সিনিয়র বউয়ের জুনিয়র বর -part-4

💏 সিনিয়র বউয়ের জুনিয়র বর 💏
পার্ট  -4

Writer By Misti prem mithun KhAN 💏

আর কখনো দেখতে হবে না এই পিচ্চিটার মুখ
লেখা শেষ করে অবনির রুমে রেখে চলে আসলাম কাগজটা
তার পর আমার প্রয়োজনীয় সব কিছু গুছাই নিলাম ব্যাগে
তার পর সোজা আম্মুর রুমে
আম্মু,,, কিরে কলেজ যাবিনা
আমি না আম্মু,,
তোমাকে কিছু বলতে চাই
আম্মু বল,,,
আমি,,, আসলে আম্মু আমি মামার বাসায় থেকে পড়তে চাই
আম্মু,, এখানে সমস্যা কি,,
আমি,, আম্মু তুমি তো জানো বাসা থেকে আমার কলেজটা কতো দুরে
আর আমি তো সকাল কইরা ঘুম থেকে উঠতে পারিনা,,,আর সামনে আমার ExaM
আম্মু,,, সসস্যা কোই অবনি তোকে ডেকে দিবে
আমি,,, না আম্মু মেয়েটাকে আর কোন কষ্ট দিতে চাই না
এত্তো দিন তো আর কম কষ্ট করে নাই আর তোমাকে সুস্থ করে তুলছে
ও না থাকলে হয়তো তোমাকে সুস্থ করে তুলতে পারতাম না আর ওর ও তো EXAM আর আমি থাকলে ওর পড়াশুনা হবে না।।
আর আম্মু আমি তো সারাজীবন এর জন্য যাচ্ছি না exam শেষ হলেই চলে আসবো
আম্মু,, তুই কি থাকতে পারবি আমাদের ছেড়ে আমি,,, আম্মু চিন্তা করো না কয়টা দিনের ওই তো ব্যাপার না
আম্মু,,, এখনি যাবি
আমি,, হুম
আম্মু,, আমাকে জড়াই ধরে অনেক কান্না করলো
আর আমিও
বাইকটা বের করে বাইরে চলে
আসলাম
আম্মু,, সাবধানে যাস
আমি,, হুম চিন্তা করোনা আর নিজের শরীর এর যত্ন নিও
বলে বাইক নিয়ে রওনা দিলাম দুই ঘন্টা যাওয়ার পর মামাদের বাসায় পৌছালাম
কলিংবেল বাজাতেই ফারিহা দরজা খুলে দিলো
ফারিহা,, হা কইরা তাকাই আছে আমার দিকে
আমি,,, ওই এভাবে হা করে থাকলে তোর মুখে মশা ডুইকা যাবো
ফারিহা,,, না দেখতাছি সূর্য কোন দিকে উঠছে
হঠাৎ করে বড়লোকের আগমন গরিবের বাসায়
আমি,, দেখ একদম বকর বকর করবি না
আমাকে ভিতরে যাইতে দে
ফারিহা যা কে নিষেধ করছে
আমি,,, তুই এমনে হাতির মত দাড়াই থাকলে সামনে কেমনে যাইতাম বল,,।
ফারিহা,,, কি বল্লি আর একবার বল
আমি কিছুই না মোটু বলছি
ফারিহা পুরে রেগে আগুন
এই সময় মামানির আগমন
কি রে তোরা কি ঝগড়াই করবি
ওই ফারিহা ছেলেটাকে ভিতরে আসতে দে আর কত দিন পর আসছে আর অনেক পথ জার্নি করে আসছে ওকে বিশ্রাম করতে দে
মামানি,, যাও আব্বু ফ্রেশ হইয়া আসো আমি খাবার দিচ্চি আমি,, হুম
ফ্রেশ হয়ে এসে ফারিহার রুমে বসলাম
একটু পর ফারিহা আসলো
ফারিহা,, ওই তোরে খাইতে ডাকছে আম্মু চল
আমি,, তুই যা আমি আসছি
তার পর সোজা গিয়ে লান্চ করে নিলাম
তার পর বসে টিভি দেখতে লাগলাম
একটু পর ফারিহা আসলো
ফারিহা,,, তো কি ব্যাপার হঠাৎ
আমাদের বাসায় আসলি যে
আমি,, ক্যান আমার মামার বাসায় কি আসতে পারি না আমি
ফারিহা,, সেইটা কি বলছি তো ভাবিরে নিয়া আসলি না ক্যান
আমি ইচ্চা হয়নি তাই
ফারিহা,, একটা সত্য কথা বলবি কি হইছে তোর ভাবির সাথে কোনো সমস্যা হইছে
আমাকে মিথ্যা বলবি না প্লিজ
যানিনা আমার মন খারাপ থাকলেই মেয়েটা বুঝে ফেলে কেমনে
এইবার বলাই লাগবে সত্যি টা
বাসর রাত থেকে সব কিছু বল্লাম
ফারিহার দিকে তাকাই দেখি চোখে পানি
আমি,, ওই কাদতাছোস ক্যান
ফারিহা,, তুই এতোটা ভালো বাসিস অবনিকে
মেয়েটা তোর সাথে যা করছে সত্যি ঠিক করে নাই
আমি,, চুপ কর আর টেলিভিশন দেখতা দে
ফারিহা,,, আচ্ছা একটা কথা রাখবি তোর কলেজ তো আমাদের কলেজের পাশেই আমাকে সাথে নিয়ে যাবি
আমাকে ড্রপ করে রেখে আসবি আর আসার সময় নিয়ে আসবি,,
আমি,,, ক্যারে আমাকে কি তোর চাকর মনে হয় শয়তান বেডি,,
ফারিহা,, আচ্চা যা লাগবে না
আরে আরে আমার বোনটা রাগ করছে
ফারিহা,,, দেখ একদম বোন বলবি না আমি তোর কেউ না
তাই বলে ফারিহা চলে গেলো
একটু পর
আমিও ফারিহার পাশের রুমে গিয়ে শুয়ে পরলাম
ফারিহার ডাকে ঘুম ভাঙ্গলো
ফারিহা আর কতো ঘুমাবি এবার তো ওঠ আম্মু ডাকছে ডিনার করতে
আমি,, তুই যা আসছি।।
অপর দিকে অবনি চলে আসছে বাসায়
এসেই আম্মুকে ডাকছে
আম্মু,,, কিরে মা আজ রাত করে ফিরলি যে
অবনি,,আসলে আম্মু সকালে বন্ধুকে দেখতে গেছিলাম হসপিটালে আর পরে সিনথিয়াদের বাসায় এসে দেরি হয়ে গেছে
আর কখনো রাত হবে না আম্মু
আম্মু,, আচ্চা মা তুই ফ্রেশ হয়ে নে আমি খাবার দিচ্ছি ফারিহা,,, হুম
ফারিহা,, ফ্রেশ হয়ে এসে খেতে বসে
আম্মু তুমি আব্বু খাইছো তো
আম্মু,,, নারে মা আজ আর খাওয়া হবে না
অবনি,, কেন আম্মু

আম্মু,, তুই তো জানিস মা
আমার ছেলেটাকে না খাওয়ায় আমি খাই না
অবনি,,, কিন্তু ও খাই নাই কেনো
আচ্চা আম্মু তুমি বসো আমি ডেকে আনছি
আম্মু,,, মিঠুন নেই
অবনি,,, কিছুটা অবাক হয়ে নেই মানে
আম্মু,, কেন মা তোকে কিছু বলে নাই ও সকালে মামার বাসায় চলে গেছে ওখানে থেকে পড়বে বলে
অবনি,, আমাকে তো কিছুই বলে নাই
অবনি,, আচ্ছা আম্মু আমি তো আছি আমার সাথে একটু খেয়ে নাও এখন
আর ও তো ফিরেই আসবে চিন্তা করো না,,
আম্মু,,, না মা এখন খাবো না তুই খেয়ে নে
অবনি,,অল্প একটু খেয়ে উঠে চলে আসলো
এসে বিছানায় একটা কাগজ দেখলো কাগজ টা নিয়ে পড়া শুর করলো
অবনি যতই পড়ছে ততই কি যেন একটা হারানোর ভয় বেড়ে যাচ্চে
লেখার লাষ্টের দিকে তাকাতেই
অবনির চোখ আটকে গেলো
কারন এখানে ডিভোর্স নিয় লেখা ছিলো
অবনির চোখ দুটো জলে ভরে উঠলে
এবার বুঝতে পারছে নিজের ভুলটা
অবনি,, কান্না করতে করতে ওই পিচ্চি একটু বকা দিছি বলে রাগ করে চলে যেতে হবে আমাকে ছেড়ে না
সেদিন তো রাগের মাথায় রুম থেকে চলে যেতে বলছিলাম তাই চলে যেতে হবে না
আর সামনে আসতে না করছি বলে সত্যি আসতে হবে না
আমি,, সেদিনের কথা গুলো বলে নিজেই অনেক কষ্ট পাইছি
অবনি,,, না পিচ্চিটা কিছু করার আগেই সব বোঝাতে হবে
আর সিয়াম যে কেউ ওই নই ওটা শুধু একটা বাজি ছিলো
না অবনি আর কিছু ভাবতে পারছে না
ফোন হাতে নিয়েই কয়েকবার ফোন দিলো মিঠুনের ফোনে কিন্তুু রিসিব ওই করছে না
অন্যদিকে,, আমি ও ডিনার শেষ করে দেখলাম অবনি অনেকবার কল দিছে
ফোনের দিকে তাকাতেই দেখলাম আবার কল দিছে
কলটা কেটে দিয়ে নামবারটা ব্লাক লিষ্টে রেখে ঘুমাই গেলাম
সকালে ফারিহার,, ডাকে ঘুম ভাঙ্গলো
ফারিহা,, ওই আর কতো ঘুমাবি কলেজ যাবিনা
আমি হুম,,, তাড়াতাড়ি উঠে
ফ্রেশ হয়ে নিয়ে ফোনের দিকে তাকাই দেখলাম ১০০ টার বেশি মেসেজ করছে অবনি
ফোনটা পকেটে রেখে নাস্তা করে দেখলাম ফারিহা রেডি
আমি,,বাইকটা বের করে নিলাম
ফারিহা,,, তোরে তো অনেক কিউট লাগছে আজ যে কোনো মেয়ে দেখলেই ক্রাশ খাবো
আমি,, দেখ পাম মারবি না
তাহলে তোরে থুয়ে চলে যাবো
ফারিহা,,, আচ্ছা আর বলবো না এবার তো চল না হয় লেট হয়ে যাবো
আমি হুম,, আমি বাইক চালাচ্ছি আর পিছনে ফারিহা ফারিহার
কলেজে নামাই দিয়ে আসার সময় ফারিহার বান্ধবিরা কিরে
এই কিউট পোলাটা কেরে
ফারিহা,,
আমার ফুফাতো ভাই
সোজা আমার কলেজ এর দিকে যাইতে ছিলাম কিন্তু হঠাৎ অরিন আপুর ডাক তাই
অরিন আপুদের ভার্সিটির ভিতর বাইক নিয়ে ডুকলাম
অরিন আপুর সাথে কিছুক্ষন
কথা বল্লাম
সাইডে তাকাই দেখি অবনির সেই বান্ধবি সিনথিয়া আমার দিকে হা কইরা তাকাই আছে
আমি আর কিছুক্ষন অরিন আপুর সাথে কথা বলেই চলে আসলাম আমার কলেজে আর বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে লাগলাম
আর অপর দিকে সারা রাত অবনি জেগে থেকে
সকালে ঘুম থেকে উঠেই দেখে লেট হয়ে গেছে তাই তাড়াতাড়ি না খেয়েই চলে আসছে আম্মুকে বলে
অবনি এসেই দেখে ক্লাস শুরু হয়ে গেছে অবনি ক্লাস শেষে বের হয়ে আসলো বাইরে সাথে সিনথিয়া ও
সিনথিয়া,, কিরে সারা রাত কি ঘুমাস নি আর তোর মনখারাপ কেন
অবনি,, কোই কিছুই হয়নি তো
সিনথিয়া,, যাই হোক তোকে কিছু বলতে চাই আমাকে একটা হেল্প করবি প্লিজ না করবি না
অবনি,,, হুম বল চেষ্টা করবো
সিনথিয়া,,, আসলে তোর সাথে একটা পিচ্চি আসতো না
আজকেও আসসিলো
যানিস পিচ্চিটারে না অনেক কিউট লাগছিলো
আমার পিচ্চিটারে চাই যেভাবেই হোক,,, আর জানিস সেদিন না পিচ্চিটার কোন দোষ ছিলো না
পিচ্চিটা তো সিয়াম রে মারি নাই
ওর বন্ধুরা মারছে
আর যানিস সিয়াম টা কতোটা খারাপ পিচ্চিটা তোর সাথে ঘুরে বলে সেদিন কার দিয়ে পিচ্চিটারে ইচ্চে করে বাধায় দিচিলো
কপাল ভালো তাই বেছে গেছে আর তুই তো তখন চোখ বুঝে ছিলি কিছুই বুঝিস নি আমি সব দেখছি,,,
অবনি,,, কি বলছিস এসব
সিনথিয়া,,, যা বলছি সতি বলছি
অবনি,,এইবার কান্না করে দিছে না আমার পিচ্চি জামাইটার উপর অনেক অত্যাচার করছি আর না
সিনথিয়া,,, কিরে হেল্প করবি পিচ্চিটারে আমার অনেক ভালো লাগছে
অবনি,, অনেকটা রেগে পােরবো না আর ওকে তোর ভালোভাসতে হবে না
সিনথিয়া,,,আমি ভালোবাসলে তোর সমস্যা কোই ওতো তোর কেও ওই হয়না,,
আচ্চা তোর হেল্প লাগবে না
আমি বরং অরিন এর কাছে যাই
সিনথিয়া,, তুই তো সিয়াম কে পেয়েই গেছিস এখন আমাকে হেল্প করিস আর
অবনি,,, একদম বাজে কথা বলবি না এটা শুধু একটা বাজি ছিলো
কাদতে কাদতে অবনি এটা তোদের জন্যই হইছে অবনি আমাকে একটু একা থাকতে দে প্লিজ
সিনথিয়া,,, আচ্ছা আমি একটু অরিনের কাছ থেকে ঘুরে আসি পিচ্চিটার বিষয়ে জানতে হবে
অবনি,, এখন বুঝতে পারছে কতো বড়ো ভুল করছে
আজ অনেক মনে পড়ছে পিচ্চিটার কথা খুব দেখতে ইচ্চে করছে
অপর দিকে আমার কলেজ ছুটি হয়ে গেছে
তাই দেরি না করে সোজা ফারিহার কলেজ এর দিকে চলে গেলাম
যেতেই দেখলাম ফারিহা দাড়াই আছে
তাই দেড়ি না করে ওকে উঠতে বল্লাম ও বাইকের পিছনে বসলো আর আমি চালাতে লাগলাম
অবনির,, ভার্সিটির সামনে এসেই দেখলাম অবনি তার বান্ধবিদের সাথে দাড়াই আছে অবনির মুখটা মলিন
হয়তো মন ভালো নেই
আমার দিকে তাকাতেই অবনি একদম রাগি মুডে তাকাই আছে
আমার পিছনে মেয়ে বসে থাকতে দেখে হয়তো কষ্ট পাইছে
পাইলে কি এ তো ক্যাবোল শুরু কষ্ট সোজা সামনে দিয়ে চলে আসলাম

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *