোগো গেরামে মোরা বেইন্না হালে উইটটা তারা তারি কইররা গুরিদ্দা দাত মাঝতাম আর আমনেরে??

আমিঃ কি দিয়ে দাত মাঝতে?

বউ: গুরি চেনেন না?

আমিঃ সেটা আবার কি?

আমি: দেখো ফাইজলামি করবা না আমার দাত এমনেই সুন্দর |

বউ: হয় যে সুন্দার লাগতে আছে মনে ঐতে আছে চান্দের মত সুন্দর|

আমি: দূর তুমি থাকো আমি নাস্তা করতে গেলাম |

অতঃপর নাস্তা খাচ্ছি হঠাৎ কি যানো গলায় আটকে গেছে তখন কাশছি এই মূর্হতে বউ এসে আমার মাথায় থাপ্পর দিলো তখন আমার কাশি থেমে গেলো তখন বউকে বল্লাম—->

আমি: এটা কি হলো তুমি আমার মাথায় থাপ্পর মারছো কেনো ?

বউ: হেইয়া আমনের মাথায়ে থাপ্পর না মারলে আমনের গলায় যেডা আইটকা আছেলে হেইডা আর কোনো দিন ছটতে না |

আমি: তাই বলে এত জরে মাথায় থাপ্পর দিবা ?

বউ: জরে না দেলে উগ্গা যাইত না |

আমি: দূর খাওয়াই নষ্ট করে দিলো |

বউ: ওয়া কি কিছু গিল্লা যান ?

আমি: এই গিল্লা মানে কি ?

বউ: গিল্লা মানে পেডের ভিতরে কিছু হান্দাইয়া যান ?

আমি: বাপের জন্মে ও এসব ভাষা শুনি নি আর তুমি কিনা আমাকে কি সব আবল তাবল বলছো আমার মাথা গুরাচ্ছে |

বউ: হেইয়া কি কইতে আছেন মুই আমনের মাথা টিপ্পা দিমু ?

আমি: এই তুমি কাছে না আসলে আমি শান্তি পাবো |

বউ: দেহেন আমনে ওবাইল কইররা কতা কইলে মোর শাশুরি আম্মারে ডাক দিমু কলম |

আমি: হায়রে এখানে কলম আসলো কথা থেকে ?

বউ: হেইয়া মুই ডাক দিমু কলম এইয়া কইছি?

আমি: দূর তোমার সাথে থাকলে আমি পাগল হয়ে যাবো তুমি থাকো আমি গেলাম |

অতঃপর আমার বউ আমার আম্মুকে ডাকছে—->

বউ: ও শাশুরি আম্মা এম্মে আন আমনের পলায় মোরে ঝাড়ুদ দিয়া পিডাইতে আছে |

আমি: হায় হায় এত বড় মিথ্যা কথা ?

অতঃপর দেখি আমার আম্মু হাজির পরে বল্লো—->

আম্মু: কি হয়ে ছে মা ?

বউ: দেহেন আমনের পলায় মোর লগে কিবাইল করতে আছে ?

আমি: আম্মু ও সব মিথ্যা কথা বলতেছে |

আম্মু: থাপ্পর দিয়ে দাত ফালিয়ে দিবো শয়তান ছেলে আর কখনো যদি আমার বউ মার গায়ে হাত দিছিস তাহলে ঘর থেকে বের করে দিবো |

তখন আমার বউ হাসছে তখন আমি রাগ করে চলে গেলাম দূর জীবনটা মনে হয় তেজ পাতা তো এরকম চলতে চলতে রাত হয়ে গেলো এখন ঘুমাতে যাবো তখন দেখি আমার পাশে আমার বউ কখন যে এটা আসলো তখন বল্লাম—->

আমি: এই তুমি এইখানে কেনো ?

বউ: তয় কি মুই আমনের মাথার উফরে থাকমু আয় ?

আমি: না তুমি থাকো ঘাটে আমি নিচে ঘুমাই |

বউ: হেইয়া তো কহনো চলবে না ?

আমি: কি চলবে না ?

বউ: মুই আমনেরে ছাড়া ঘুমাইত পারমু না |

আমি: না আমি পারবো না |

বউ: মুই কিন্তু এহন আমনের মায় রে ডাক দিমু কলম ?

আমি: এই না ডাক দিও না আচ্ছা তুমি আমার সাথে এরকম করছো কেনো ?

বউ: ও আমনে মোর লগে এবাইল হরতে আছেন কা ?

আমি: আচ্ছা ঘুমাবো কিন্তু মাঝখানে কোল বালিস থাকবে|

বউ: ছি ছি আমনের লজ্জা করে না মোর লাহান এত সুন্দর বউ থাকতে মোগো মাঝে এউগ্গা কোল বালিস হান্দাইবেন ?

আমি: ওকে তাহলে তো ভালোই আমি নিচে ঘুমাই ?

বউ: কোনো সমস্যা নাই একটু পর একটা ঝাড়ু আইবে আনে |

আমি: আবার ঝাড়ু আচ্ছা তোমার সাথেই ঘুমাচ্ছি কিন্তু আমাকে দরবা না কিন্তু |

তো ও আর আমি এক সাথে ঘুমালাম একটু পর দেখি আমার সামনে তেলাপোকা আমি চিৎকার দিয়ে বউ কে জরিয়ে ধরি |

আসলে আমি তেলাপোকাকে ভয় পাই তো তাই

তখন বউ বল্লো—–>

বউ: ওয়া কি আমনে দি মোরে জরাইয়া দরছেন ?

আমি: ঐ যে তেলাপোকা বাচাও |

বউ: হাহাহা এত বড় দামরা পোলা এহনো তেলাছোরারে ভয় পায় |

আমি: তেলাছোরা কি ?

বউ: আমনের প্রিয় বন্ধু তেলাপোকা হেইয়া |

আমি: এই প্লিজ বাচাও আমাকে |

বউ: ঐছে ঐছে খারান মুই হাত দিয়া ঔগ্গারা ফালাইয়া দেতে আছি|

আমি: এই তুমি ভয় পাও না ?

বউ: এ তো কিছুই না মোরা কত বড় বড় খাডাশ মারছি |

আমি: খাডাশ কি ?

বউ: ও আমনে বঝবেন না এহন মোরে ছাড়েন |

আমি: ওহ সরি |

অতঃপর ওকে ছেরে দিলাম আর বউ দেখি হাত দিয়ে তেলাপোকাটা ধরছে এখন আমার সামনে এসে বল্লো—–>

বউ: খাইবেন নি ?

আমি: কি ওয়াক থু তারাতারি এইটা ফালাউ |

বউ: মুই আইজগো এইডা মোর লাগে রাখমু ?

আমি: তোমার ঘৃনা করে না তেলাপোকা তোমার সাথে রাখবা ?

বউ: আমি তো আমনে র লইগ্গা রাখমু

আমি: কি আমার জন্য মানে কি এগুলা ?

বউ:আমনে রাইতে ঘুমাইলে আমনের গায়ে দিয়া দিমু আনে ?

আমি: প্লিজ আমি তেলাপোকাকে ভয় পাই এটা করো না |

বউ: একটা শর্তে করতে পারি |

আমি: কি শর্ত ?

বউ: আমনে মরে জরাইয়া ধইরা হুইবেন ?

আমি: কি আমি পারবো না আমার বয়েই গেছে তোমাকে জরিয়ে ধরে ঘুমাতে |

বউ:——>

বরিশাইল্যা বউ শেষ পার্ট

 

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *