বস যখন বউ part-1

বস বউ
Sûmøñ Ãl-Fãrâbî
১ম পর্ব

পড়ালেখা শেষ করে সবেমাত্র একটা চাকরিতে জয়েন করলাম,,,
জীবনের প্রথম চাকরি,,, খুব আনন্দের সাথেই কাজ করছিলাম,,,
চাকরির জন্য বাসা থেকে অনেক দূরে থাকতে হয়,,,
যেহেতু প্রথম অবস্থা চাকরির,, তাই একটা মেসে উঠলাম,,,
যদিও বা আমি অনেক ভালো একটা পোস্টে আছি,,,
কিন্তু রান্না করার লোক হঠাৎ করেই পাওয়া যায় না ,,,
তাই জন্য এই প্ল্যান,,,
কি ভাবছেন আমি খুব বুদ্ধিমান তাই না???
হিংসা করবেন না
আপনাদের মাথায়ও একটু বুদ্ধি ঢেলে দিবো,,,
সমস্যা নেই ,,,

দেখতে দেখতে প্রায় কয়েক মাস পেরিয়ে গেলো,,,
এই কয়েক মাসে অফিসে প্রায় সবার সাথে খুব ভালো একটা সম্পর্ক গড়ে উঠছে,,,
এমন কি বসের সাথেও,,,,
আমাদের বস একজন বয়স্ক মানুষ ,,,
খুব সাদাসিধা,,,
যাই হোক ওনাকে নিয়ে পরে অন্য কোনো দিন চা খেতে খেতে বলবো ,,,

অফিসের সাথে সাথে মেসের ও অনেক ছেলের সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠছে ,,
এর মাঝে দুই জন আমার সেম ইয়ার,,,
চাকরির জন্য এপ্লাই করেছে ,,,

গত তিন মাস ধরে বাসায় যাওয়া হয় না ,,,
তাই বসকে বলে এক সপ্তাহ ছুটি নিয়ে বাসার উদ্দেশ্যে রওনা হলাম,,,
জয়েন করার পর এটা আমার প্রথম ছুটি নেয়া,,,

এরপর বাসায় আসলাম,,,
সবার সাথে এতটাই আনন্দে ছিলাম যে
কিছুতেই সেই ব্যাস্ত শহরে যেতে মন চাইছিল না,,,
বাসায় আসার আগে বস ওনার মেয়ের বিয়ের জন্য ইনভাইট করেছিলো
আর অবশ্যই যেতে বলেছিল,,
কিন্তু কার্ড টা যে কই রাখছি মনে নাই,,,
বিয়ের তারিখ টাও মনে হচ্ছে না ,,,
যাই হোক,,,
নিজ এলাকায় এতটাই খুশিতে ছিলাম যে
খুশির ঠেলায় এক সপ্তাহের ছুটি দশ দিনে শেষ হলো,,,

আজ মেসে যাবো,,,
গিয়ে একটা বাসা ঠিক করবো,,,
এভাবে আর মেসে থাকতে ইচ্ছে করে না,,,
আজ তো বৃহস্পতিবার
মেসে গিয়ে একটা লম্বা ঘুম দিবো,,,
এরপর কাল উঠে বাসা খুঁজবো,,,
শনিবার থেকে ইনশাআল্লাহ অফিসে যাবো,,,

সন্ধ্যার দিকে মেসে আসলাম,,,
এসে কাপড় চেঞ্জ করে লম্বা একটা ঘুম দিলাম,,,,
পরের দিন সকাল বেলা বাসা খুজতে বের হলাম,,,
সারাটা সকাল এবং দুপুর বাসা খুঁজে অবশেষে একটা বাসা পেলাম,,,,

বাসাটা পেয়ে এতটাই খুশি হয়েছিলাম যে খুশির ঠেলায় কানে হেডফোন লাগিয়ে আপন মনে নাচতে লাগলাম ,,,

পেচার মতো চোখ বড় বড় করে কি দেখেন,,,
আমার শুধু মনটাই নাচছে
বডি একদম ঠিক আছে,,,

কাল রাতে মনে হয় হালকা একটু বৃষ্টি হয়েছিল ,,,
এই শহরের এই একটাই সমস্যা
ব্যাঙ হিসু করলেও রাস্তায় পানি জমে যায়,,,

আমি আমার মতো হেটে যাচ্ছি ,,,
হঠাৎ একটা গাড়ি এসে রাস্তায় থাকা শতশত জীবানুর বাসস্থান
মানে কাঁদা মাখা পানি সযত্নে আমার শরীরে লেপিয়া দেয়,,,,

নিজের শরীরের দিকে তাকিয়ে নিজেকে কেন জানি না একাত্তরের কাঁদা মাখা সৈনিক মনে হচ্ছে
কিন্তু যুদ্ধ তো অনেক আগেই শেষ ,,,
রাগে দুঃখে চিল্লাইয়া বললাম

“”””” এই স্টুপিড,,, দেখে গাড়ি চালাতে পারো না ,,,

কথাটা বলার সাথে সাথে কেন জানিনা গাড়ি টি থেকে গেল,,,
একটা মেয়ে গাড়ি থেকে নেমে আসলো,,,
যদিও বা দেখতে মনে হয় না কোনো পরীর থেকে কম কিছু হবে ,,,
মনে মনে ভাবলাম হয়তো সরি বলবে এসে,,,
তাই ইট’স ওকে বলার একটা পিপারেশন নিচ্ছি ,,,

“””” আপনার সাহস কতো আপনি আমায় স্টুপিড বলেন ,,,

আমি তো ইট’স ওকের পিপারেশন নিচ্ছিলাম
বাট এই মাইয়া যে ঝগড়া করার পিএইচডি নিছে সেটা কে জানতো,,,

“”” তো আপনাকে কি বলবো শুনি,,, রাস্তায় দেখে গাড়ি চালাতে পারেন না ,,,
“””” আপনি দেখে চলতে পারেন না,, ছোট লোক,,,
“””” এই মুখ সামলে,,, এক দোষ করে সরি বলার কোনো নাম নাই তার উপর আবার আমায় বকা দিচ্ছেন,,, এতো চোরের মায়ের লম্বা গলার মতো অবস্থা ,,,
“””” অনেক ভালো ব্যবহার করছি,,, ঐ তুই নিজেকে কি মনে করস,, তোর মতো একটা ছোটলোক কে আমি সরি বলবো,,,

এই মাইয়া তো ডিরেক্ট তুই এ গেলো,,, আমি আবার কম নাকি,,,

“””” কারে ছোট লোক বলিস হ্যাঁ,,, আমি তোর থেকে না হলেও চার ইঞ্চি লম্বা ,,, আর তোরে রিকশার লাইসেন্স এ কার চালাতে দিছে কেডা,,,,
“””” তোর সাহস কত বড় ,,, তুই আমায় তুই করে বলিস,,,
“””” তোর সাহস যতবড়,,, তার থেকে ১ ফিট বেশি বড় আমার সাহস ,,,,

মেয়েটা হয়তো আরও কিছু বলতো
কিন্তু গাড়ি থেকে অন্য আর একটা মেয়ে এসে ওকে টেনে নিয়ে গেলো,,,
যাওয়ার আগে শুধু বললো,,
.
“”” তোরে আমি দেখে নিবো,,,,
“””” আসেন একটা সেলফি তুলি,,, যখন ইচ্ছে হবে দেইখেন,,,,
কথাটা বলেই বত্রিশ পাটি দাঁত বের করে একটা জগত মাতানো হাসি দিলাম,,,
আমার হাসি দেখে মনে হচ্ছে মেয়েটার শরীর জ্বলে যাচ্ছে ,,,,

মেয়েটার সাথে যে ছিলো সে মেয়েটাকে টেনে নিয়ে গেলো,,,
আমিও ভদ্র ছেলের মতো হালকা করে জিহ্বা দেখিয়ে চলে আসলাম ,,,
মেসে এসে শুয়ে পড়লাম,,,
হঠাৎ আমার রুমে আমার সেম ইয়ার বন্ধু ঢুকলো,,,

“”” কি রে কই গেছলি,,,,
“”‘ বাইরে,, একটু কাজ ছিলো ,,,
“”” ওহহ,,, এখন কি করবি???
“”” কই কিছুই না,,,
“”” ওহহহ,,, আজ তো মেসে রান্না হবে না ,,,
“”” কি বলিস ,,, তাহলে খাবো কি???
“”” সেটার ব্যবস্থা করেছি,,,
“”” কি ব্যবস্থা??
“”” পাশেই একটা বাসায় আজ বিয়ে ,,,
“”” তো???
“”” তো মানে কি?? গিয়ে চুটিয়ে খেয়ে আসবো,,,
“”” আমি কখনো যাই নি ,,,
“”” আজ চল,,, গিয়ে দেখবি চুরি করে খাওয়ার মজাই আলাদা,,,,
“”” যদি ধরা পড়ে যাই,,,
“”” দূর কি যে বলিস না ,,,, সন্ধ্যায় রেডি থাকিস,,,
“”” আচ্ছা ,,,

এরপর শুয়ে কিছু সময় মোবাইল গুতালাম,,,
কখন যে সন্ধ্যা হয়ে গেছে বুঝতে পারি নি,,,
আবার রুমে আসলো,,,

“”” কি রে রেডি হইছিস,,,
“”” ৫ মিনিটে রেডি হচ্ছি,,,

রেডি হয়ে বিয়ের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলাম,,,
বাহহহ্ বাইরে থেকে বাড়িটা দেখে চোখ আঁটকে গেলো,,,
কত সুন্দর করেই না সাজিয়েছে বাড়িটাকে,,,,

“””‘ কি রে থামলি কেন ???
“”” বাড়িটা অনেক সুন্দর করে সাজিয়েছে তাই না,,,
“”” তুই বাড়ি খাবি নাকি ভিতরে গিয়ে খাবার খাবি,,,
“”” হুম চল,,,

ভয়ে ভয়ে ভিতরে গেলাম ,,
ভিতরে যেতেই একজন কলিগ এর সাথে দেখা ,,

“””” সুমন সাহেব যে,,, কখন আসলেন???

আমি ওনাকে দেখে অবাক হয়ে গেলাম,,,
এই বুঝি ধরা পরলাম ,,,
সামনে তাকিয়ে দেখি আরও কয়েক জন কলিগ,,,

“””‘ এই তো এখুনি,,,
“”” উনি কে??? ( কলিগ)
“”” আমার বন্ধু ,,,
“”” বউ নাই জন্য বসের মেয়ের বিয়েতে বন্ধু সহ আসছেন ( কলিগ)
“”” তাড়াতাড়ি একটা বিয়ে করে ফেলেন ( কলিগ)

কথাটা বলেই সবাই হাসাহাসি করতে শুরু করলো,,,

তারমানে আজ বসের মেয়ের বিয়ে,,,,
আর এটা বসের বাড়ি,,,

“”” কি রে সবাই তোরে চিনে কেন???
“””” ওরা সবাই আমার কলিগ ,,, এখন আর ধরা পড়ার ভয় নাই ,,,
“”” ওহহ ভালো তো,,, তাহলে তুই তোর মতো ঘুর আমি আমার মতো ,,,
“”” আচ্ছা যা,,, কোনো সমস্যা হলে ফোন দিস,,,
“”” আচ্ছা ,,,

মনে মনে ভাবলাম বসের সাথে দেখা করে আসি,,
একজন কলিগ কে বললাম বস কোথায়,,,
সে বললো অনেকক্ষণ ধরে নাকি বসকে দেখে নি,,,
আর একজন বললো হয়তো উপরে রুমে আছে ,,,

আমি বাসার ভিতরে ঢুকলাম,,,
পুরো বাসাটা মনে হচ্ছে পরীর রাজ্য
ময়দা পরী দিয়ে ভরে গেছে ,,,
এমন ময়দা সুন্দরীর সাথে বিয়ে হবে
আর বাচ্চা যদি একটু কালো হয়
তবে দোষ পুরা বাবাদের উপর ,,,

যাই হোক ,,,
সাহস করে একজন কে বললাম বস কোথায়???
সে আমায় ছাঁদে যেতে বললো,,,

আমিও আনন্দের সাথে ছাঁদে আসলাম ,,,
দেখি বস একাই দাড়িয়ে আছে ,,,

“””” আসসালামু আলাইকুম ,,, স্যার ,,
“””‘ কে??? ওহহহ সুমন তুমি ,,,
“””” স্যার আপনি এখানে একা দাঁড়িয়ে??
“”” হুম ,,,
“”” স্যার কি হয়েছে?? আপনি কাঁদছেন কেন???
“”‘ ( চুপচাপ)
“”” ওহহ আপনার মেয়ে আপনাকে ছেড়ে চলে যাচ্ছে জন্য,,,,
“”” প্রতিটি মেয়েই একদিন চলে যায়,,, আমি ঐজন্য কাঁদছি না,,,
“”” তো??? আপনি চাইলে আমার সাথে শেয়ার করতে পারেন,,,

এরপর বস আর কিছু না বলে আমার হাত ধরে টেনে ছাঁদ থেকে নিচে একটা রুমে নিয়ে আসলো,,,
রুমের ভিতর ম্যাডাম ( স্যারের বউ)
তিনিও কান্না করছে ,,,
স্যার দরজা লক করে দিলেন ,,,

“””” সুমন জানিনা কেন তোমায় খুব আপন মনে হচ্ছে ,, তাই তেমায় সব বলছি ,,,
“”” আপনি নিশ্চিন্তে বলতে পারেন স্যার,,,
“”” মুমু আমাদের একমাত্র মেয়ে ,,, ছোট বেলা থেকে ওর কোনো চাওয়া অপূর্ণ রাখি নি,,, এই বিয়েটাও ওর ইচ্ছে অনুযায়ী ওর ভালোবাসার মানুষের সাথেই হচ্ছে ,,,,
“”” হ্যাঁ ,, তাহলে তো সব কিছু ঠিকই আছে,,,,
“”” ঠিক নেই ,,, আমি সারাজীবন সততা আর সৎ পথে চলেছি,,, কিন্তু একটু আগে আমার ফোনে একটা কল আসলো,,, পুলিশ ওদের অফিস সার্চ করে ড্রাগস পেয়েছে ,,,
“””‘ কি বলছেন এসব ???
“”” হুম ,,, তবুও চুপ ছিলাম কারণ মেয়ে ওকে ভালোবাসে,,,, কিন্তু একটু আগে পুলিশ ওকে আর ওর বাবাকে গ্রেফতার করে ,,,
“””” কি???
“””” এখন আমি কি করবো?? বাসা ভর্তি এতগুলো মানুষ ,, আমার মান সম্মান সব শেষ ,,,, আর আমার মেয়েটারও জীবন টা নষ্ট হয়ে যাবে,,,
“””‘ মুমু ম্যাডাম কি এসব জানে???
“”” না ওকে কিছু বলি নি ,,,

আমি আর বস এসব নিয়ে কথা বলছি
এমন সময় ম্যাডাম বললো

“””‘ সুমন এখন তুমি পারো আমাদের এই বিপদ থেকে রক্ষা করতে ,,,
“”” আমি ??? কিন্তু কিভাবে ???
“””” তুমি মুমুকে বিয়ে করবে প্লিজ???
“””” কি বলছেন ম্যাডাম,,,,
“”” হ্যাঁ ,,, এছাড়া আর কোনো রাস্তা নেই ,,, প্লিজ বাবা আমাদের সম্মান এবং আমাদের মেয়ের জীবন রা বাঁচাও ,,,,
“””” কিন্তু আমি মেসে থাকি,,, ওনাকে রাখবো কোথায়???
“””‘ সেটা নিয়ে তোমায় চিন্তা করতে হবে না,,, সেটা আমি দেখবো তুমি শুধু বলো আমার মেয়েকে বিয়ে করবে??? ( বস)
“””” কিন্তু স্যার আপনার মেয়ে কখনোই রাজি হবে না ।।।
“”” সেটা আমরা দেখবো তুমি প্লিজ রাজি হয়ে যাও,,,( ম্যাডাম)
“”” আমি আমার পরিবারকে না জানিয়ে কিছুই করতে পারবো না ,,, আপনারা মুমু ম্যাডাম কে বলেন ,, আমিও আমার পরিবারকে বলি,,,
“”” আচ্ছা ,,,

বস আর ওনার বউ মিলে গেলো ওনাদের মেয়ের সাথে কথা বলতে
আমিও বাসায় ফোন দিয়ে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বললাম ,,,
অতপর আব্বু আম্মু উভয়েরই সম্মতি পেলাম,,,,

একটু পরে স্যার আসলো,,,

“””” বাবা মুমু রাজি ,,,, তুমি তোমার পরিবারের সাথে কথা বলছো,,,,
“”” হুম ,,, তারাও সম্মতি দিয়েছে ,,,,

এরপর স্যার আব্বু কে ফোন করে ধন্যবাদ জানালেন ,,,

বিয়ের কাজ শেষ ,,,
বন্ধু টারে বিদায় দিলাম ,,,

ভাবতেই কেমন জানি লাগছে,,,
বাসর রাত শ্বশুর বাড়িতে ,,,
বাসর ঘরের সামনে দাড়িয়ে আছি ,,,
কেমন জানি লজ্জা লজ্জা মনে হচ্ছে ,,,

না লজ্জা পাওয়া যাবে না ,,
বুকের মাঝে ইয়া বড় একটা সাহস নিয়ে ভিতরে গেলাম ,,

বাহ্ ভাবা যায় আমারও বাসার রাত আজ,,,
সারাজীবন সিঙ্গেল পার করলাম
এখন আমিও মিঙ্গেল,,,

এভাবে হাদারামের মতো দাড়িয়ে না থেকে যাই
গিয়ে বউটারে একনজর দেখি,,,


আপনারা কি বলেন???
দেখবো??
দেখি একটু???
আপনারাও দেখবেন ???
না থাক,,,
আপনাদের দেখে কাজ নাই ,,,
.
..

….

..
.
To be continue

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *