রাগী বসের অভিমানী বউ part-9 এবং শেষ পর্ব । স্বামী স্ত্রীর ভালবাসার গল্প

রাগী বসের অভিমানী বউ #রক্ষিতা

Part – 9( শেষ পর্ব)

Writer: Taslima Munn

না কাজল, তোমাকে সব শুনতে হবে।
সেদিন আমি ইচ্ছে করেই তোমার সাথে এমন করেছিলাম। মিথ্যা বলবো না, তোমার জন্য আমার সব ধরনের পেশন ছিলো। তাই তুমি যখন চড় মারলে আমার ভেতরে জেদ চেপে যায়, যে কোনো কিছুর বিনিময়ে তোমাকে আমার করে পেতে চেয়েছি।
কিন্তু পরে বুঝতে পারলাম তুমি কিছুতেই বিয়েতে রাজি হবে না। তাই অনেক টা ব্ল্যাকমেইল করেই বিয়ে টা করি।কারণ তোমাকে কোনো কিছুর বিনিময়ে হারাতে চাইনি।।
আমার জেদ ছিল ঠিকই, তারচেয়ে বেশী মনের মধ্যে একটা বাসনা ছিলো, কোথাও একটা আশা ছিল যে তোমার মাঝে সবটাই পাবো যা আমি এতো দিন খুঁজেছি।

আমি বোকার মতো হা করে আকাশের কথা শুনছি। তারপর বললাম
– এই জন্যই বুঝি দুই বছরের জন্য বিয়ে করেছিলেন?
আকাশ মৃদুহেসে বলে – তোমার কি মনে হয়, এতো কাঠখড় পুড়িয়েছি দুই বছরের জন্য?
আমি বলেছি আর তুমি সিরিয়াসলি নিয়ে বিশ্বাস করেছো। এটা দেখে আমি খুব মজা পাচ্ছিলাম। আর সত্যিটা জানাইনি আরও একটা কারণ আছে। আমি চেয়েছিলাম তোমার মনের কাছাকাছি যেতে। তুমি আমাকে অনেক খারাপ ভাবতে আর ভাববেই না বা কেন? আমি এমনই ছিলাম।কিন্ত বিশ্বাস করো আমি আমার জন্য একটা আশ্রয় চেয়েছি তোমার মধ্যে। আমার কোনো কিছুর অভাব ছিলো না। নারী – বাড়ি -গাড়ি! কিন্তু আমার নিজের একটা মানুষ ছিলো না, যাকে আকঁড়ে ধরে বাঁচবো।
আকাশের কথা শুনে আমার চোখ দিয়ে অঝোরে পানি ঝরছে। কিছুতেই আটকে রাখতে পারছিনা।
– এতো দিন তো বলেননি।।
– বলার সু্যোগ হয়ে ওঠেনি।আর বলতে ইচ্ছেও করেনি। চেয়েছিলাম দুই বছর পরে যখন তুমি এই কথা তুলবে তখন বলবো।।
– তবে আজ কেন বললেন?
– আজ বলতে ইচ্ছে করছে তাই।
– ভয় পাচ্ছেন যদি কখনো আর বলতে না পারেন?
– ‘না কাজল, ভয় পাচ্ছি না। শুধু তোমার মনের জোর হতে চাইছি,তাই বললাম।
আমি ভীষণ একা। ভীষণ। তোমার বাবা-মা ছিলো, সুন্দর একটা শৈশব ছিল, কিন্তু আমার? সবাই থেকেও আমি একা। আমার শৈশব চিড়িয়াখানার বন্দী জন্তুর মতো ছিলো। বাবা-মা যখন ঝগড়া করতো আমি ভয়ে জড়োসড়ো হয়ে যেতাম। আমাকে কেউ বুঝতে চায়নি।দেখো না আমার নিজের বাবা-মা ই ফেলে….
তোমার জন্য আমার সব বদলে গেছে। প্রথম দিকে জেদের বশে অনেক রাফ ব্যবহার করেছি।কিন্তু পরে নিজেই গিলটি ফিল করতাম। তোমার কাছে যাবার হাজার টা বাহানা খুঁজতাম। ‘

সাত সাগরের পানি বুঝি আজ দুজনের চোখ দিয়ে ঝরে পড়বে। কতটা সময় পাবো জানি না। হয়তো এটাই শেষ কথা আকাশের সাথে শেষ কথা। চোখ মুছে আকাশ বললো- মাঝরাতে ঘুমের ভান করে তোমাকে জড়িয়ে ধরতাম যাতে তুমি বুঝতে না পারো,আসলে আমি তোমার শরীরের ঘ্রাণ নিতে চাইতাম। জড়িয়ে ধরলে মনে হয় ফাঁকা যায়গাটা পূর্ণ হয়েছে।
আকাশ কান্নায় ভেঙে পড়ে।
আমি কি বলে সান্ত্বনা দিবো আকাশ কে?
এ কেমন নিয়তি?

  • আকাশ?
    চোখ মুছতে মুছতে বললো – বলো।
  • একটা বার আমাকে জড়িয়ে ধরবেন?
    আমাকে ওর বুকের মধ্যে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে। যদি পারতো হয়তো বুক চিড়ে ভেতরে রেখে দিতো। আকাশের কান্না বোধহয় বাঁধ ভেঙে গেছে। আমিও আকাশকে জড়িয়ে ধরেছি যেন কোনো কিছুই আমাদের আলাদা করতে না পারে।
    হয়তো আর কখনো এভাবে ধরতে পারবো না। আকাশের বুকে জড়িয়ে আমার পৃথিবী ভেঙে কান্না আসছে।।
  • আকাশ, আমি বাঁচতে চাই। আমি তোমার সাথে বাঁচতে চাই।
    আমি পাগলের মতো আকাশের সারা মুখে চুমু খেয়ে যাচ্ছি। এই পাগলটাকে আর কখনো দেখতে পাবো না এটা মনে হতেই ওকে আবারও ভীষণ শক্ত করে জড়িয়ে ধরি।।
    আমি বাঁচতে চাইছি।আমি আকাশের জন্য বাঁচতে চাইছি।
  • তোমার কিচ্ছু হবে না। তুমি একদম সুস্থ হয়ে যাবে।
  • আকাশ, প্লিজ তুমি অপারেশন বন্ধ করো।আমি অপারেশন করাবো না।।
  • কেন? করাবে না কেন?
  • অপারেশন না করলে আমি কয়েকটা দিন থাকতে পারবো তোমার কাছে। অপারেশনে যদি মরে যাই?তবে আর একটা দিনও পাবো না…
  • এই মেয়ে! একদম চুপ। আবার যদি এসব কথা বলেছো তো আমিই তোমাকে মেয়ে ফেলবো!
    আকাশ কান্না কিছুতেই থামাতে পারছেনা।
    এদিকে আমার মাথায় প্রচন্ড যন্ত্রণা শুরু হয়েছে।
  • আকাশ, ভীষণ ভালবাসি তোমায়। অনেক বেশি…
  • আর কোনো কথা নয়।আমি জানি তুমি আমাকে ভালবাসো। আমিও অনেক বেশি ভালবাসি তোমাকে। তাই আমার কথা শুনতে হবে। চুপ করে শুয়ে থাকো।এতো ট্রেস নেয়া ঠিক হচ্ছে না।
  • তুমি আমার হাত ধরে বসে থাকো।
  • এইতো আমি হাত ধরে আছি।মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছি। ঘুমাতে চেষ্টা করো।

দুপুর থেকে আমার খাবার বন্ধ করে দিয়ে স্যালাইন দিচ্ছে। ঘুমের পরিমাণ বেড়ে গেছে আমার। যতক্ষন জেগে থাকি তীব্র যন্ত্রণায় ছটফট করি।
সারারাত কেটে গেছে। খুব ভোরে ঘুম ভাঙলে দেখি আকাশ আমার হাতেই মাথা রেখেই ঘুমিয়ে আছে। আমি আকাশকে দেখছি।আমার দৃষ্টি স্পষ্ট নয়,ঝাপসা। ঝাপসা চোখেও আমি দেখছি আকাশকে। একটা হাত আস্তে আস্তে ওর মাথায় রাখলাম। ঘন্টা তিনেক পরে অপারেশন। আমি জানি না আর কখনো ওকে স্পর্শ করতে পারবো কিনা।ভীষণ ভয় হচ্ছে আমার।
আমার হাতের স্পর্শে আকাশ জেগে ওঠে।
– ঘুম ভাঙলো কখন?ডাকলে না আমায়?
ক্ষীন স্বরে বললাম – এখন।
আর কোনো কথা বের হচ্ছে না মুখ থেকে।
আমার ভেতরে কেমন একটা করছে। মনে হচ্ছে দম আটকে আসবে। ভয় করছে,ভীষণ ভয় করছে।

সময় হয়ে গেছে। আমাকে ও.টি. তে নিয়ে যাচ্ছে। আকাশও আমার সাথে যাচ্ছে, আমি ওর হাতটা শক্ত করে ধরে আছি।শেষ বারের মতো সবাইকে এক নজর দেখে নিলাম। অপারেশন টেবিলে নেবার আগে আমাকে স্যালাইন পাল্টে দিলো।আরও কয়েকটা ইনজেকশন দিলো।
আমার মনে হচ্ছে সারা দুনিয়া ঘুরাচ্ছে।মাথা কেমন ঝিমঝিম করতে থাকে চোখের পাতা ভারী হয়ে আসছে। টেনে খুলে রাখার চেষ্টা করছি। আমি চোখ খোলা রাখতে চেষ্টা করছি….

এদিকে আকাশসহ সবাই উদ্ধিগ্ন হয়ে অপেক্ষা করছে ও.টি. এর বাইরে। সাড়ে তিন ঘন্টা পরে ডাক্তার বেরিয়ে এলেন। আকাশ ছুটে যায়
ডাক্তারের কাছে।
– ডক্টর??
– অপারেশন শেষ হয়েছে। ৮ ঘন্টা পরে জ্ঞান ফিরবে। তবে রোগীকে এখন ৪৮ ঘন্টা I.C.U. তে রাখা হবে অবজারভেশনে।
– আই.সি.ইউ তে কখন দিবেন, ডক্টর?
– এইতো কিছুক্ষণের মধ্যেই।
– আমি কি একবার দেখতে পারি?
– সরি মি. আকাশ। এটা এলাউ করা হয় না।
– প্লিজ, ডক্টর একবার জাস্ট দেখেই চলে আসবো।
ডাক্তার একটু ভেবে বললেন – ওকে। শুধু দেখেই চলে আসবেন, তবে আপনাকে অন্য ড্রেস পড়ে যেতে হবে। ইনফেকশনের রিস্ক আছে রোগীর।
– ওকে ডক্টর, থেংকুউ।
– আসুন আমার সাথে।
আকাশ ডাক্তারের সাথে চলে যায়।

কত মিনিট, কত ঘন্টা,কত দিন পরে চোখ খুলেছি আমি জানি না। অক্সিজেন লাগানো।চোখও পুরোপুরি খুলতে পারছিনা। মাথা নাড়ানো যাচ্ছে না। যন্ত্রণা হচ্ছে। শরীর কেমন ক্লান্তিতে ভেঙে আসছে।আমি কাউকে ডাকবো এমন শক্তি পাচ্ছি না। তারপর ও সবটুকু শক্তি সঞ্চয় করে ডাকতে চাইলাম, কিন্তু গলার স্বর যেন বসে গেছে। বেশ কিছু সময় পরে একজন নার্স কাছে এলো।তাকে বলতে চাইলাম,কিছু বলতেও পারছিনা।হাত দিয়ে যে ইশারা করবো সে উপায় নেই,হাত উপরে তুলতে পারছিনা।কোনোরকম হাতের দুইটা আঙুল নাড়ালাম। নার্স বললো – কিছু বলবেন?
আমি ঠোঁট নেড়ে বললাম – আকাশ।কিন্তু নার্স বুঝতেই পারলো না।।
যন্ত্রণা হচ্ছে ভীষণ, ভীষণ কষ্ট হচ্ছে আমার।যদিও অক্সিজেন লাগানো আছে, তবুও নিঃশ্বাস যেন বন্ধ হয়ে আসছে। মুহূর্তের মধ্যেই চরম পর্যায়ের ব্যথা অনুভব করছি। চোখ যেন বেরিয়ে যাবে ব্যথার তোড়ে।খিচুনির মতো হচ্ছে।

রোগীর অবস্থা বেগতিক দেখে নার্স ভয় পেয়ে যায়।ছুটে যায় ডাক্তারের কাছে।

আমি অনুভব করতে পারছি যে আমি মারা যাচ্ছি। বারবার মনে হচ্ছে মানুষ মারা যাবার সময় এমন অনুভূতি হয়? আমি মরতে চাই না। বাঁচার আপ্রাণ চেষ্টা করছি। একবার শ্বাস নিলে মনে হচ্ছে এটাই শেষ, পরের নিঃশ্বাস টা আর ফেলতে পারবো না। সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করছি- হে আল্লাহ, আমাকে বাঁচতে দাও,আকাশের জন্য বাঁচতে দাও।আমি ছাড়া ওর কেউ নেই।
এমন করুণ একটা সময়, আমি আকাশকে একা ফেলে চলে যাচ্ছি। যাচ্ছি না ; যেতে হচ্ছে। আমি লড়াই করছি বাঁচার জন্য।এমন একটা অদ্ভুত সময় আমি চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি সেই সে নদী, নৌকার বয়ে চলা।একটার পর একটা ঢেউ আছড়ে পড়ার শব্দ আমার কানে আসছে। আমি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি আমার মা রান্নাঘরে রান্না করছে, বারান্দায় বাবার সাথে ছোট্ট একটা মেয়ে খিলখিল করে হাসছে। আমি অবাক হয়ে দেখছি।এই মেয়েটা আমি?
নদী দূরে সরে যাচ্ছে। ক্রমশ দূরে সরে যাচ্ছে।

আমার মা-বাবা,বাবার সাথে খিলখিল করে হাসা মেয়েটা, আমার চিরচেনা আঙিনা ক্রমশ দূরে সরে যাচ্ছে…. নাকি আমি সরে যাচ্ছি??

এবার আমি বুঝতে পারছি বাঁচার সব চেষ্টা বৃথা। আমি ক্লান্ত হয়ে গেছি।অসহ্য যন্ত্রণার মাঝেও এমন ভিশন হয়!
হঠাৎ আমি নিজেকে দেখতে পাই শুনশান নীরব এক অন্ধকার প্রান্তরে। খোলা প্রান্তরে শুধু অন্ধকার! এই অন্ধকারেও হালকা হালকা দেখা যাচ্ছে চারিদিক। কোথাও কেউ নেই। ভয় পাচ্ছি আমি। ভীষণ ভয়।
আমি কি মারা গেছি? মৃত্যুর পরে এখানে আনা হয়েছে?
কে কথা বলছে? হঠাৎ করে এতো মানুষের আওয়াজ! কোলাহল! কে আমার নাম ধরে ডাকলো? – মামা?
না, অইতো সুমনা ডাকছে। কিন্তু কোথায়? আকাশ ডাকছে, বাবা- মা কথা বলছে! সবাই কথা বলছে! এতো মানুষের কোলাহল! কিন্তু আমি কাউকে দেখতে পাচ্ছি না কেন??
– তোমরা কোথায়? আমাকে নিয়ে যাও।
আমি গলা ফাটিয়ে ডাকছি…. কিন্তু….
ঐ তো এইখানে দেখা যাচ্ছে… আমি ছুটে যাই।
মুখ থুবড়ে পড়ে গেছি। না এখানে কেউ নেই,কেউ ছিলো না ।
কিন্তু সবার কথা শুনতে পাচ্ছি… এই অন্ধকার খোলা ময়দানে…. একি! শব্দগুলো মিলিয়ে যাচ্ছে! আর কোনো শব্দ, আওয়াজ শোনা যাচ্ছে না… সব ক্ষীণ হয়ে গেছে…
আবার সেই নীরবতা।
মাঠের শেষ প্রান্তে একটা ঘন জঙ্গলের মতো দেখতে পাচ্ছি। এটা কি?
জঙ্গল নয়,এটা কোনো প্রাচীর মনে হচ্ছে। কিসের প্রাচীর? কি আছে প্রাচীরের ঐ পাশে?
হঠাৎ অদৃশ্য একটা শক্তি আমাকে ঘিরে ফেলে। আমাকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। আমি যেতে চাইছি না। আমি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছি একটা ঝলমলে আলো সেই প্রাচীরের গায়ে! যেন একটা ফটক!
আমাকে সেখানে নিয়ে যাচ্ছে।
হে আল্লাহ, তুমি আমাকে একটা সুযোগ দাও, একটা বার বাঁচার সুযোগ দাও,এই প্রাচীর পেরিয়ে গেলে আর কোনো দিন ফিরতে পারবো না এপাশে।
আমার সমস্ত শক্তি দিয়ে মাটি আঁকড়ে ধরে থাকতে চাইলাম, সব ব্যর্থ হয়ে গেল।আমি ফটকের ঠিক সামনে। ভীষণ অভিমান হলো।
কার উপর জানি না।
নিতে চাও আমায়? বেশ নিয়ে যাও..
ঠিক এই মুহূর্তে আমার না কোনো ব্যথা করছে, না কোনো যন্ত্রণা, না কোনো অনুভূতি। এক সেকেন্ডের জন্য সব থমকে গেছে, সাথে আমিও।
আমার চোখ জোড়া বন্ধ হয়ে গেল।

রোগীর অবস্থা খারাপ হচ্ছে দেখে নার্স ভয় পেয়ে ডাক্তার ডেকে আনে।ডাক্তার ছুটে আসে। অপারেশন পরবর্তী সংকট! রোগী জ্ঞান ফেরার সাথে সাথে অপারেশনের ঝক্কি সামলাতে পারছে না। শারীরিক অবস্থা কিছুতেই পেরে উঠছে না।রোগীর শ্বাসকষ্ট হচ্ছে, ডাক্তাররা ছোটাছুটি শুরু করলো।
আকাশ আই,সি,ইউ এর বাহিরে বসে আছে। ডাক্তার যেতে দেখে জিজ্ঞেস করেছিলো কি হয়েছে ডাক্তার কিছু বলেনি।তাড়াতাড়ি রোগীর কাছে গেলেন।
পরে ডাক্তারের ছোটাছুটি দেখে আকাশ বুঝতে বাকি রইলো না যে কাজলের অবস্থা ভালো নয়।
– ডক্টর, কি হয়েছে আমাকে বলুন।কাজল কেমন আছে?
– দেখুন একটু আগেই জ্ঞান ফিরেছে।
আকাশ খুশি হয়ে বললো – আমি দেখা করতে পারি?
– সরি,জ্ঞান ফিরেছে ঠিক, কিন্তু..
– কিন্তু কি ডক্টর?
– অপারেশন পরবর্তী কিছু ঝুঁকি থেকে যায়।এই ধাক্কা সামলানো রোগীর পক্ষে কঠিন।
অপারেশন এর পর একটা অস্বস্তি আর অপারেশনের জায়গায় ব্যথা এটা জ্ঞান ফেরার সাথে সাথে তীব্র হয়ে যায়। রোগীকে এটা সামলে নিতে হয়।এখন যদি এই অবস্থায় রক্তক্ষরণ হয় তবে রোগী মারাও….
আমরা আবারও ঘুমের ইনজেকশন আরও কিছু মেডিসিন দিয়েছি। এখন শুধু অপেক্ষা করতে হবে কখন জ্ঞান ফিরে, কারণ উনার খুব ধকল গেছে যে…. এটা খুবই আশঙ্কাজনক!

আকাশ ধপ করে এখানেই বসে পড়ে। ডাক্তার বললো – ‘আপনি চাইলে রোগীর পাশে অপেক্ষা করতে পারেন।তবে কান্নাকাটি বা শব্দ করলে সেটা সম্ভব হবে না।। আসুন আমার সাথে।’
আকাশ এখন আর কাঁদছে না।একদম চুপ হয়ে গেছে। আকাশ কেমন স্তব্ধ হয়ে গেছে। চুপচাপ ডাক্তারের পিছনে গেল।।

৮ বছর পর।
এক পড়ন্ত বিকালে আকাশকে দেখা যায় দুটো ফুটফুটে মিষ্টি মেয়ের সাথে বাগানে ভলিবল নিয়ে খেলছে। আকাশের পাঁচ বছরের জমজ দুই মেয়ে আরশি আর আভা।আকাশের স্ত্রী বাগানের চেয়ারে বসে ল্যাপটপে কিছু কাজ করছে, সম্ভবত কিছু লিখছে।
জীবন থেমে থাকে না। নানা উত্থান-পতনের আবর্তে জীবন চলে জীবনে নিয়মে। তেমনি সুখ-দুঃখের পালা চলতেই থাকে।
সময়ে কিংবা অসময়ে; প্রিয়জনকে হারানো আশঙ্কা বা হারানো কষ্ট কোনো কিছুর বিনিময়ে ভুলানো যায় না। এই ক্ষত সহ্য করা সত্যিই ভীষণ কঠিন।
কিন্তু সময়, সময় আমাদের অনেক কিছু সহ্য করার অভ্যাস হয়ে যায়। তবুও আমরা চাইনা কেউ হারিয়ে যাক। জীবন চক্রে অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়। নিয়তির বিধান মেনে নেয়া ছাড়া কিছুই করার থাকে না। প্রিয়জনকে হারানোর ভয় বড্ড বেশিই হয়।
তবে, উপরওয়ালা যা লিখে রাখবেন তা-ই হবে,তার ব্যতিক্রম নয়।।

আকাশ নতুন করে জীবন শুরু করেছে। স্ত্রী আর পরীর মতো দুই মেয়েকে নিয়ে বেশ সুখে দিন যাচ্ছে আকাশের।
দুই মেয়ে বায়না ধরলো আইসক্রিম খাবে।
তাদের বাবাকে রাজি করানো জন্য দুইজন দুইপাশ থেকে গলায় জড়িয়ে ধরে বলছে- সোনা বাবা না তুমি, তুমি তো আমাদের বেস্ট পাপা, শুধু আজকেই আইসক্রিম খাবো।প্লিজ পাপা,চলনা! প্লিজ প্লিজ প্লিজ!
মেয়েরা যখন কিছু বায়না করে, তখন আকাশকে ‘ সোনা বাবা ‘ ডাকে।
আকাশ বেশ উপভোগ করে, তাই আরও কিছু সময় রাজি না হবার অভিনয় করে। শেষ পর্যন্ত রাজি হয়।
– কিন্তু তোদের আম্মু কি রাজি হবে?
– তুমি রাজি করাবে।
– ওরে বাবা! আমি নেই।
– পাপা,তুমিও কি আম্মুকে ভয় পাও??
বেচারা আকাশ!পাঁচ বছরের মেয়ে দুটোও জেনে গেছে আকাশ চৌধুরী বউকে ভয় পায়।
মুচকি হেসে বলে – ভয় পাবো না! দেখিস না আমরা খেললেই চেচামেচি করে, গুছানো সবকিছু নাকি নষ্ট করে ফেলি! আমার কানের পোকা মরে যায়!

বাবা – মেয়েদের কথার ভঙ্গি সুবিধার মনে হচ্ছে না। মেয়ে দুটো মুখচেপে হাসছে। আকাশের স্ত্রী সেটা আঁড়চোখে খেয়াল করছে।
লাইন ধরে তিনজন এসে হাজির আকাশের স্ত্রীর কাছে।
– কি চাই?
– আইসক্রিম।
– হবে না।
– প্লিজ একবার।
– নো।
– প্লিজ আম্মু,
আম্মু চলনা অনেক দিন বাহিরে যাইনা একসাথে। সামার ভেকেশন চলে যাচ্ছে।
– পরশুও বের হয়েছিলাম। মাঝখানে একটা দিন গেছে মাত্র!
– বাচ্চারা এতো করে বলছে, প্লিজ চলনা আমারও খুব ইচ্ছে করছে আজ এক যায়গায় যেতে।
– কোথায়?
– আগে চলই না।পরে দেখবে,আইসক্রিম খেতে খেতে যাবো সবাই।
– হুম!! যাও রেডি হয়ে নাও।
আরশি আর আভা খুশিতে লাফাচ্ছে।
আকাশ ওদের নিয়ে ভিতরে যাচ্ছে। আকাশের স্ত্রী তখনও লিখছে।।
আকাশ ফিরে দেখে ওর স্ত্রী উঠার নাম নেই!!
– এই কাজল! তাড়াতাড়ি আসো না! বিকেল গড়িয়ে যাচ্ছে।
– হুম,এইতো আসছি।লেখাটা শেষ করেই… প্রায় শেষ, পাঁচ মিনিট প্লিজ।।
– ওকে, তাড়াতাড়ি কিন্তু
আকাশ মেয়েদের নিয়ে ভেতরে যায়।কিন্তু কাজল কি লিখছে? চলুন দেখে আসি…..

” আমি বুঝতে পারছিলাম মারা যাচ্ছি, আমার চোখ বন্ধ হয়ে যায়। কোনো অনুভূতি নেই।তারপর মনে হয় কত যুগ কত আলোকবর্ষ পেরিয়ে গেছে। আমি চোখ খুলে বুঝতে চেষ্টা করছি কোথায় আমি। আমি কি মারা গেছি? মৃত্যুর পরে এখানে এসেছি?
ভালো করে চোখ খুলে দেখি আমার চিরচেনা একটা মুখ- আকাশ ; আমার হাত ধরে বসে আছে। আমি বুঝতে পারলাম আমি মারা যাইনি।
এই প্রথম অনুভব করলাম বেঁচে থাকার স্বাদ।। মৃত্যুর সাথে লড়াই করেছি,শেষ পর্যন্ত ঘুমিয়ে পড়ি ইনজেকশন দেয়ার পর।
তারপর কয়েকমাস কেমোথেরাপি নিয়ে বছর দেড়েক পরে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠি।
আমি আমার আকাশ, আরশি- আভা,এই বাড়ি, সংসার দু’হাতে আগলে রেখেছি আমার বুকে।আকাশ আর আমি দুজন দুজনের রক্ষাকবচ।একটা মুহূর্ত তাকে ছাড়া অন্যকিছু আমার ভাবনায় নেই। মেয়ে দুটো আমাদের চোখের মণি। একদিন আমাদের মেয়েরা বড় হবে, ওদের বিয়ে দিবো।
আমি আর আকাশ বুড়ো হবো! আকাশের চুলে পাক ধরবে! হয়তো মুখভর্তি দাড়ি থাকবে? কেমন দেখাবে আকাশকে?🤔🤔
আমরা দুজন বুড়ো-বুড়ি মিলে বসে বসে পুরনো স্মৃতি আওড়াবো।বুড়ো আকাশ তার বুড়ো বউকে নিয়ে রোজকার মতো সকালে হাঁটতে হাঁটতে সেই শিউলি তলায় এসে দাঁড়াবে। যখন ফুলে ফুলে ছেয়ে থাকবে আকাশ কিছু ফুল কুড়িয়ে আমার আচঁলে দিবে।🙂☺

সমাপ্ত

ছোট্ট একটা বাস্তব ঘটনাঃ-
২০১৭ সাল,একটা মেয়ে হঠাৎ ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়ে,তীব্র মাথাব্যথা। এক সপ্তাহের মধ্যে চোখ ঝাপসা থেকে ঝাপসা হয়ে যায়। অনেক ডাক্তার কারণ খুঁজে পায় না।শেষ পর্যন্ত এক ডাক্তার জানায় মেয়েটার ব্রেইন টিউমার! পরিবারের কেউ মেয়েটাকে জানায় না, কিন্তু মেয়েটা জেনে যায়। তখন মেয়েটার মনের অবস্থা কি কেউ অনুমান করতে পারেন? যে মেয়েটা জানতে পেরেছে তার সময় সীমিত!
৪ দিন এই অবস্থায় যাবার পর নিউরোলজিস্ট চূড়ান্ত রিপোর্টে জানায় – ব্রেইন টিউমার নয়,মেয়েটার হাউড্রোক্যাফালাস হয়েছে ( মস্তিষ্কে পানি জমা), যাতে মেয়েটা অন্ধ হয়ে যাচ্ছে এমনকি শেষ পর্যন্ত মারা যাবে যদি এই পানি ব্রেইন থেকে বের করা না হয়। একদিন পরেই থেকে একটা সার্জারীর মাধ্যমে এক সপ্তাহ ব্রেইন থেকে পানি বের করা হয়। প্রথম যখন চোখ মেলে তখন টানা ২ ঘন্টা মৃত্যুর সাথে লড়াই করে শেষ পর্যন্ত বেঁচেযায়। তবুও নতুন করে শঙ্কা দেখা দেয় ব্রেইন টিউমারের!পুনরায় পরীক্ষার মাধ্যম নিশ্চিত হয়, টিউমার নেই।
১৫ দিন হাসপাতালের তিক্ত অভিজ্ঞতা আরও মাস খানেক নিজের ভারসাম্য রেখে একা হাঁটতে পারতো না। মেয়েটার চোখ ৮০% নষ্ট হবার কথা ছিলো ( অনেকেই অন্ধ হয়ে গেছে)কিন্তু আল্লাহর রহমতে ৮০% ভালো, আর ২০% ড্যামেজ হয়েছে। সম্পূর্ণ সুস্থ হতে বছর দেড়েক সময় গেছে। কাজলের অসুস্থ কালীন অনুভূতি , মৃত্যুর সাথে লড়াই ; সব মেয়েটার বাস্তব জীবনে ঘটে যাওয়া ঘটনার প্রতিচ্ছবি। একটা প্রেমের গল্পে জীবনের এসব ঘাত-প্রতিঘাত তুলে ধরতে চেয়েছি।

গল্প জীবনের বাইরে নয়। আংশিক সত্যকে কেন্দ্র করে কল্পনার জাল বুনে অলঙ্করণ করা হয় একটা গল্প। এটা ইরাবতী সিরিয়াল ( আমি সিরিয়াল দেখিনা,কমেন্ট পড়ে নাটকের খোঁজ নিয়েছিলাম 😌! )বা শাবনূরের ছবি দেখে বা ভেবে লিখিনি। মূলত মেয়েটা যে মানসিক অবস্থায় ছিলো সেটাই তুলে ধরতে চেয়েছি।
আপনাদের ভালো লাগলে লেখার স্বার্থকতা। 🙂

আল্লাহর রহমতে আর সকলের দোয়া ও ভালবাসায় বেঁচে যাওয়া সেই মেয়েটি ; আমি। 🙂
আলহামদুলিল্লাহ। ভালো আছি।☺☺

Taslima Munni

 

Related Posts

One thought on “রাগী বসের অভিমানী বউ part-9 এবং শেষ পর্ব । স্বামী স্ত্রীর ভালবাসার গল্প

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *