সিনিয়র আপু যখন গার্লফ্রেন্ড । সিনিয়র vsজুনিয়ার লাভ স্টোরি

অবশেষে নিশান্তিকা আপু
সিনিয়র vsজুনিয়ার
.
ঠাস.. ঠাস.. ঠাস..
পরপর তিনটা চড় খেয়ে আমার বাম গাল জ্বলতে শুরু
করলো।
আর কানে ঝি ঝি শুরু হলো। আমার মষ্তিষ্কের বাম
প্রান্ত দিয়ে একটা ব্যথার শিহরণ বয়ে যাচ্ছে।
ছোটবেলায় চকলেট আর আইসক্রিম বেশি খাওয়ার
জন্য বাম মাড়িতে পোকা লেগেছিলো।
চড়টা খাওয়ার পর মাড়িতেও ব্যথা শুরু হলো।
– ভুলেও আর আমার সামনে কোনো দিন আসবি না।
– হুমম।
– তারপর সার্জিও রামোসের জার্সি নম্বর অনুসারে
চতুর্থ চড়টা দিয়ে প্রস্থান করলো নিশান্তিকা আপু।
আমি ঠায় দাঁড়িয়ে উনার চলে যাওয়া দেখতে লাগলাম।
আমার বাম চোখ দিয়ে পানি পড়তে শুরু করলো।
.
একটু পেছন ফিরে বলি …
গত বছরেও আমরা সিঙ্গেল ছিলাম।
মানে আমার বস আর আমি। ওর অভিজ্ঞতা থাকলেও
আমার ছিলো না।
কিন্তু এ বছর আমার কথা বিবেচনা না করেই জিএফ
বানিয়ে ফেলেছে।
অবশ্য জর্জিনা আর রন কে দারুণ মানিয়েছে।
তাই খুব জেদ করেই সিদ্ধান্ত নিলাম ভ্যালেনটাইন্স
ডে’র আগেই কাউকে প্রপোজ করবো।
মাথা খাটালাম। ভাবনা, কল্পনা সব জায়গাতেই নিশান্তিকা
আপু।
আমার মামাতো বোন। ক্লাস ফাইভেই প্রথম ক্রাশ
খেয়েছি
তবে সেটা যে ক্রাশ আর ভালোলাগা ছিলো সেটা
বুঝেছি ভার্সিটি লেভেলে এসে।
সুতরাং সেই অনুযায়ী প্রপোজ ডে তে নিশান্তিকা
আপুকে প্রপোজ করে বসলাম।
আর এরপরে কি হলো জানেনই তো….
.
তো চড় খাওয়ার পর কি আর করবো !!
বাসায় এসে সোফায় বসে পড়লাম।
মামী ভেতর থেকে এসে বললেন,
– কি রে নিশা যে তোর সাথে গেলো ?
– আপুর ক্লাস আছে।
– আচ্ছা তুই ফ্রেশ হয়ে নে। আমি খাবার দিচ্ছি।
– আর খাওয়া !!
– কেনো ? কি হলো ? তোর কথাবার্তা ইদানিং বড়
মানুষের মতো হয়ে যাচ্ছে।
– মামী কি বলো এসব !! আমি কি ছোট আছি নাকি !!!
– হুম হয়েছে। যা ফ্রেশ হয়ে আয়।
নাহ খাওয়ার ইচ্ছা একেবারেই হচ্ছে না।
বাসার বাইরে চলে আসলাম।
.
দশ টাকার মুড়ি মাখা হাতে নিয়ে খাচ্ছি আর হাঁটছি। আমি
কল্পনায় যেমন একটা মেয়ের ছবি একেছি নিশান্তিকা
আপু ঠিক সেরকমই। লম্বা চুল,
টোল পড়া গাল আর তার উপর ঠোঁটের নিচে তিল !
উফফফফ আপু যখন কথা বলে তখন তাকিয়ে থাকার
ইচ্ছা হয় শুধু।
আর যখন রাগ করে …. সৌন্দর্যের পরিমাণটা
দ্বিগুণভাবে বেড়ে যায়।
.
এখন মধ্যবিকেল। অনেকদিন পর ভার্সিটির
সবচেয়ে রোমান্টিক জায়গাতে পা রাখলাম।
ওকি কেউ যেনো শাড়ি পড়ে কারো জন্যে
অপেক্ষা করছে।
কাছে গিয়েই দেখলাম নিশান্তিকা আপুর বান্ধবী তিথি
আপু।
– কি ব্যপার আপু ? এভাবে পরীর মতো সেজে
আছো কেনো ?
– বেয়াদব। আমার গাধাটার জন্য অপেক্ষা করছি।
এতো লেট করে মনে হয় যেনো হাত পা
বেঁধে ফেলে রাখি।
– সে যাই হোক। আজকে ভাইয়া সিউর তোমাকে
দেখে ক্রাশ খাবে। আই মিন তোমার দিকে অবাক
হয়ে তাকিয়ে থাকবে দেখো।
– তুই দেখি অভিজ্ঞ ব্যক্তির মতো কথা বলছিস।
কয়টা অভিজ্ঞতা আছে রে তোর ?
– আর অভিজ্ঞতা …. প্রপোজ করতে গিয়ে চড়
খেয়েছি।
– সে কি !! ! তোকে চড় মারলো ?? কোন
মেয়েটা খালি দেখিয়ে দে।
– নাম বললে তুমি নিজেও আমাকে মারবা।
– কি নাম বল তো !
– নিশান্তিকা আপু।
– হোয়াট ?? তুই তোর একবছরের সিনিয়র আপুকে
প্রপোজ করেছিস ??
আমি বিশ্বাস করতে পারছিনা। তোকে চড় মেরে
ঠিকই করেছে।
– হুমম।। তোমরা আর আমার দুঃখের কি বুঝবা !
তবে আপু আজ তুমি সিঙ্গেল থাকলে একটা চান্স
নিতাম। বলেই দৌড়….
– ওই তুই দাঁড়া। তোর খবর আছে।
আমাকে আর কে আটকায়…
.
পরের দুইটা দিন নিশান্তিকা আপুর সামনে অনেকবার
গেলাম।
কিন্তু ছেই ছেই করে তাড়িয়ে দিলো।
ম্যাসেজ দিলাম। পাশাপাশি রুম তবুও চিঠি দিলাম। ভয়েস
ম্যাসেজ দিলাম। কোনোটারই রিপ্লাই আসেনি।
উল্টো ব্লক দিয়েছে।
.
তৃতীয় দিন আবারো সামনে গেলাম।
এবার কোনো কথা না বলতেই ঠাস।
– আমার কথা তো শুনবা !
– কি বলবি হ্যা !! লজ্জা করেনা তিথিকে আবার এই কথা
বলেছিস।
– না করেনা। কারণ আমি তোমাকে ভালোবাসি।
ভালোবাসায় লজ্জা পেলে চলে না।
– ঠাস… আমার বয়ফ্রেন্ড আছে। আসিফ কে
চিনলে আর কোনো কথা বলবি না।
– এইবার সত্যি সত্যি কেঁদে ফেললাম।
শুধু শুধু চড় মারছো কেনো ?
– শুধু শুধু ?? ন্যাকামি করবি না। যা ভাগ।
জীবনেও যদি আমার সামনে এসব বলতে আসিস
তো তোর সাথে দেখা করাই বন্ধ করে দিবো।
– প্রচন্ড খারাপ লাগছে। আপু প্রেম করে জানতাম
না। বাম গাল চিনচিন করছে।
চোখ দিয়ে পানি পড়ছে। আমি কাঁদছি। হুম কাঁদছি।
ছোটোবেলা থেকেই কেউ আমাকে চড়
দিলেই মারামারি করি
নয়তো চোখ দিয়ে পানি পড়ে।
এভাবে কয়েকদিনের ব্যবধানে ছয়টা চড় খেয়ে
আমার মাথা ঝিনঝিন করতে লাগলো।
.
আজ নাকি আবার হাগ ডে !! লে বাবা। সিঙ্গেলদের
জন্যও কিছু একটা বের করবে নয়তো …….
মাটিতে পড়ে থাকা ফাটা টেনিস বলটাকে ফুটবল
বানিয়ে লাথি মারছি আর হাঁটছি।
হঠাৎ করে একজনের গায়ে লাগলো।
তাকিয়ে দেখি স্বর্ণা। আমার ক্লাসের সবথেকে
সুন্দরী মেয়ে।
– কি ব্যপার সুন্দরী কই যাও ?
– কোথাও না। তোর মতো বেয়াদব দেখিনাই যে
সিনিয়র আবার মামাতো বোনকে প্রপোজ করে।
– কি করবো বল ?? মনের টান।
নিশান্তিকা আপুকে দেখলাম বান্ধবীদের সাথে
গল্প করতে করতে আসছে।
আমাকে দেখে থমকে দাঁড়ালো।
তারপর স্বর্ণা আর আমার দিকে একবার তাকিয়ে চলে
গেলো।
.
বিকেলে নজরদারি আর অনুসন্ধানের ফলে
আসিফের দুইটা কুকীর্তি পেলাম।
এখন শুধু প্রদর্শন করতে হবে সঠিক জায়গায়।
.
রাতে ডিনারের পর আপুর রুমের দরজায় দাঁড়িয়ে
আছি।
– অনেকক্ষণ পর আপু বললো, কিছু বলবি?
– হুমম।
– ওই টপিক নিয়ে যদি আসিস তো আবার চড় খাবি।
– মোবাইলটা এগিয়ে দিলাম। দেখো তোমার
আসিফকে…
সিগারেট আর মেয়েদের পেছনে লাইন মারে।
( এই দুইটা কারণই যথেষ্ট প্রেমে একটু জল
ঢালার )
– তুই কোথায় পেলি ? আর এসব করতেই বা কে
বলেছে ?
– শোনো ওকে ঠিকমতো চেনো না আবার তার
উপর এসব করে।
জঙ্গি হলে তো খবর খারাপ। তাই বলছি এতদিন ধরে
তোমার বাসায় আছি।
আমার চব্বিশ ঘন্টার রুটিন তোমার জানা। সবদিক দিয়ে
পারফেক্ট আছি।
– তো ??
– তো ঘরে এমন ওয়ার্ল্ডক্লাস প্রোডাক্ট
থাকতে অন্য ছেলের দিকে নজর না দেওয়াই
ভালো।
সময় থাকতে দাম দাও। নইলে পড়ে পাবে না।
তুমি খুব লাকি তাই আমার মত এমন ছেলে
পেয়েছো।
– এই কথা শুনেই আপু বেডের নিচে মাথা দিয়ে কি
যেনো খুঁজতে লাগলো।
– চোখে পড়লো বেতের লাঠি।
আমি পড়িমরি করে দৌড়।
– ওই তুই দাঁড়া। ওখানেই দাঁড়া বলছি। তোর
প্রোডাক্টগিরি বাহির করবো আজকে।
আর আমি ততক্ষণে আমার রুমের দরজা লাগিয়ে
দিয়েছি। চিৎকার করে বললাম ভালো করে ভাবো।
ভ্যালেনটাইন্স ডে’র আগে উত্তর দিও নইলে
পস্তাবা।
.
আম্মু সব শোনার পরে কঠিক রকম ঝাড়ি।
অনেকক্ষণ বোঝালো এসব সমাজ মানবে না।
তারপর এই সেই আরো অনেক কিছু….. কিন্তু
আমার জেদ আর কান্নার কাছে হার মেনে
অবশেষে বললো দেখি তোর মামা মামী কি
বলে !!
.
আমি তো খুশিতে সাল্লুর তোয়ালে ড্যান্স দিচ্ছি।
আম্মু রাজি মানে অর্ধেক কাজ শেষ।
.
আজকে ভ্যালেনটাইন্স ডে।
আমি খুঁজতেছি সিঙ্গেল কোনো সুন্দরী
মেয়ে
যার সাথে কিছুক্ষণ সময় কাটানো যায়।
দেখি স্বর্ণা বসে আছে।
– কি রে কি করিস একা একা ?
– কিছু না রে… আবিদ এখনো আসেনাই।
– চলে আসবে টেনশন করিস না।
আমার কলার ধরে কেউ টেনে তুললো।
পেছন ফিরে দেখলাম নিশান্তিকা আপু।
উঠে দাঁড়াতেই মারাত্মক ক্রাশ খেলাম।
সবুজ রংয়ের শাড়ি। কাঁচের চুড়ি, চোখে কাজল, হালকা
মেকআপ এ নিশান্তিকা আপুকে
ভয়ঙ্কর সুন্দর লাগছে।
– বলো কি বলবা ?
– কি হচ্ছে এসব ?
– গল্প করছি।
– শুধু গল্প নাকি অন্য কিছু ?? তুইও তো আসিফের
মতো।
– উহু ভুল। আসিফ মেয়েদের সাথে প্রেম করে
বেড়ায়। আর আমি ক্রাশগার্ল দের সাথে গল্প করি।
– ঠাস….
– যাআআআআ … রোনালদো। মানে সপ্তম চড়
পড়ে গেলো।
– ক্রাশ !! হুমম … আজকের পর থেকে তোর
ক্রাশ খাওয়া বন্ধ।
– কেনো ? এমন কেনো হবে ?
– আমি বলেছি তাই।
– তুমি কে ?
– আমি তোর সব। আমি এখন থেকে তোর ক্রাশ,
তোর গার্লফ্রেন্ড, তোর ভবিষ্যৎ। আমিই সব।
– আমি একটু মুচকি হেসে বললাম, তাহলে ছোট
ভাইয়ের প্রেমে পড়েই গেলে।
– ছোট ভাই ?? বলেই আমার কান ধরে বললো,
বল আমি কে ?
– আরে আপু লাগছে তো ছাড়ো।
– তাহলে বল আমি কে ?
– আমার ফিউচার বউ।
– হুম। ভুলেও অন্য মেয়ের চিন্তা যদি করিস তাহলে
. …
– আচ্ছা তারমানে তুমিও আমাকে …?
– আপু মাথা নিচু করে বললো হুম।
– তাহলে একটা ইয়ে দিবা ??
– তেলেবেগুনে জ্বলে উঠে আমার কলার
চেপে ধরে বললো কি বললি তুই ?
বিয়ের আগে ভুলেও যদি ওসব চাইবি তো দেখিস
তোর বড় আপু হয়ে যাবো তাহলে।
– একটু ঢোক গিলে বললাম…. হাত ধরতে
পারবো ?
– নিশান্তিকা আপু আমার হাত ধরে হাঁটতে লাগলো।
আপুর চুলগুলো উড়ে আসছে চোখ মুখের
উপর। আঙুলের আলতো ছোঁয়ায় আপু
সেগুলোকে কানের পেছনে গুঁজে দিচ্ছে।
আমার ইচ্ছা হচ্ছিলো রোনালদোর মতো
সেলিব্রেশন করতে।
অবশেষে আমি নিশান্তিকা আপুকে…আরে ধুর…ধুর
এখনো কি আপু আপু করছি।সরি পাঠক ওই অনেক
দিনের অব্যশ তো তাই আপুইই মুখ থেকে বের
হয়
অবশেষে নিশান্তিকা কে পেঁয়েছি

Related Posts

3 thoughts on “সিনিয়র আপু যখন গার্লফ্রেন্ড । সিনিয়র vsজুনিয়ার লাভ স্টোরি

  1. Forum marketing iss a well-known strategy
    for ramping up youhr traffic. Tennd to be different definitions of
    good content. But that was then.) And I took in $900 a month.

  2. Open up an up-to-date world of entertainment by getting into online
    blackjack. When yyou are alreqdy a player but don’t have any place good to play,
    or you’re just interested wyen you started with on the net but don’t
    know where to begin, ploaying this way can meet your needs.
    It’s fairly simple learn, and in many ways online blackjack is
    better typical live casino game ffor a quantity of reasons.

    According to any poker pros, bwtting techniuques can be treated to be of equal significance to card strategy.
    Preferably, prior to your game proper, a player should be prepared
    about the way he’ll play his hand since during online game this exactly where everything
    flows. This willl havve a great impact thee way to play your
    cards when you receive them. It’s also wise to bee vety
    swift to produced a play for your hand. Of course, that is much easier
    saud than actually doing it.

    Next right now the dozen bets when playing by having an online allbet gaming.
    When playing live dealer roulette, regularr play with single dozen bets or double dozen bets.
    The first is when the online player starts placing bets with the allbets roulette table miniimum to the roulette table maximum.
    Starvagion is to wwin wigh in a single ozen bet before
    the betting list ends. The double dozen bet variation uses
    two dozen bets and divides the betting lixt (from the roulette table minimum for the maximum
    alllowed bet) fifyy percent.

    What a couple of facts translate tto is literally years of poker experience
    compacted ideal very small amount oof time. You could see
    more hands and experience more poker in online games in 1 week than you
    might ssee in 3 months playing inn live games. This gives online players an amazing edge.

    The first thing you’ll can do upon arriving at the casino iss to approach the
    fromt desk area in the poker room and store them either assign you
    a table, or place you on a waiting list pertaining to being
    seated. You simply must decdide what stakess you prefer to play.
    Normally most casinos will have a loww stakes limit game ($4-$8), an affordable stakes no limit
    game ($1-$2), and perchance some mid-high stakes onpine games.

    At the end of the game the dealer flips over his face-down card to rveal his hand.
    If your hand is compared to the dealer’s without breaking 21
    then you win a payout of 1:1 upon the bet. If you win along with a
    2-card hand worth 21 points you win a payout of 3:2.
    If the car dealer bets then you definately your bet goes into the house.

    Casino security heads aren’t veery friendly,
    whether you’re cheating or bending thee rules a bit by card counting.

    Tend not to necessarily have a better regarding cheating a web based dealer comin from a fortune but
    youu will have an even better possibility to gett by helping cover their
    your ribs still iin tact.

  3. If you check out the Season An individual Championships,
    regailers . seee thee fact that lot of wards these fantastic gamers purchase.
    They purchase wards pretty much EACH And every one SOLITARY TIME THEY Site.
    That is the way you mist execute a tad too!
    No excuses that “I’m a carry, it could be not my position.”
    It happens to bbe everyone’s work to provide adequate
    ward protection in game. Wards win online casino games.
    Interval.

    This will be the ssame accompanies blackjack, but what will make it different could be the act that with
    blackjack you also have functions of the right way to proceed by thhe cards that find.
    Also, you’re just doing this to land combinations
    which are automatically generatd – you’re actually playing against a dealer instead!

    The payouts in Keno vary everyone player, depending
    mainly exactly how to many numbers he/she chooses and how many of them match those draw coming fom the casino.

    These successful numbers are popularly calldd ‘hits’. As holistic rule, a lot more
    numbers choose on on your ticket and also the more hits you get, the greater will emerge as the winning charge.
    But the win also varies from casino tto casino.

    If playing max coins is nott for you, we advice that you try
    an online slo byy using a max bet oof two cpins or reduce the copin size so
    thazt max beet iis not that expensive. With a bit of lyck you can hit the jackpot!

    Unlike in brick and mortal casinos, you can hide your true
    identity in playing 3win8 casino download. And because online bingo iss greatly availble for mostt legal ages, you can afcess online bingoo within just some
    click away. You can play inn the game inside your spare period in the office without worrying about your boss.
    And for reason, bingo offers some how known as old women’s game.
    In online bingo even strong and tough men can engage in this game because
    your real identity iis hidden from some.

    Another regarding today’s electronic lifestyle is that yyou can improve the overall
    odds of one’s winnings and lower the house advantage via the internet.
    Here are for casino gaming online which could help
    you win your bets! We hokpe down the road . use some suggestions on casino gambbling foor the very best of your talent.

    Go for score boards which are generally much significant.

    You can uuse some other things also like pencils, charts etc.
    Sojetime dealer usually change the pattern style so that can attain more of the streak .
    Just pay attention towards the arrangement of patterns styles and change accordingly.

    Play baccarat with single decks which helps thhe player
    to gain some good mathematical advantages. Make yourself understandable about the situation of the banker as well as how much amount the banker is ready to pay.

    There are advantages to playing online if
    such aas to ggo to the casino site. During the cold winter nights you don’t have to leave to
    visit and one more no cost of gas involved. You also never have to worry about
    getting a seat at your favorite tazble andd prone to like
    the slos you find that their slots play similar towards ones are usually at the
    cqsino an individual never to bee able to miss out either.

    Also most of your games end up being same online as on tthe inside
    casino. http://p.a.ra.j.umpe.r.sj.a.sse.n201.4@S.Dk.F.H.Is.Adfh.As.D.544.654587n.oc.no.x.p.a.rk.eex.p.lo.si.v.edhq.g@S.Dk.F.H.Is.Adfh.As.D.544.654587@N.Oc.No.X.P.A.Rk.E@charles.shultz@vi.rt.u.ali.rd.j@H.Att.Ie.M.C.D.O.W.E.Ll2.56.6.3@Burton.Rene@fullgluestickyriddl.edynami.c.t.r.a@johndf.gfjhfgjf.ghfdjfhjhjhjfdgh@sybbr%3Er.eces.si.v.e.x.g.z@leanna.langton@c.o.nne.c.t.tn.tu@Go.o.gle.email.2.%5C%5C%5C%5C%5C%5C%5C%5Cn1@sarahjohnsonw.estbrookbertrew.e.r@hu.fe.ng.k.Ua.ngniu.bi..uk41@Www.Zanele@silvia.woodw.o.r.t.h@fullgluestickyriddl.edynami.c.t.r.a@johndf.gfjhfgjf.ghfdjfhjhjhjfdgh@sybbr%3Er.eces.si.v.e.x.g.z@leanna.langton@c.o.nne.c.t.tn.tu@Go.o.gle.email.2.%5C%5C%5C%5C%5C%5C%5C%5Cn1@sarahjohnsonw.estbrookbertrew.e.r@hu.fe.ng.k.Ua.ngniu.bi..uk41@Www.Zanele@silvia.woodw.o.r.t.h@johnsdfsdff.dsgdsgdshdghsdhdhfd@M.a.na.gement.Xz.u.y@oliver.thompson@johndf.gfjhfgjf.ghfdjfhjhjhjfdgh@sybbr%3Er.eces.si.v.e.x.g.z@leanna.langton@c.o.nne.c.t.tn.tu@Go.o.gle.email.2.%5C%5C%5C%5Cn1@sarahjohnsonw.estbrookbertrew.e.r@hu.fe.ng.k.Ua.ngniu.bi..uk41@Www.Zanele@silvia.woodw.o.r.t.h@www.privatemagazine.org/ar/node/13662/track

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *