বাড়িয়ালার মেয়ে | অভিমানী ভালোবাসার গল্প

বাড়িয়ালার মেয়ে 😁😁
……..পর্ব -02 …..

বাড়িয়ালার মেয়ে  part-01

আমি জারার পিছনে কাগজ টা লাগিয়ে দিয়ে ক্লাস থেকে বের হয়ে আসলাম…….। মাঠে বসে বসে আড্ডা দিচ্ছি আমি সামিয়ুল প্রিতি আর মৌ…….। এমন সময় খেয়াল করলাম হঠাৎ…… জারা ক্লাস থেকে বের হয়ে চোখ ডোলতেছে……।
জারা বিল্ডিং এর বারান্দা ক্রস করার সাথে সাথে আমার খুব হাসি এসে পড়ে……। জারা মাঠে হাটছে তখনি সবাই জারা কে দেখে হাসছে…….। জারা কিছু টা অদ্ভুত হয়ে যায়…….। অনেকে জারার দিকে আঙ্গুল তুলে হাসছে……। জারা কিছুই বুঝতে পারতেছে না…। তখন জারার এক ফ্রেন্ড বলে….।
.
বান্ধুবী ; দেখ তোর পিছনে কাগজে কি লেখা….।
……..
জারা হতবম্বভ হয়ে তারাতারি কাগজ টা খুলে….।
………………………..
কাগজে লিখা = দয়া করে কেউ হাসবেন না আমি জানি আমি মানুষীক রোগী তাই বলে আপনারা হাসবেন…..।
……….
নতুন কলেজে সবার সামনে এভাবে অপমান হওয়া টা জারা মানতে পারি নাই….। চোখে পানি চলে আসে… কাঁদতে কাঁদতে দৌড়িয়ে বের হয়ে যায়………। কলেজ থেকে……।
……
অন্যদিক এ আমি তো মনে মনে অনেক খুশি যাক জব্দ করতে পারলাম…..।

বাকি ক্লাস গুলো করে বাসায় চলে আসলাম…..। রাতে শুয়ে শুয়ে ফোন এ গেমস খেলছি কিন্তু কিছুই ভালো লাগতেছে না…। কেমন জানি গিলটি ফিল হচ্ছে সবার সামনে এভাবে অপমান করা টা ঠিক হয় নি…….।
পর পর ৩ দিন জারা কলেজে যায় নি…………….। এবার আমি আর থাকতে পারলাম না তাই বাড়িয়ালা আংকেল এর বাসায় গেলাম……।
গেট নক দেয়ার পর…আন্টি গেট খুললো……..।
আন্টি : আরে রাফসান বাবা আসো ভিতরে আসো……।
আমি : বলছিলাম যে জারা কি আছে…..??
আন্টি : আছে……ঐ যে ঐ টা ওর রুম….
আমি : কিছু মনে না করলে ওর সাথে কি একটু দেখা করা যাবে…..।
আন্টি : যাও মনে করার কি আছে এখানে……..। এক কলেজে পড় দরকার থাকতেই পারে…..।

আমি : জ্বী…… ধন্যবাদ আন্টি….।

জারার রুমে গিয়ে দেখি ও অন্য দিক ফিরে আছে…..।ওর পিট টা আমার দিকে…..।
আমি : জারা ঐ দিন কাগজ টা আমি তোমার পিটে লাগাইছিলাম….। আমার কর্মের উপর আমি খুব ই লজ্জিত……। পারলে ক্ষমা করে দাও প্লিজ………। কাজ টা করা আমার একদম উচিৎ হয় নি…..। I am really sorry জারা…..।
…………………………………….
জারা : কেন আসছো এখানে চলে যাও….।
আমি : জারা প্লিজ মাফ কর..। মাফ চাচ্ছি তো…..।
জারা: আচ্ছা…….
আমি : জারা আমরা কি বন্ধু হতে পারি….।
জারা : না তেলে আর জলে কখনো মিশ খায় না……।
আমি : তার মানে তুমি আমাকে মাফ কর নাই…..।
জারা : করছি বাবা…..
আমি : তাহলে আজ থেকে আমরা ফ্রেন্ড কেমন…….।
জারা: ওকে…….।
…………………………………………………..
পরের দিন আমি আর জারা একসাথে কলেজে গেলাম……..। শুরু হলো আমাদের বন্ধুত্তর পথ চলা…..। ১ বছর কেটে গেলো জারা এখন আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু….। কিন্তু আমার কাছে ও বন্ধুর থেকে ও বেশি কিছু…….। কিন্তু সে টা কি তা আমি নিজেও জানি না……। একদিন কলেজের মাঠে জারা আর অন্য ডিপার্টমেন্ট এর ছেলে হেসে হেসে কথা বলছে……। আমার জানো কেমন কেমন জানি লাগছে…….। খুব ই কষ্ট হচ্ছে….। কলেজে শেষে আমি আর জারা রিকশা করে বাসায় যাচ্ছি….।
.
আমি : দোস্ত ঐ ছেলে টা কেরে…..।
জারা: কোন টা রে…….।
আমি : ঐ যে কলজের মাঠে যে কথা বলছিলি…।
জারা : আরে ঐ টা হাসিব……। কমার্স ডিপার্টমেন্ট……।
আমি : ও
জারা: কেন…??
আমি : না দেখলাম তাই জানতে মন চাইলো……।
জারা : ও..
আমি : হুম….।
কথা বলতে বলতে বাসায় পৌছে গেলাম………..।
…………………………..
রাতে ছাদে বসে আছি মাথায় একটা কথা ই বার বার আসছে…..। জারা কে ঐ ছেলেটার সাথে কথা বলা…। তা ও আবার হেসে হেসে……। আচ্ছা আমার কেন এত কষ্ট হচ্ছে….। আমি কি ওকে সত্যি সত্যি ভালোবাসলাম……নাকি…..। মাথা ফেটে যাচ্ছে…. কি করব না করব ভাবতে পারছি না…..। না পেরে জারা কে ফোন দিলাম………….।
…….
আমি : হ্যালো জারা
জারা : হ্যা বল
আমি : একটু ছাদে আয়…..।
জারা: এখন….??
আমি : হ্যা এখন…..।
জারা: ওকে আসছি……
আমি : যলদি…..আস..।
…………..
মিনিট ৫ এক পর জারা আসলো……….।
.
জারা : বল কেন ডাকলি……।
আমি : একটা কথা জারা জানি না তুই কি ভাব বি………।
জারা: বলবি তো আগে…..
আমি : আসলে…
জারা : কি আসলে…..
আমি : I love u zaara… আমি তোকে অনেক ভালোবাসি…….

ঠাসসসসসস্

জারা আমাকে চর দিয়ে চলে গেলো….। আমি ও কেবলা কান্তোর মতোন দাড়িয়ে থাকলাম…..। কিছুখন পর মাথায় আসলো…। জারা যদি ওর বাবা কে বলে দেয়..। তাহলে তো আমার বাসা গেছে সামনে ই বোর্ড পরীক্ষা…..। তখন কি করবো…..। চিন্তা নিয়া ই বহু কষ্টে ঘুম দিলাম….। ……. সকালে ঘুম থেকে উঠে তওবা করতে করতে নিচে নামলাম কলেজ যাওয়ার জন্য……..। নিচে গিয়ে দেখি জারা ও আছে….। আমাকে দেখেই বললো…..।
জারা : কিরে এতোলেট কেন করলি কলেজ যাবি না নাকি…..।
আমি : হু যাবো তো
……..অতঃপর রিকশা ঠিক করে উঠলাম রিকশায়….। আমার মাথা কিছুতেই কাজ করতেছে না জারার এরকম ব্যবহার দেখে…. ওকে এরকম মনে হচ্ছে যে কাল রাতে কিছুই হয় নি…..। ও খুব স্বাভাবিক ব্যবহার করতেছে….। আমি অনেক টা হতবাক এক কথায় বাকরূদ্ধ..। হঠাৎ ও নিরবতা টা কে ছেদ করে বললো
জারা : কিরে কি হলো চুপ কেন….।
আমি : এমনি
জারা : অন্যদিন তো বক বক করতে থাকিস……।
আমি : না কিছু না এমনিই চুপ চাপ…….।
জারা : মুড়ি খা….. 👿👿👿
আমি : মুড়ি কই পাবো..
জারা : আমার মাথায়…..
কথা কথা বলতে বলতে কলেজ চলে আসলাম……। রিকশা থেকে নেমে দেখি…. সামিয়ুল দাড়িয়ে আছে……।
সামিয়ুল : লেট কেন….??
জারা : কি জানি ক্যাবলা কান্ত আজ আসতে দেরি করছে……।
আমি : না কিছু না এমনি…… 😁😁😁😁
সামিয়ুল : চল ক্লাসে চল…..
………………………………..
ক্লাস করতে থাকলাম সবাই..। কিন্তু আমার মাথায় এক জিনিস ই ঘুর পাক খাচ্ছে…জারা জারা জারা…..। জারার কথা ই মনে পড়ছে আর ওকে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখতেছি……হঠাৎ ওর চোখে ধরা পড়ে গেলাম….। এভাবে চলে গেলো….. দিনটা……।
।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।।
এভাবেই ইন্টার ফাইনাল পরীক্ষা টা শুরু হয়ে গেলো প্রায় ২ মাস চললো পরীক্ষা…..। পরীক্ষা চলা কালিন এক সাথে সময় অনেক টা সময় কেটে ছে একে অপরের সাথে…..। একসাথে পড়া করতাম……..। দেখতে দেখতে পরীক্ষা এখন আবার মাস দু এক এর অপেক্ষা রেজাল্ট এর জন্য……। তারপর কে কোথায় যাবে তা নিজেরাই জানি না…………………। মনের ভিতরে একটাই জিনিস ই বার বার তারা করে বেরাচ্ছে…..। আর একবার কি বলবো ভালোবাসি কথা টা….। কিছুতেই ভরসা খুজে পাচ্ছি না…। কেটে গেলো কিছু দিন..। রেজাল্ট দিতে আর ১ সপ্তাহ বাকি…..। কাল ক্লাস ফ্রেন্ড প্রিতির বার্ড এ….। সবাই ই গেলাম জারা ও আসছে……। উইশ করলাম প্রতি কে..। কেক কাটা হলো…..। খাওয়া দাওয়া ফুর্তি করতেছে সবায় আমি এক কোনায় দাড়িয়ে আছি একা…..। হঠাৎ সামিয়ুল আসলো…
সামিয়ুল : কিরে মুড অফ কেন….??
আমি : দেখিস না নাকি আসে পাশে কিছু নাকি অন্ধ হয়ে গেছিস……?? 👿👿👿👿👿
.
সামিয়িল : কি জারা অন্য একটা ছেলের সাথে তাই দেখে তোর ফাটছে তাই তো…..।
আমি : যা ভাগ শালা কাটা গায়ে নুনের ছিটা দিতে আসবি না……।
সামিয়ুল : এখনো সময় আছে……।
আমি : মানে..?😎😎
সামিয়ুল : জারা কে বল যে তুই ওকে ভালোবাসিস…।
আমি : ১ বার বলে থাপ্পড় খাইছি আর না….
সামিয়ুল : হ তুই তুই বসে দেখ ওদের ফিল্ম দেখ ফিল্মের দ্যি এন্ড দেখবি তাদের একটা বেবি ও হয়ে গেছে…….।
আমি : যা ভাগ বাল.. মন মেজাজ ভালো নাই মজা নিস না তো……।
সামিয়ুল : সময় এখনো আছে বলছি কিছুই হাত ছাড়া হয় নি এখনো……..।
আমি : মানে..??😒😒😒
সামিয়ুল : তুই ওকে সবার সামনে ভালোবাসার কথা বলে দে তখন দেখবি ও আর না করতে পারবে না…..। 😎😎😎😎😎
আমি : are you sure…?
সামিয়ুল : হুম দোস্ত এত ভাবিস না…
আমি : ওক্কে……..।
পার্টি থেকে বের হলাম সবাই বিদায় দিয়ে…। যে যার যার মতো করে চলে যাচ্ছে…..।
।।।।।।।।।।।।।।।
এমন সময় জারা এসে বললো
জারা : চল দোস্ত বাসায় যাবি না
আমি : তুই যা আমার একটু কাজ আছে….।
জারা : কি কাজ..। 😒😒😒😒
আমি : এইতো একটু কাজ আছে…।
জারা : হু আমি তোর কাজ দেখবো.. 😜😜😜😜
আমি : চল বাসায় যাই….।
জারা : না আমি তোর কাজ দেখবো….।
আমি : কোন কাজ নাই আমার চল বাসায় চল
জারা : তাহলে মিথ্যা বললি কেন…. এর জন্য তোর জরিমানা হপ্পে……।
আমি : কি জরিমানা
জারা : আইসক্রিম 😜😜😜😜😜
আমি : দারা আনতেছি…..।
জারা : ২ টা আনবি কিন্তু
আমি : ওক্কে…..।
আইসক্রিম নিয়ে আসলাম মাত্র আর ওমনি হাত থেকে টান দিয়ে নিয়ে নিলো…..।
রিকশাতে উঠলাম…..। পাগলি টা আইসক্রিম খাচ্ছে আর আমি মন ভরে দেখছি….। গাল মুখ টুখ সব ভরায়া ফেলছে পুরাই বাচ্চাদের মতো লাগতেছে……।
জারা : ঐ ব্যাটা তাকায়া আছিস কেন আমার পেট ব্যাথা করবে তো….।
আমি : ঐ আমি তোর আইসক্রিম এর দিকে নজর দেয় নি বুঝলি…..।
জারা : হইছে হইছে আর ডব দিতে হবে না…. 😜😜😜😜
……………………………..
কথা কথা বলতে বাসার সামনে চলে আসলাম তারপর ও ওর বাসায় আর আমি আমার চিলেকোঠা তে চলে আসলাম…..। দেখতে দেখতে ৭ টা দিন কেটে গেলো……। রেজাল্ট আসার অপেক্ষায় আছি…। A+ আসলো আমার রেজাল্ট আর জারার ও………। সবাই কলেজ এ বসে কথা বার্তা বলছে……। আমি ভাবলাম সামিয়ুল তো বললো সবার সামনে প্রপোজ করতে তাহলে এখনি করি….। এখনি সবাই আছে…..।
জারার সামনে গেলাম……
হাটু গেড়ে বসে বললাম I love u………. zaara
জারা : ঠাসসসসস্ ছোটলোক তোর সাহস কি করে হলো আমাকে আবার প্রপোজ করিস ঐ দিন চর খেয়ে তোর লজ্জা হয় নি… সামন্য একটা ভাড়াটিয়া হয়ে আসছিস প্রপোজ করতে….। যা চোখের সামনে থেকে দূর হো ফকিন্নি কোথাকার…..

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *