সিনিয়র বউ । সিনিয়র বউ রোমান্টিক গল্প,

সিনিয়র বউ

পার্ট-১৬

রুহী বরফ আনতে গেলো,,,
আমি চোখ বন্ধ করে বসে আছি ,,,

“”” দেখি বরফটা লাগিয়ে দেই,,,

“”” রোজা,, এই রোজা ,,
“”” হ্যাঁ আম্মু,,,
“”” এদিকে আসো তো ,,

রোজা আসলো,,

“”” হ্যাঁ আম্মু ,,,
“”” বরফ টা তোমার বাপির চোখে ধরে থাকো,,,
“”” আচ্ছা ,,,


রোজা আমার চোখে বরফে ধরে আছে ,,,
রুহী আমার হাত ধুয়ে দিলো,,

চোখের জ্বালা কমতেই বরফ সরিয়ে চোখ খুলতেই দেখি রুহী কান্না করছে ,,,


“”” রোজা আম্মু ,,
“”” হ্যাঁ বাপি ,,
“”” তুমি এখন যাও,,,
“”” তোমার জ্বালা কমছে ,,
“”” হ্যাঁ আম্মু , তুমি তোমার হোমওয়ার্ক শেষ করো,,,


রোজা চলে গেলো,,
রুহী আমার সাথে আর কথা না বলে রান্না করতে শুরু করলো ,,,

আমি ওকে জড়িয়ে ধরলাম ,,,

“”” এই পাগলী কান্না করছো কেন???
“”” এমনি,,,
“”” এমনি কেউ কাঁদে ,,,
“”” সরি,,,
“”” পাগলীটা ,,, আমার কিছু হয়নি ,,,


রান্না শেষ করে খাওয়া করলাম ,,
রোজা ঘুমিয়ে পড়লো,,

রুহী আর আমি টিভি দেখছি ,,

“”” আচ্ছা তুবা তোমায় জড়িয়ে ধরলো কেন,,
“”” আনন্দে,,,
“”” ওর যাওয়া হবে না আমাদের সাথে ,,,
“”” এটা হয় নাকি,,
”'” কেন হয় না ,,,
“”” মন খারাপ করবে ,,,
“”” তো কি হইছে ,,,
“”” আরে পাগলী,,, কিছু হবে না ,,, ও যাবে ,,,

রুহী কিছু বলার আগেই ওকে শক্ত করে জড়িয়ে নিলাম,,,


দেখতে দেখতে ট্যুরের দিন চলে আসলো
সবাই সবার ইচ্ছে মতো সাজছে ,,,
আমার পাগলীটাকে পরীর মতো লাগছে ,,,
এর থেকেই বেশি সুন্দরী লাগছে আমার রাজকন্যা কে,,,
সবাই বাসে উঠলাম,,,


“”” ভাবী আপনি আমার সাথে আসুন গল্প করতে করতে যাওয়া যাবে ,,, ( রিয়া)
“”” আচ্ছা ,,, নয়ন তুমি তোমার স্যারের সাথে বসো,,,
“”” জ্বি ম্যম,,, ,,
.

নয়ন আমার সাথে বসলো,,,
সবাই এসে গেছে
তুবা একটু পরে আসলো,,
তুবা যখন বাসে উঠলো তখন সবাই ওর দিকে হা করে তাকিয়ে ছিলো ,,,
কিন্তু রুহী ছিলো আমার দিকে তাকিয়ে ,,,

“”” হাই স্যার ,,,
“”” হাই,,,
“”” আমায় কেমন লাগছে স্যার ,,,
“”” অনেক সুন্দর,,,
“”” ধন্যবাদ স্যার ,,, আমি শুধু আপনার জন্য সাজছি,,,
“”” তাই,,
“”” হুম ,,, কোথায় বসবো স্যার ,,,
“”” ঐ তো সিটটা খালি আছে ,,, ,, যাও বসো,,,
“”” নয়ন ভাইয়া,,
“”” হুম বলেন,,,
“”” আপনি একটু ঐ সিটে বসবেন ,, প্লিজ,,, ,,


আমি তুবার কথা শুনে অবাক,,,
নয়ন উঠতে যাবে
রুহী নয়নকে ইশারায় বসিয়ে দিলো ,,,

“”” সরি আপু,,,
“”” কেন,,,
‘””” স্যারের সাথে ট্যুর নিয়ে কিছু কথা আছে ,,,
“”” পরে বললে হয় না ,,,
“”” এখনি বলতে হবে ,,,
“”” আচ্ছা ,,,


তুবা ঐ সিটটায় গিয়ে বসলো,,,
গাড়ি চলছে তার আপন গতিতে ,,,
আমি গেম খেলছি ,,
রোজা আমার কাছে আসলো,,,

“”” বাপি,,,
“”” হ্যাঁ আম্মু ,,,
“”” আমি আইসক্রিম খাবো,,,
“”” এখন ,,,
“”” হ্যাঁ ,,,
“”” নয়ন এখানে আইসক্রিম আবার কোথায় পাবো,,,
“”” সামনে কোনো দোকান পেলে গাড়ি থামিয়ে নিবো,,,
“”” আচ্ছা ,,,


কিছু দূরে এগিয়ে গাড়ি থামিয়ে
নয়ন আইসক্রিম নিয়ে আসতে গেলো,,,
নয়ন গাড়ি থেকে নামার সাথে সাথেই তুবা এসে আমার পাশে বসলো,,,

রুহী আমার দিয়ে অগ্নি দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে
আমি তো কিছুই বুঝতে পারছি না
এ মেয়ে কি সুযোগ বুঝে ছিলো ,,,

নয়ন এসে ওকে সিটে দেখে অবাক হয়ে যায়,,

“”” আপনি এখানে,,,
“”” স্যারের সাথে আমার কিছু কথা আছে,,,
“”” তো
“”” আপনি প্লিজ আমার সিটে বসেন ভাইয়া,,,


নয়ন আর কোনো উপায় না দেখে পিছনে গিয়ে বসলো,,,

বাকী রাস্তা তুবা আমার সাথে আর রোজার সাথে বকবক করতে করতে পার করলো,,,
আমি আপন মনে বাইরে তাকিয়ে আছি ,,,


এখন আমি আর রুহী হোটেলের রুমে
ফ্রেশ হয়ে শুয়ে আছি ,,,
রোজা তুবার সাথে ওর রুমে,,,

রুহী আমার সামনে শুধু হাটাহাটি করছে

“”” কি হলো??? এমন হাটাহাটি করছো কেন,,,
“”” তুমি চুপ থাকো,,
“”” আরে বাবা শুয়ে একটু রেষ্ট নাও,,
“”” তুই কোনো কথা বলবি না ,,,
“”” মানে কি ,,, আমি আবার কি করলাম ,,,
“”” তুই কিছুই করিস নি,,,
“”” তাহলে এমন করছো কেন,,,
“”” তুই আমার সামনে থাকলে রাগ বারবে,, তুই বের হ,,,
“””” মানে ,,
“”” তুই এখনি রুম থেকে বের হয়ে যা,,,,,
“”” কিন্তু কেন,,,
.
রুহী আর কিছু না বলে
আমসয় টেনে রুম থেকে বের করে দিলো,,,
এখন কি করবো??
দোষ না করেও আমি ঘর ছাড়া
আল্লাহ বিচার কর,,

রুমের বাইরে দাঁড়িয়ে ভাবছি কি করবো,,,
রুহী যে ভাবে রেগে আছে ,,
এখন তো ওর সামনে যাওয়াও যাবে না ,,,
রুমের বাইরে পায়েচারী করছি,,,
হঠাৎ তুবা আর রোজা আসলো,,,


“”” বাপি তুমি এখানে কেন,,,
“”” এমনি আম্মু ,, একটু হাটাহাটি করছি ,,,
“”” ওহহহ,,, চলো ভিতরে যাবো ,,
“”” তুমি যাও,,, আমি একটু পরে আসছি ,,,
“”” আচ্ছা বাপি ,,, তুবা আন্টি চলো,,,
“”” তুমি যাও,, আমি তোমার বাপির সাথে একটু কথা বলি,,,
“”” আচ্ছা ,,,


রোজা ভিতরে গেলো,,
তুবাকে আমার দিকে এগিয়ে আসতে দেখে
আমি সামনের বারান্দায় গেলাম,,,
বারান্দার সোফায় বসলাম ,,,
তুবা এসে আমার পাশে বসলো,,,


“”” এই কি করছো ,,
“”” কেন স্যার ,,,
“”” সামনের সোফায় বসো,,,
“”” এখানে বসলে সমস্যা ,,,
“”” রুহী দেখলে রাগ করবে ,,,
“”” এতো ভয় পাও বউকে,,,
“”” এটা ভয় না ভালোবাসা
“”” ওহহহ,,,


আর কেউ কিছু বলতে পারলাম না ,,,
রুহী এসে আমার সামনে হাজির

“”” কি করছো তুমি এখানে ,,,
“”” কই কি,, ওর সাথে একটু গল্প করছিলাম ,,
“”” রুমে চলো,,,
“”” হুম ,,

রুহীর পিছনে পিছনে রুমে আসলাম ,,
আমি রুমে ঢুকতেই
দরজা লক করে দিলো,,


“”” রোজা তুমি বাপিকে রুমে আসতে বলছিলা,,,
“”” হুম আম্মু ,,,
“”” আসো নাই কেন,,,
“”” না মানে ,,,
“”” না মানে কি??? রোজা তোমায় আসতে বলছে তবুও আসো নাই কেন,,
“”” ( আমি কিছু বলছি না)
“””আমি আপনার জন্য সাজছি ,, তোমায় অনেক সুন্দর লাগছে ,,, আমি একটু আপনার পাশে বসি,, ঢং দেখে বাঁচি না,,,
“”” ( আমি মাথা নিচু করে শুনছি আর হাসছি ,, )

রোজা আমার আমার দিকে তাকালো,,
রোজাকে চোখ মারলাম ,,
রোজাও মুচকি মুচকি হাসছে।


আমি কোনো কথা বলছি না জন্য
রুহী আমায় ধাক্কা দিয়ে বেডে ফালাই দিলো ,,,
এরপর ও আমার উপরে ঝাপিয়ে পড়ে গেলো,,,


“”” কথা বলো না কেন ,,, মুখ দিদিয়ে কথা বের হয় না,,,

“”” হুম ,,,
“”” হুম কেন,,, হুম ছাড়া আর মুখে কিছু নাই,, ,,
“”” তুমি রেগে গেলে অনেক সুন্দর লাগে
“”” ঐ সিরিয়াস মুডে আছি কিন্তু আমি ,,,
“”” আমিও,,,
“””” এতো ঢং কোথায় থেকে আসে ,,,
“”” রাগলে তোমার গাল গুলো লাল হয়ে যায় ,,, একটা কিস করি,,,
“”” ফাজলামি হচ্ছে আমার সাথে ,,,

এটা বলেই রুহী পাশে থেকে একটা বালিশ তুলে
আমায় মারতে শুরু করলো ,,,
হঠাৎ করেই মাথায় একটা শয়তান ভর করলো,,,


“”” আহহহ,,,,,
( বুকে হাত দিয়ে)
“”” এই কি হইছে তোমার ,,,
“”” ব্যাথা হচ্ছে অনেক ,,,
“”” কোথায়,,, কোথায় ব্যাথা হচ্ছে,,,,
“””” বুকে,,, আহহহহ,,,


অজ্ঞান হওয়ার অভিনয় করতে শুরু করলাম ,,,
রুহী কান্না করছে ,,
সাথে রোজাও,,,
রোজা আমায় জড়িয়ে ধরে কান্না করছে ,,
তাই ওর কানটা প্রায় আমার কানের কাছে ,,,

আমি রোজার কানে চুপিচুপি বললাম ,,,

“”” আম্মু আমার কিছু হয় নি ,, কেঁদো না ,,, আর তোমার আম্মু কেও কিছু বলবে না ,,,

রোজা উঠে আমার দিকে তাকিয়ে আছে ,,,
রুহী কান্না করেই যাচ্ছে ,,,
কান্নার পরিমাণ বেরে গেলো,,,

এবার আর অভিনয় করা ঠিক হবে না ,,,
আমার বুকে মাথা রেখে কাঁদছে ,,
আমিও ওকে জড়িয়ে ধরলাম ,,,


হঠাৎ করে আমি ওকে জড়িয়ে ধরায়
রুহী অবাক হয়ে যায় ,,,

“”” তুমি সুস্থ হয়ে গেছো,,,
“”” কেন,, আমি আবার অসুস্থ হলাম কখন,,,
“”” মানে ,,
“”” এটা তো শুধু অভিনয় করলাম,,,, তোমায় একটু ঘাবড়ে দেওয়ার জন্য ,,,
“”” তুমি খুব খারাপ ,,,
“”” এই কই যাও,,,

রুহী চলে যাচ্ছে তাই ওকে টেনে নিলাম , ,

“”” এই ছাড়ো,, ছাড়ো বলছি ,,,
“”” কেন,,,
“”” রোজা দেখছে ,,,


রোজাকেও টেনে নিলাম ,,,
রুহী রোজা দুজনেই আমার বুকে মাথা রেখে শুয়ে আছে ,,,


রাতে খাওয়া করে শুয়ে পড়লাম ,,
পরের দিন সকাল সকাল ঘুরতে বের হলাম,,,


“”” স্যার আজ কি আমরা বনের দিকে যাবো,,,
“”” না,,, আজ একটু শপিং করবো এখানে ( রুহী)
“”” আজকে শপিং করতে হবে ( আমি)
“”” ভাবি ঠিকই বলেছে,, আজ একটু শপিং করি,,, ( রিয়া)
“”” আচ্ছা তাহলে তোমরা শপিং করতে যাও,,, আমরা আশেপাশের এলাকাটা ঘুরে দেখি ,,,
“”” ঠিক আছে ,,,
“”” রোজাকে কি আমার সাথে নিবো,,,
“”” না,, ও আমার সাথে যাক,,, ওর জন্য তো কিছু কিনতে হবে ,,,
“”” আচ্ছা ,,, তবে সাবধানে ,,, রোজার খেয়াল রেখো ,,, দেশের অবস্থা কিন্তু ভালো না,,,
“”” ওটা নিয়ে চিন্তা করতে হবে না তোমায়,,,
“”” আচ্ছা ,,, কোনো সমস্যা হলে ফোন দিয়ো,,,,


রুহীরা শপিং করতে গেলো,,,
আমরা ঘুরতে বের হলাম ,,,

ঘুরতে ঘুরতে প্রায় বিকেল হয়ে গেল ,,,
হোটেলে এসে দেখি রুহী এখনো ফিরে নি,,,
মেয়েদের এই একটা বাজে স্বভাব,,,
এরা শপিং করতে গেলে বাসায় ফেরার কথা ভুলে যায়,,,


ফ্রেশ হওয়ার জন্য ওয়াশরুমে গেলাম ,,,,
একটু পরে বের হয়ে দেখি
রুহীর নাম্বার থেকে তিনবার মিসকল,,,


কি হলো আবার,,,
ফোন দিচ্ছে কেন,,
ফোন দিলাম ,,


“”” হ্যালো,,,
“””‘( কান্নার শব্দ আসছে ওপাশে থেকে)
“”” রুহী,, এই রুহী,,,,
“”” ( কান্না করেই যাচ্ছে )
“”” এই কান্না করছো কেন,,,, কি হইছে বলো,,,
“”” রোজা ,,,,
( ঠিক ভাবে কথা বলতে পারছে না )
“”” রোজা,,, কি হইছে রোজার,,, আর তুমি কান্না করছো কেন,,,
“”” রোজাকে খুঁজে পাচ্ছিনা,,,
“”” কি বলছো এসব,,,
“””‘ তুমি প্লিজ তাড়াতাড়ি আসো,,, ,, আমি ,,,,
( রুহী কথাই বলতে পারছে না ,,, )
“”” আমি আসছি ,,, তুমি শান্ত হও,, আমি এখনি আসছি ,,,

 

সিনিয়র বউ শেষ পার্ট

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *